কোহলিকে স্লেজিং করলেই সমস্যা!
কোহলিকে স্লেজিং করলেই সমস্যা!ছবি: রয়টার্স

স্টিভ ওয়াহর মুখ থেকেই শোনা গেল সাবধান বাণীটি—বিরাট কোহলিকে স্লেজিং কোরো না। নিজেদের খেলোয়াড়েরা ভারতের অধিনায়ককে যেন স্লেজ না করেন, সে ব্যাপারে নিষেধই করলেন তিনি। এ শতকের শুরুতে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হিসেবে যে স্টিভ ওয়াহ স্লেজিংকে রীতিমতো শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁর সময় যেখানে অস্ট্রেলিয়া দলের কৌশলের অংশই ছিল স্লেজিং, সেই স্টিভ ওয়াহর মুখেই কোহলিকে স্লেজিং না করার সাবধান বাণী। ব্যাপারটা একটু কেমন নয় কি!

কারণ তো অবশ্যই আছে। না হলে তিনি ভারতীয় ক্রিকেট দলের আসছে অস্ট্রেলিয়া সফরে কোহলিকে কেন স্লেজিং করতে মানা করবেন! সাবেক অস্ট্রেলীয় অধিনায়কের মতে, কোহলিকে স্লেজিং করলে ব্যাপারটা হিতে বিপরীত হতে পারে।

খেলোয়াড়ি জীবনে স্টিভ ওয়াহর তত্ত্বটা অনেকটা এমন ছিল, মাঠে খেলার সময় প্রতিপক্ষকে কথার বাণে বিদ্ধ করে তাঁর মানসিক শক্তি ভেঙে গুঁড়িয়ে দিতে হবে। এমনভাবে তাঁকে কথা দিয়ে আক্রমণ করতে হবে, যেন প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়েরা আত্মবিশ্বাস হারিয়ে বসেন। এ শতকের শুরুতে ক্রিকেট দুনিয়ায় রীতিমতো অজেয় হয়ে ওঠা অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের মুখোমুখি হতে অন্য দেশের ক্রিকেটাররা ভয়ই পেতেন। খেলতে নেমে গালি খেতে কেই–বা চায়! অস্ট্রেলিয়া প্রতিপক্ষের ভীত হয়ে পড়ার সুযোগটাকে পুরোপুরিই কাজে লাগিয়েছে।

default-image
বিজ্ঞাপন

স্লেজিং–সংক্রান্ত এ তত্ত্ব যখন প্রয়োগ করা শুরু হয়, তখন মাঠের মধ্যে গালিগালাজ, কথার বাণ অন্য দেশের ক্রিকেটারদের কাছে বেশ অজানাই ছিল। ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেট। যেখানে ভালো একটা ইনিংস খেললে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়েরা প্রশংসা করেন, হাততালি দেন, সেখানে গালি! তাও যা-তা গালি নয়, একেবারে মা–বাবা তুলেই গালি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে যেমন অনেক তত্ত্বই পুরোনো হয়ে যায়, তেমনি ক্রিকেটে স্লেজিংয়ের তত্ত্বও পুরোনোই হয়ে গেছে। স্টিভ ওয়াহদের দেখানো পথে গালির অস্ত্র নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছেন প্রতিপক্ষের ক্রিকেটাররা। নতুন একটা প্রজন্ম তৈরি হয়েছে, যারা এখন নিজেরাই গালিগালাজ ফিরিয়ে দিতে পারে। প্রতিপক্ষের গালিতে তারা মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয় না।

ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি সে প্রজন্মেরই প্রতিনিধি। ওয়াহ সেটিই বলেছেন এখনকার অস্ট্রেলীয় দলকে, ‘কোহলিকে স্লেজিং করতে যেয়ো না। তাতে উল্টো ফল হতে পারে। কোহলি স্লেজিংয়ে খেপে গিয়ে এমন খেলা খেলল, যা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে অস্ট্রেলিয়ার জন্যই। ওকে তাই বিরক্ত না করাই ভালো।’

কোহলিকে স্লেজিং করতে গিয়ে উল্টো নিজেরাই মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়েছিলেন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা। সেটি ভারতের সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়া সফরের ঘটনা। কোহলিকে স্লেজিং করবেন কী, উল্টো ভারত অধিনায়কই কোনো কথা মাটিতে পড়তে দেননি। প্রতিটি কথার জবাব ফিরিয়ে দিয়েছেন। উত্তপ্ত বাক্যবিনিয়মও হয়েছিল, যেটি দেখেছে ক্রিকেট দুনিয়ার সবাই।

কোহলি তাই এখন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের কাছে বাঘ। বাঘকে অযথা কেই–বা খ্যাপাতে চায়!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0