বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার জন্য দুঃসংবাদ। করোনার কারণে অ্যাশেজের মতো প্রার্থিত সিরিজের একটা ম্যাচ দেখার সুযোগ হারাচ্ছেন সেখানকার দর্শকেরা। সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ অনেকটাই নিয়ন্ত্রিত রেখে করোনা নিয়ন্ত্রণে বেশ সাফল্য দেখিয়েছে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া।

সে কারণে নিউ সাউথ ওয়েলস, ভিক্টোরিয়া ও সাউথ অস্ট্রেলিয়া রাজ্যে করোনার উঠতি সংক্রমণের হারের কারণে এই রাজ্যগুলো থেকে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ায় (ডব্লুএ) ঢোকার ক্ষেত্রে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের কঠোর নিয়ম বেঁধে দিয়েছে ডব্লুএ সরকার।

চতুর্থ টেস্ট হবে নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের শহর সিডনিতে, পাঁচ দিনে গড়ালে টেস্ট শেষ হবে ৯ জানুয়ারি। সে ক্ষেত্রে চতুর্থ ও পঞ্চম টেস্টের মধ্যে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন সম্ভব নয়।

ইংল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়া দল আশায় ছিল, পার্থ যে রাজ্যের শহর, সেই ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার সরকার শুধু দুই দল, ম্যাচ অফিশিয়াল আর সম্প্রচারসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের লম্বা কোয়ারেন্টিনের নিয়ম কিছুটা শিথিল করবে ডব্লুএ।

কিন্তু আজ সকালে প্রকাশিত বিবৃতিতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, ‘সম্ভাব্য সব চেষ্টা’ করার পরও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন ও রাজ্যটির সরকারের ‘চাওয়া’গুলোকে এক সারিতে আনা যায়নি।

default-image

রাজ্য সরকার, রাজ্য ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চাওয়ার ভিন্নতা নিয়ে ঝামেলার কারণে টেস্টের ভেন্যু এদিক-সেদিক করার কোনো সুযোগ বা সম্ভাবনাও নেই বলে বিবৃতিতে লিখেছে সিএ।

ভেন্যু অদলবদলের কথা আসছে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া (ডব্লুএ) ক্রীড়ামন্ত্রী টনি বুটির পরামর্শের প্রেক্ষিতে।

চতুর্থ টেস্টের ভেন্যু সিডনির রাজ্য নিউ সাউথ ওয়েলস থেকে তাঁদের রাজ্যে ঢোকায় কোয়ারেন্টিনের বিধিনিষেধ আছে, তবে প্রথম টেস্টের ভেন্যু ব্রিসবেনের রাজ্য কুইন্সল্যান্ডে করোনা অনেক নিয়ন্ত্রণে থাকায় সেই রাজ্য থেকে ডব্লুএ-তে ঢোকায় কোয়ারেন্টিনের বিধিনিষেধ নেই। সে কারণেই বুটির পরামর্শ ছিল, দ্বিতীয় আর পঞ্চম টেস্টের ভেন্যু অদলবদল করা হোক।

অর্থাৎ, ব্রিসবেনে প্রথম টেস্ট খেলেই দুই দল পার্থে দ্বিতীয় টেস্ট খেলুক, আর পঞ্চম টেস্ট হোক সূচিতে দ্বিতীয় টেস্টের জন্য নির্ধারিত ভেন্যু অ্যাডিলেডে। কিন্তু অ্যাডিলেডে দ্বিতীয় টেস্টটা হবে দিবারাত্রির, আর সেটি হারাতে রাজি নয় অ্যাডিলেডের রাজ্য সাউথ অস্ট্রেলিয়া— ‘অ্যাডিলেডের দিবারাত্রির টেস্ট সাউথ অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় বার্ষিক ইভেন্টগুলোর একটি, আর অ্যাশেজের চেয়ে বড় কোনো সফরও হতে পারে না।’

তবে পার্থে অ্যাশেজের টেস্ট না হলেও সিএ-র প্রধান নির্বাহী নিক হকলি আজ বিবৃতিতে জানিয়েছেন, আসছে গ্রীষ্মে অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট বিগ ব্যাশ লিগের ম্যাচ আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের একটি ম্যাচ পার্থে আয়োজনের ব্যাপারে তাঁরা আশাবাদী।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন