বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

কোহলি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন ৪৫৮টি। ১০১ টেস্টে ৮ হাজারের ওপরে রান সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত সব সংস্করণে ভারতকে নেতৃত্ব দেওয়া অধিনায়কের। টেস্টে রান তুলেছেন প্রায় ৫০ গড়ে। শতক আছে ২৭টি। ওয়ানডে খেলেছেন ২৬০টি, যাতে ৫৮.০৭ গড়ে ১২ হাজার ৩১১ রান। ৪৩টি শতকের পাশাপাশি ৬৪টি অর্ধশতক। টি-টোয়েন্টিতেও সমানতালে সচল তাঁর ব্যাট। টি-টোয়েন্টিতে এখনো কোনো শতক না পেলেও রান তুলেছেন ৫১.৫০ গড়ে। অর্ধশতক ৩০টি, সর্বোচ্চ ইনিংসটি অপরাজিত ৯৪ রানের। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সর্বশেষ ১৫ ম্যাচেও কোহলির ৫টি অর্ধশতক, সর্বোচ্চ ইনিংসটি ৮৬ রানের।

default-image

কোহলির আইপিএল ক্যারিয়ারও একই রকম ঝলমলে। এবারের আইপিএলের আগে ১৪ মৌসুমে রান ৬২৮৩। সব মিলিয়ে শতক ৫টি। আইপিএলের এক মৌসুমে সর্বোচ্চ ৪ সেঞ্চুরির রেকর্ডের মালিকও তিনি। সেটা তিনি করেছিলেন ২০১৬ সালে। ১৬ ম্যাচে ৮১.০৮ গড়ে ৯৭৩ রানের অবিশ্বাস্য কীর্তি এখনো বিস্ময় জাগিয়ে যাচ্ছে।

এবারের আইপিএলে কোথায় সেই কোহলি? ৮ ম্যাচে রান মাত্র ১১৯। সর্বোচ্চ ৪৮। সর্বশেষ দুই ম্যাচে পেয়েছেন ‘সোনার হাঁস’! রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুও উত্তর খুঁজছে কোহলি-রহস্যের। কোহলি নিজেও যে অবাক, একেকটা আউটের পর তাঁর অভিব্যক্তিতেও ফুটে উঠছে তা। সর্বশেষ দুই ম্যাচে প্রথম বলেই আউটের পর কোহলি এমনভাবে তাকিয়েছেন, সেটা দেখে অনেকেরই হয়তো মনে হবে—নিজেকে হারিয়ে ফেলা কেউ নিজের মধ্যে অচেনা কাউকে দেখে চমকে উঠেছেন!

default-image

টেস্টে কোহলির যে খুব একটা খারাপ সময় যাচ্ছে, তা নয়। সর্বশেষ খেলা ৩২ ইনিংসে ৬টি অর্ধশতক করেছেন। কিন্তু জলের তেষ্টা কি আর শিশিরে মেটে! কোহলির কাছে তো ক্রিকেটপ্রমীরা বলতে গেলে প্রতি ম্যাচেই রানের ফোয়ারা দেখতে চায়। তাদের চাওয়া থাকে, কোহলি কদিন পরপরই শতক করবেন। সেই কোহলির অর্ধশতক দেখে কি আর মন ভরবে কারও! তাই তো কোহলিকে নিয়ে আইপিএল শুরুর আগের আলোচনা ছিল—২০১৯ সালের নভেম্বরে ইডেনে দিবারাত্রির টেস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে শতক করার পর টেস্টে আর শতক নেই কোহলির। এরপর কোহলি খেলেছেন ৩২টি ইনিংস, যার দুটিতে তাঁকে ব্যাটিংয়ে নামতে হয়নি!

এর আগে কোহলির দুই টেস্ট শতকের মাঝে এমন লম্বা বিরতি নেই। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট শতক পেয়েছেন ১৫তম ইনিংসে। এরপর কোহলির দুই শতকের মধ্যে সবচেয়ে বড় বিরতি ছিল ১২ ইনিংসের।

default-image

কোহলির টেস্ট ক্রিকেটে রান বা শতক পাওয়া না পাওয়া নিয়ে এমন আলোচনা ছিল এবার আইপিএল শুরুর আগে। কিন্তু রোহিতের বেলায় তো তা–ও ছিল না। টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি—তিন সংস্করণেই সমানতালে রান করে যাচ্ছিলেন। টেস্টে সর্বশেষ ১০ ইনিংসে একটি শতক তাঁর, অর্ধশতক দুটি। সাদা বলের ক্রিকেট মানেই তো ছিল তাঁর ব্যাটে রানের ফোয়ারা। ওয়ানডেতে সর্বশেষ ১১ ম্যাচে দুটি করে শতক ও অর্ধশতক। টি-টোয়েন্টিতে সর্বশেষ ১০ ম্যাচে অর্ধশতক ৪টি।

রোহিতের আইপিএল ক্যারিয়ারও কোহলির মতোই সমৃদ্ধ। এবারের আইপিএলের আগে রোহিত ১৪ মৌসুমে করেছেন ৫৬১১ রান। শতক আছে একটি। সেই রোহিতই কিনা ছন্দে থাকা অবস্থায় আইপিএল খেলতে এসে কোথায় যেন হারিয়ে গেলেন!

এবারের আইপিএলে ৮ ম্যাচে মাত্র ১৫৩ রান। তাঁর নেতৃত্বে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস রীতিমতো ধুঁকছে। অথচ গত বছরের নভেম্বরে কোহলির কাছ থেকে নেতৃত্ব পাওয়ার পর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে কোনো ম্যাচ হারেনি রোহিতের ভারত। তাঁর নেতৃত্বেই মুম্বাই ইন্ডিয়ানস জিতেছে আইপিএলের পাঁচটি শিরোপা। আর এবারের আইপিএলে সেই রোহিতের নেতৃত্বেই ৮ ম্যাচের একটিও জিততে পারেনি মুম্বাই। এমন দুঃস্বপ্নের শুরুর সঙ্গে আইপিএলের কোনো দলের এই প্রথম পরিচয়।

আইপিএলে কোহলি ও রোহিতের এই রান–খরা দেখে পিট সিগারের গানের কলি ‘ফুলগুলো সব কোথায় গেল’-কে একটু ঘুরিয়ে কেউ প্রশ্ন করতেই পারেন—রানগুলো সব কোথায় গেল!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন