বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত দুটি ম্যাচ খেলে ফেললেও অশ্বিনের এখনো মাঠে নামা হয়নি। বরুণ চক্রবর্তীর সঙ্গে স্পিনার হিসেবে খেলছেন অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা। এ দুজনের সঙ্গে অশ্বিনকে খেলালে দলে স্পিনার হয়ে যাবে তিনজন। আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন স্পিনার নিয়ে খেললেও কোনো অসুবিধা নেই বলে মনে করেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক গাভাস্কার, ‘তিন স্পিনার নিয়ে খেলালে কোনো সমস্যা হবে ভাবার দরকার নেই।’

একজন স্পিনার বেশি খেলালে কাকে দল থেকে বাদ দেবে ভারত? এর সমাধানও দিয়ে রেখেছেন গাভাস্কার, ‘যদি হার্দিক পান্ডিয়া থাকে, তাহলে দুজন সিমার আর তিনজন স্পিনার খেলানো যায়। সে ক্ষেত্রে শার্দূল ঠাকুর বা মোহাম্মদ শামির কাউকে বাদ দিতে হবে। (হার্দিক যদি বল করে) তাহলে তো তিনজন পেসারই থাকল।’

default-image

আফগানদের ব্যাটিং লাইনআপে বাঁহাতি খুব বেশি নেই। এরপরও অফ স্পিনার অশ্বিনকে খেলানো ঠিক হবে কি না, প্রশ্নের উত্তরে গাভাস্কার বলেছেন, ‘রবিচন্দ্রন অশ্বিনের মতো একজন শীর্ষ মানের স্পিনার ক্ষেত্রে এটা খুব একটা পার্থক্য করে না যে সে ডানহাতি ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে বল করছে, নাকি বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে বল করছে।’

বরুণ চক্রবর্তীকে বলা হয় ভারতের রহস্য স্পিনার। অশ্বিনকে একাদশে রাখতে গিয়ে তাঁকে বাদ দিলেও খুব একটি ক্ষতি হবে না, গাভাস্কারের কথায় এমনই ইঙ্গিত। গাভাস্কার বলেছেন, ‘আফগানিস্তান দলের দিকে তাকান, ওদের কতজন রহস্য স্পিনার আছে। মুজিবের মতো একজন রহস্য স্পিনার আছে ওদের। তাকেও কখনো কখনো একাদশে রাখা হয় না।’

default-image

রহস্য স্পিনার বলে যে আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানদের বরুণকে খেলা খুব একটা কঠিন হবে, সেটাও মনে করেন না গাভাস্কার, ‘আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানরা যেহেতু রহস্য স্পিনার খেলে অভ্যস্ত, তাই বরুণ চক্রবর্তীর মতো কাউকে খেলাটা ওদের জন্য খুব একটা কঠিন হবে না। এ কারণেই আমি রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে একাদশে রাখতে বলছি।’

ব্যাটিং বিভাগেও একটি পরিবর্তনের পরামর্শ দিয়েছেন গাভাস্কার। তাঁর কথা, ‘পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে সূর্যকুমার যাদব শুরুই করেছিল শাহিন আফ্রিদিকে ফ্লিক করে একটি ছয় মেরে। সে বড় শট খেলতে পারে এবং আবুধাবিতে তার সুখের স্মৃতিও আছে। তাই আমি মনে করি ঈশান কিষানের চেয়ে ভালো হবে সূর্যকুমার যাদবকে দলে রাখলে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন