বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সমান পয়েন্ট পাওয়া দলগুলোকে আলাদা করে রেখেছে হয় ম্যাচ সংখ্যা, নয় নেট রান রেট। আজ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে জিতলে ছয় পয়েন্ট পাওয়া সপ্তম দল হয়ে যাবে মোস্তাফিজের দিল্লি ক্যাপিটালস।

তবে এর চেয়েও বড় সমীকরণ সম্ভবত এই যে, কোহলিদের হারালেই পয়েন্ট তালিকায় একটা ‘ছক্কা’ মারারও সুযোগ দিল্লির। ছয় ধাপ এগিয়ে এক লাফেই যে দুই নম্বরে উঠে যাওয়ার সুযোগ মোস্তাফিজদের সামনে। সে জন্য অবশ্য আরেকটি প্রার্থনায়ও থাকতে হবে মোস্তাফিজদের—দিনের প্রথম ম্যাচে মুম্বাইয়ের কাছে লক্ষ্ণৌর হার।

default-image

এই মুহূর্তে ৬ পয়েন্ট পাওয়া ছয়টি দলের সবার চেয়েই রানরেটে এগিয়ে দিল্লি। পয়েন্ট তালিকার দুইয়ে থাকা, অর্থাৎ ‘৬ পয়েন্ট ক্লাব’-এর ৬ সদস্যের মধ্যে সবার ওপরে থাকা রাজস্থান রয়্যালসের রানরেট যেখানে +০.৩৮৯, দিল্লির +০.৪৭৬। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আজ কোহলিদের বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে জিতলেই সেটি নিশ্চিতভাবেই আরও বাড়বে।

দিল্লির জন্য আরেকটি ভালো দিক, অন্য যেকোনো দলের চেয়ে ম্যাচও কম খেলেছে তারা। অন্য সব দল যেখানে ৫-৬টা করে ম্যাচ খেলে ফেলেছে, সেখানে দিল্লি মাঠে নেমেছে মাত্র চারবার। যার মধ্যে দুটি জিতেছে, হেরেছেও দুটিতে।

ওয়াংখেড়ের পিচ এমনিতেই পেসবান্ধব, যে কারণে একটু স্বস্তিতেই আছেন দিল্লির পেসাররা। খলিল আহমেদ যেমন বল সুইং করবে এটা ভেবেই আনন্দ পাচ্ছেন, ‘ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বল সুইং করে, তাই এই মাঠে খেলার জন্য আমরা মুখিয়ে আছি। আমরা বেশ রোমাঞ্চিত। আশা করি, কন্ডিশনের সদ্ব্যবহার করে আমরা উইকেট নিতে পারব।’ মোস্তাফিজও নিশ্চয়ই খলিলের মতোই আনন্দিত!

দিল্লি চার ম্যাচ খেললেও মোস্তাফিজ খেলেছেন এর তিনটিতে। প্রথম ম্যাচ বাদ দিয়ে পরের তিন ম্যাচেই খেলা মোস্তাফিজ প্রতিবারই বোলিং কোটা পূরণ করেছেন। ৫.৮৩ ইকোনমিতে মোট ১২ ওভার বল করে ৭০ রান দিয়েছেন, তুলে নিয়েছেন ৩ উইকেট। আজ যেন কোহলি-ডু প্লেসিদের নামটাও উইকেটের খাতায় যোগ হয়, সেটাই চেষ্টা থাকবে তাঁর!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন