default-image

ছিলেন না ডিন জোন্স। হুট করে সবাইকে ছেড়ে পাড়ি জমিয়েছিলেন পরপারে। তাঁর জায়গায় বাইরে থেকে অন্য কোনো কোচকে প্লে-অফের জন্য নিয়োগ দেয়নি করাচি কিংস। ফ্র্যাঞ্চাইজিটি বরং ভরসা রেখেছিল ‘ঘরের লোক’ এর ওপরেই। করাচির ফ্র্যাঞ্চাইজির সভাপতির দায়িত্বে থাকা ওয়াসিম আকরামই চলে এসেছিলেন কোচের অভাব পূরণ করার জন্য। কী দুর্দান্তভাবেই না সেই অভাবটা পূরণ করলেন সাবেক এই পেসার!

প্লে-অফ রাউন্ডে ওয়াসিম আকরামের কোচিংয়েই পিএসএলের শিরোপা ঘরে তুলেছে করাচি কিংস। আর এই জয়ের মাধ্যমে এক অনন্য রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন এই কিংবদন্তি। প্রথম মানুষ হিসেবে দুবার আইপিএল ও দুবার পিএসএল জেতা হয়ে গেল সাবেক বাঁ হাতি ফাস্ট বোলারের।

default-image
বিজ্ঞাপন

এর আগে আইপিএলে শাহরুখ খানের ফ্র্যাঞ্চাইজি কলকাতা নাইট রাইডার্সের বোলিং কোচের দায়িত্বে ছিলেন ওয়াসিম। ২০১০ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত কলকাতা শিবিরে থাকা ওয়াসিম দলকে শিরোপা জিততে দেখেছেন দুবার। এই আট বছরে ব্রেট লি, লক্ষ্মীপতি বালাজি, জয়দেব উনাদকাট, উমেশ যাদব, মোহাম্মদ শামি, প্যাট কামিন্স, শন টেইট, মরনে মরকেল, ক্রিস ওকস, নাথান কোল্টার-নাইল, মিচেল জনসনদের অনেক কিছুই শিখিয়েছেন। কলকাতার দায়িত্ব ছাড়ার ঠিক আগ দিয়ে দায়িত্ব নিয়েছিলেন পিএসএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের। সেখানে অবশ্য ক্রিকেট পরিচালক ছিলেন ওয়াসিম। যে দুই মৌসুমে ইসলামাবাদে ছিলেন, তাঁরা শিরোপা জিতেছিল একবার। এরপর এক মৌসুম মুলতান সুলতানসে থেকে যোগ দিয়েছিলেন করাচি কিংসে, সভাপতি হিসেবে। দলের কোচ অবশ্য ডিন জোন্সকে রাখা হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ার এই কোচের অকালমৃত্যুর পর প্লে-অফে দলের হাল ধরতে চলে আসেন ওয়াসিম। গতকাল মিশন শেষ করলেন শিরোপা জিতে। এর মাধ্যমে এই প্রথম কেউ আইপিএলে দুবার ও পিএসএলে দুবার শিরোপা জিতল। ফ্র্যাঞ্চাইজিটিতে ওয়াসিমের প্রভাব যে কতটা বেশি, সেটা বোঝা গেছে করাচি কিংসের অধিনায়ক অলরাউন্ডার ইমাদ ওয়াসিমের কথাতেই, ‘ওয়াসিম আকরামকে নিয়ে কিছু বলার ভাষা নেই আমার। তিনি একই সঙ্গে আমাদের মূল কোচ, বোলিং কোচ, মেন্টর, পরামর্শদাতা ও ফ্র্যাঞ্চাইজি সভাপতি।’

মন্তব্য পড়ুন 0