এই প্রশ্নের উত্তর দিতেও বেশি ভাবতে হওয়ার কথা না। একসময় যে জিম্বাবুয়েও অজেয় ছিল বাংলাদেশের জন্য, সেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় অনেক দিনই আর কোনো অনুরণন তোলে না। সব মিলিয়ে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি জয় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। দেশের বাইরে সবচেয়ে বেশি জয়ও জিম্বাবুয়েতেই। জিম্বাবুয়েতে ৩১টি ওয়ানডে খেলে বাংলাদেশ জিতেছে অর্ধেকের বেশি ১৬ ম্যাচ। জিম্বাবুয়েতে বাংলাদেশ সব কটি ম্যাচই খেলেছে স্বাগতিকদের বিপক্ষে।

default-image

বাংলাদেশের ওয়ানডে ম্যাচ জয়ের সংখ্যায় এরপরই আসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের নাম। ক্যারিবিয়ানে বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ২৩টি ওয়ানডে খেলে জিতেছে ১০টি। সর্বশেষ জয়টি আবার চার বছর আগে ক্যারিবিয়ানে খেলা সর্বশেষ ওয়ানডেতেই। সেই সিরিজটা ২–১ ব্যবধানে জিতেছিল মাশরাফি বিন মুর্তজার বাংলাদেশ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে পাওয়া ১০ ওয়ানডে জয়ের শুধু অর্ধেকই বাংলাদেশ পেয়েছে স্বাগতিকদের বিপক্ষে। অন্য দলগুলোর বিপক্ষে পাওয়া পাঁচটি জয়ই ২০০৭ সালে। এর তিনটি বিশ্বকাপে ভারত, বারমুডা ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয়টি তো আবার এবারের ওয়ানডে সিরিজের ভেন্যু গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামেই।

২০০৭ বিশ্বকাপের আগে ফেব্রুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজে একটি প্রস্তুতিমূলক ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে বারমুডা ও কানাডাকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। অ্যান্টিগার সেন্ট জনসে কানাডার বিপক্ষে বাংলাদেশের জার্সিতে প্রথম সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। ১৯ বছর বয়সী সাকিব সেদিন ১৩৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন।

default-image

ওয়েস্ট ইন্ডিজে বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পাঁচবারই হারিয়েছে দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজে। ২০০৪ সালে প্রথম সফরে ধবলধোলাই হওয়া বাংলাদেশ ২০০৯ সালে খর্বশক্তির ক্যারিবীয়দের ধবলধোলাই করে। ২০১৪ সালে আবার ফিরে আসে ধবলধোলাই হওয়ার দুঃস্বপ্ন। ২০১৮ সালের পরের সফরের কথা তো আগেই বলা হয়েছে। ২–১ ব্যবধানে জেতা সেই সিরিজটা বাংলাদেশের অনুপ্রেরণা হতেই পারে।

তবে জয়–হারের অনুপাতে দেশের বাইরে বাংলাদেশ ওয়ানডেতে সবচেয়ে সফল আয়ারল্যান্ডে। সেখানে খেলা ১১ ম্যাচে ৭টিতেই জিতেছে বাংলাদেশ।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন