default-image
>আইসিসির নির্দেশ অনুযায়ী বিশ্বকাপে ভারতীয় দল দুই রঙের জার্সি নিয়ে খেলতে এসেছে। চিরাচরিত নীলরঙা জার্সির পাশাপাশি অন্য জার্সিটিতে আছে গেরুয়া রঙের আধিক্য। বিজেপির পতাকার রং কোহলিদের জার্সিতে থাকায় বিতর্ক উঠেছে ভারতের সংসদেও।

বিশ্বকাপে ভারতীয় ক্রিকেট দলের দ্বিতীয় জার্সিতে গেরুয়া রঙের আধিক্য বিতর্ক তৈরি করেছে। এ নিয়ে ভারতীয় সংসদে প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিরোধী সমাজবাদী পার্টির একজন সাংসদ। তিনি মনে করেন বিজেপিগোষ্ঠী গোটা ভারতকে গেরুয়াকরণের যে কার্যক্রম হাতে নিয়েছে, তা থেকে রেহাই মেলেনি ভারতীয় ক্রিকেট দলও। উল্লেখ্য, গেরুয়া রংকে হিন্দুত্বের প্রতীক হিসেবে ধরা হয়। বিজেপির দলীয় পতাকাতেও আছে গেরুয়ার আধিক্য।

এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে বেশ কয়েকটি দেশকে দুই রঙের দুই সেট জার্সি রাখতে বলেছে আইসিসি। শ্রীলঙ্কা ও দক্ষিণ আফ্রিকা ইতিমধ্যে দুই রঙের জার্সি পরেই মাঠে নেমেছে। দুই রঙের জার্সি আছে বাংলাদেশ ও ভারতেরও। এই দুই দেশ এখনো তাদের দ্বিতীয় জার্সি ব্যবহার না করলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতকে তাদের চিরাচরিত নীল জার্সির বদলে দ্বিতীয় জার্সিটি ব্যবহার করতে হবে।

দুই রঙের জার্সিতে সমস্যা নেই। সমস্যা, ভারতের দ্বিতীয় জার্সিতে গেরুয়ার আধিক্যে। সমাজবাদী পার্টির সাংসদ আবু আজমি গেরুয়া রঙের পেছনে ক্ষমতাসীন বিজেপির দলীয়করণের দুরভিসন্ধি দেখছেন। তিনি মনে করেন, ভারতের জাতীয় পতাকার তিন রঙে যদি জার্সি হতো, তাহলে সমস্যা ছিল না, কিন্তু কেবল গেরুয়া রঙের জার্সি মানেই বিজেপির হিন্দুত্বকে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা। তিনি পুরো ব্যাপারটিকে ‘অনৈতিক’ বলছেন।

এদিকে ভারতীয় সংসদের বিতর্ক পৌঁছে গেছে ইংল্যান্ডে ভারতীয় শিবিরেও। এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হয়েছিল ভারতের বোলিং কোচ ভরত অরুণকে। তিনি অবশ্য বিতর্কের ধারেকাছ দিয়ে যাননি। তিনি বলেছেন, ‘ভারতীয় দলের স্লোগান ব্লিড ব্লু—এটা সবাই জানেন। আমরা কোন রঙের জার্সি পরে মাঠে নামছি, এটা বড় কথা নয়। আমাদের কাছে মূল বিষয় দলের জয়।’


আজ ম্যানচেস্টারের ওল্ডট্র্যাফোর্ডে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে ভারত। ৩০ জুন বার্মিংহামের এজবাস্টনে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচেই গেরুয়া জার্সি ব্যবহার করার কথা ভারতের।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0