পান্ডিয়া-জাদেজায় তিন শ পার করেছে ভারত।
পান্ডিয়া-জাদেজায় তিন শ পার করেছে ভারত। ছবি: এএফপি

চোখ ছিল কোহলির ওপরেই। আগের দুই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া আগে ব্যাট করে ভারতকে রান–পাহাড়ে চাপা দিয়েছে। আজ আগে ব্যাট পেয়ে ভারত তেমন কিছু করতে পারে কি না, সেদিকে নজর ছিল।

শেষমেশ সবটুকু আলো কেড়ে নিয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া। আর তাঁকে যোগ্য সংগত দিয়ে স্কোরবোর্ডে ভারতকে সম্মানজনক স্কোর তুলতে সহায়তা করেছেন আরেক অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা। এই দুজনের ব্যাটে চড়ে শেষ দিকের ঝড়ে তিন শ পেরিয়েছে সফরকারীরা। ৫০ ওভার শেষে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ভারত তুলেছে ৩০২ রান।

ধবলধোলাই যাতে না হতে হয়, সে জন্য এ ম্যাচে বেশ কিছু পরিবর্তন এনেছে আগের দুই ম্যাচে হেরে যাওয়া ভারত। ওপেনার মায়াঙ্ক আগারওয়ালের জায়গায় এ ম্যাচে সুযোগ পেয়েছেন শুবমন গিল। দুই ম্যাচে ব্যর্থ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল জায়গা হারিয়েছেন, দলে এসেছেন কুলদীপ যাদব। মোহাম্মদ শামির জায়গায় এসেছেন এবার আইপিএল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে চমক–জাগানিয়া তামিলনাড়ুর পেসার টি নটরঞ্জন। নবদীপ সাইনির জায়গায় আনা হয়েছে শার্দুল ঠাকুরকে।

বিজ্ঞাপন

ভারতের শুরুটা একটু সাবধানীই ছিল। তা সত্ত্বেও নিয়মিত উইকেট হারাতে থাকে তারা। এক প্রান্ত আগলে রাখেন বিরাট কোহলি। ফিফটি তোলার কিছুক্ষণ পরেই পেসার জশ হ্যাজলউডের শিকার হন কোহলি। এ নিয়ে এই সিরিজে তিনবারই হ্যাজলউডের বলে আউট হলেন ভারত অধিনায়ক। ফিফটিকে সেঞ্চুরিতে রূপ না দিতে পারার ব্যর্থতা এ ম্যাচেও দেখা গেল। ৭৮ বলে পাঁচ চারে ৬৩ রান তোলেন কোহলি।

default-image

তবে এর মধ্যেই ব্যক্তিগত ২৩ রানের সময়ে ওয়ানডেতে ১২ হাজার রানের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলেন ভারত অধিনায়ক, ওয়ানডে ইতিহাসে তাঁর চেয়ে কম ইনিংসে ১২ হাজার রান আর কেউ করতে পারেননি। কোহলি যাওয়ার পরেই ইনিংসের হাল ধরেন হার্দিক পান্ডিয়া ও রবীন্দ্র জাদেজা।

এ দুজন একেবারে ইনিংসের শেষ পর্যন্ত ব্যাট করে গেছেন। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ভারতের হয়ে গড়েছেন তৃতীয় সর্বোচ্চ জুটি—১৮ ওভারে জুটিতে আসে ১৫০ রান। দুজনই মোটামুটি টি-টোয়েন্টি মেজাজেই খেলার চেষ্টা করেছেন। শেষ ৬ ওভারে ৮৬ রান তুলে দুজনই বুঝিয়েছেন, দলের প্রয়োজনে উইকেট ধরে খেলতে যেমন পারেন, মারকাটারি ব্যাট চালাতেও পিছপা হন না। শেষের এই ঝড়েই মূলত ৩০০ পেরোয় ভারত।

৭৬ বলে ৭ চার ও ১ ছক্কায় অপরাজিত ৯২ রান তোলেন পান্ডিয়া। ওদিকে তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে যাওয়া জাদেজার সংগ্রহ ৫০ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় ৬৬ রান।

১৯৯১-৯২ অস্ট্রেলিয়া-ভারত সিরিজের পর এই প্রথম এই দুই দলের ওয়ানডে সিরিজে কোনো সেঞ্চুরি করতে পারলেন না ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। ওদিকে না থেকেও যেন ছিলেন রোহিত শর্মা।

বিজ্ঞাপন

এই ম্যাচে ভারতের কারও সেঞ্চুরি না হওয়ার মধ্যে একটা রেকর্ড হয়ে গিয়েছে, যাতে আছে রোহিতের নাম। এ ম্যাচের পর ভারত এই বছর আর কোনো ওয়ানডে খেলছে না, এর অর্থ হলো বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রোহিতের ১১৯ রানের ওই ইনিংসটাই এই বছরে ওয়ানডেতে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সর্বোচ্চ স্কোর হয়ে থাকল। ২০১৩ থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত কোনো বছরেই রোহিত ছাড়া আর কেউ ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর করতে পারেননি।

এই সিরিজে ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক পান্ডিয়া। কোহলির পাশাপাশি সর্বোচ্চ ফিফটিও তিনিই করেছেন। সিরিজে ভারতীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ গড় ও সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোরটাও তাঁর।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে এই প্রতিবেদন লেখার সময়ে ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৫১ রান তুলেছে অস্ট্রেলিয়া।

মন্তব্য করুন