বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

২০১০ সালে লর্ডসে পাকিস্তানের তিন ক্রিকেটারের স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারির সময়ে দলের অধিনায়ক ও ওই ঘটনার মূল হোতা সালমান বাট। সে জন্য জেল খেটেছেন, পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞাও ভোগ করেছেন তিনি। ‘শুদ্ধিকরণ’ প্রক্রিয়া শেষে ক্রিকেটে ফিরলেও ব্যাটের পারফরম্যান্স দিয়ে ফেরাটা সেভাবে আলোচনায় আনতে পারেননি সালমান। ক্রিকেট ছেড়ে এখন অন্য অনেক সাবেক ভারতীয় ও পাকিস্তানি ক্রিকেটারের মতো ইউটিউবেই আলোচনা করেন আগামী মাসে ৩৭–এ পা দিতে যাওয়া সালমান।

ইউটিউবেই খবরটি নিয়ে বিস্ময় জানিয়েছেন সালমান, ‘খবরটি বাজারে আসার সময়টা দেখেছেন? ওদের বোর্ড (বিসিসিআই) অধিনায়কত্বের ব্যাপারে কী ভাবছে, সেটা নিয়ে আমার চিন্তা নেই। ওদের ক্রিকেটকে কে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে, ওরা সেটা চিন্তা করে বের করবে। কিন্তু সেসব নিয়ে আলোচনা করার জন্য সময়টা কীভাবে বেছে নেয়? এখন তো বিরাট কোহলির অধিনায়কত্ব হুমকির মুখে বলে খবর আসছে!’

default-image

সালমান বাট তুলে এনেছেন ইংল্যান্ডের মাটিতে সম্প্রতি হয়ে যাওয়া ভারত-ইংল্যান্ড পাঁচ টেস্টের সিরিজ নিয়েও। ভারতীয় দলে করোনা ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কায় পঞ্চম টেস্টটি বাতিল হয়ে গেছে, কিন্তু আগের ৪ টেস্ট শেষে ভারত ২-১ এগিয়ে ছিল। সেখানে ভারতের অধিনায়ক হিসেবে কোহলির পারফরম্যান্সের প্রশংসা ঝরেছে সালমানের কণ্ঠে, ‘ও কদিন আগে ইংল্যান্ডের মাটিতে সিরিজ খেলল, সেখানে দলকে দারুণভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে। দল নির্বাচন নিয়ে ওর সমালোচনা হয়েছে অনেক, কিন্তু সেসবকে পাত্তা না দিয়ে ও সব সময় দলকে সমর্থন জানিয়ে আসছে। ফলে দলের সবাই ওর ডাকে সাড়া দিচ্ছে, দারুণ ক্রিকেট খেলছে।’

কোহলির অধীনে ভারতের সাফল্যের বয়ানও থাকল সালমানের ইউটিউব বিশ্লেষণে, ‘(কোহলির অধীনে) ভারতের দলটা সব সংস্করণের ক্রিকেটেই তালিকার শীর্ষে। এখন বিশ্বকাপ একেবারে সামনে চলে এসেছে। এ পরিস্থিতিতে সংবাদমাধ্যমে এমন খবর (কোহলির অধিনায়কত্ব ছাড়া) আসা আসলে নোংরা রাজনীতি ছাড়া আর কিছু নয়।’

default-image

তবে কোহলির বদলে যিনি ভারতের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক হতে যাচ্ছেন বলে গুঞ্জন, সেই রোহিত শর্মার অধিনায়কত্ব নিয়ে সালমানের কোনো প্রশ্ন নেই। তবে সালমানের আপত্তিটা কোহলি-রোহিতের নেতৃত্বগুণের তুলনায় নয়, বরং খবরটা ছাড়ার সময়বোধে। ‘আগেও বলেছি, রোহিত শর্মা দারুণ একজন অধিনায়ক। দারুণ সফল। কিন্তু এসব নিয়ে কথা বলার সময় তো এটা নয়!’

২০১৪ সালে ভারতের টেস্ট দলের অধিনায়ক হওয়ার পর ৬৫ টেস্টে ৩৮ জয় নিয়ে টেস্টে ভারতের সফলতম অধিনায়কই বনে গেছেন কোহলি। তবে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে সাফল্যের চূড়ান্ত যে নির্ণায়ক, সেই বিশ্বকাপে কোহলির অধীন ভারত কখনো সেমিফাইনালের গণ্ডি পেরোতে পারেনি। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ফাইনালে উঠে হেরেছে পাকিস্তানের কাছে। সে তুলনায় রোহিতের টি-টোয়েন্টিতে সাফল্যের পাল্লা ভারী—আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসকে শিরোপা জিতিয়েছেন পাঁচবার। কোহলির বদলে মাঝেমধ্যে যে ভারতের অধিনায়কত্ব করেছেন, তার মধ্যেও ২০১৮ এশিয়া কাপ ও নিদাহাস ট্রফি জিতিয়েছেন রোহিত।

তবে সালমান বাট সে তুলনায় যেতে রাজি নন, ‘ট্রফি জেতা গুরুত্বপূর্ণ, সেটা ঠিক আছে। কিন্তু ও (কোহলি) যত ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছে, তাতে ভারতের জয়ের হার এবং বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশে ওর সাফল্যও তো দেখতে হবে। আমার মনে হয়, এটা এসব নিয়ে কথা বলার সময় নয়। এই ছেলে (কোহলি) ভারতের ক্রিকেটের জন্য অনেক কষ্ট করেছে। এখন যে খবর ছড়াচ্ছে, সেটা নিছকই কারও খারাপ উদ্দেশ্য থেকে করা, যেটা হওয়া উচিত নয়।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন