default-image

খেলা ছাড়ার পর ক্রিকেট বিশ্লেষণে ভালোই নাম কামিয়েছেন আকাশ চোপড়া। খেলাধুলাভিত্তিক নানা চ্যানেল ও সংবাদমাধ্যমে তিনি খেলা ও খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ করে থাকেন। এমনকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও কাজটা চালিয়ে যাচ্ছেন ভারতের হয়ে ১০টি টেস্ট খেলা সাবেক এই ব্যাটসম্যান। এবার নিজের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে আকাশ চোপড়া এমন এক মন্তব্য করলেন, যা শুনলে বিরাট কোহলি কিংবা রবি শাস্ত্রীদের মোটেও ভালো লাগবে না।

আইপিএলে এবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। টানা দ্বিতীয় ও সব মিলিয়ে পঞ্চমবারের মতো আইপিএল শিরোপা জিতল ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটি। মুম্বাইয়ের শক্তিমত্তা বিশ্লেষণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, টি-টোয়েন্টি সংস্করণে ভারত জাতীয় দলকে হারানোর ক্ষমতা রাখে দলটি। ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং—ক্রিকেটের এই তিন বিভাগেই কোহলির দলকে মুম্বাই হারাতে পারে বলে মনে করেন আকাশ চোপড়া।

বিজ্ঞাপন

বিশ্লেষণে মুম্বাইয়ের মিডল অর্ডারের তুমুল প্রশংসা করেন ৪৩ বছর বয়সী সাবেক এ ক্রিকেটার। কাইরন পোলার্ড, হার্দিক পান্ডিয়া ও ক্রুনাল পান্ডিয়াদের মতো মারকুটে ব্যাটসম্যান যেকোনো দলের জন্য বিধ্বংসী বলে মনে করেন তিনি। চোপড়ার ভাষায়, ‘মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের গভীরতা এতটাই যে প্রতিপক্ষ দলগুলো ডুবে যায়। ব্যাটিংয়ের কথা বললে, কাইরন পোলার্ডের পর হার্দিক পান্ডিয়া ও ক্রুনাল পান্ডিয়ার মতো খেলোয়াড় আছে। তারা এতটা মারকুটে যে থামানো অসম্ভব হয়ে পড়ে।’

মুম্বাইয়ের সব খেলোয়াড়কে ম্যাচ উইনার বলে মনে করেন আকাশ চোপড়া। যশপ্রীত বুমরা, জেমস প্যাটিনসন, মিচেল ম্যাকলেনাহান, ট্রেন্ট বোল্টরা ছাড়াও ধাওয়ান কুলকার্নি, নাথান কোল্টার-নাইলরা আছেন। অভিজ্ঞ লাসিথ মালিঙ্গা এবার খেলতে পারেননি। মুম্বাইয়ের বোলিং শক্তির গভীরতা বোঝাতে জয়ন্ত যাদবের উদাহরণ দেন চোপড়া। ফাইনালে মুম্বাইয়ের প্রধান স্পিনার রাহুল চাহারের জায়গায় মাঠে নেমে দারুণ বল করেন যাদব। ভারতের জাতীয় দলের প্রসঙ্গ তুলে চোপড়া একটি শর্ত দেন, অধিনায়ক রোহিত শর্মা, বুমরা ও হার্দিক মুম্বাই দলে খেললে টি-টোয়েন্টি সংস্করণে ভারতের জাতীয় দল তাদের সঙ্গে পারবে না বলেই মনে করেন তিনি।

চোপড়া ব্যাখ্যা করেন, ‘এই দলের কোনো দুর্বলতা নেই। কোনো সন্দেহ নেই মুম্বাই বিশ্বের সেরা ফ্র্যাঞ্চাইজি দল। ভারত জাতীয় দলের সঙ্গে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেললে এবং রোহিত, হার্দিক ও বুমরা মুম্বাইয়ে খেললে, তারা ভারতকে হারিয়ে দেবে বলেই মনে করি। ভারতীয় দলের সবচেয়ে বড় শক্তি হলো বুমরার বোলিং ও রোহিতের ওপেন করা—তারা তো মুম্বাইয়েই খেলবে। ব্যাটিং গভীরতার কথা ভাবলে ক্রুনাল, হার্দিক ও পোলার্ড—ভারতের চেয়ে তাদের (মুম্বাই) ৫,৬ ও ৭ নম্বরে ভালো খেলোয়াড় আছে।’ লোকেশ রাহুল, শিখর ধাওয়ান ও কোহলিকে নিয়ে গড়া ভারতের টপ অর্ডারের সঙ্গেও মুম্বাই পাল্লা দেবে বলে মনে করেন চোপড়া।

default-image

ভারত জাতীয় দলে তিন সংস্করণের অধিনায়ক কোহলি। যদিও আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর অধিনায়ক হিসেবে এখনো শিরোপার মুখ দেখেননি তিনি। এদিকে মুম্বাইয়ের অধিনায়ক হিসেবে রোহিত একের পর এক সাফল্য তুলে নেওয়ায় দাবি উঠেছে, টি-টোয়েন্টিতে ভারতের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হোক রোহিতকে। চোপড়া মনে করেন, তেমন কিছু হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কিছুদিন আগে ভারতের সাবেক ওপেনার গৌতম গম্ভীর বলেছিলেন, ভারতের দুর্ভাগ্য যে রোহিতকে টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক করা হয়নি। এ নিয়ে গম্ভীরের কাছে একটি প্রশ্ন রেখেছেন চোপড়া, ‘গম্ভীর মনে করেন, রোহিতকে টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক না করাটা ভারতের দুর্ভাগ্য। কারণ আইপিএলে সে সবচেয়ে সফল অধিনায়ক। আমার একটি প্রশ্ন আছে, রোহিতকে যদি বেঙ্গালুরুর নেতৃত্ব দেওয়া হতো, তাহলে মুম্বাই যে পাঁচটি শিরোপা জিতেছে তার মধ্যে বেঙ্গালুরুকে সে দুটি, তিনটি কিংবা চারটি শিরোপা জেতাতে পারত?’

ফিটনেস সমস্যার দোহাই দিয়ে অস্ট্রেলিয়া সফরের জন্য ভারত দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল রোহিতকে। এ নিয়ে অনেক জল ঘোলা হওয়ার পর টেস্ট সিরিজের দলে ডাকা হয় মুম্বাই অধিনায়ককে। যদিও সংক্ষিপ্ত সংস্করণের দুটি সিরিজে ডাকা হয়নি রোহিতকে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0