বিজ্ঞাপন

কিছুদিন আগে ভারতীয় ক্রিকেট দলের এক নেট সেশনে কোহলির সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ কথা হয় সঞ্জুর। কোহলি সঞ্জুকে প্রথমেই জিজ্ঞেস করেছিলেন, সঞ্জু কত দিন খেলা চালিয়ে যেতে চাও। সঞ্জু নিজের ইচ্ছার কথা জানানোর পর কোহলি এমন কিছু বলেছিলেন, যেটা প্রথমে সঞ্জুকে অবাক করলেও পরে তাঁর মনে হয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক যা বলেছেন, এর চেয়ে খাঁটি কথা আর হয় না।

সঞ্জুর মুখেই শোনা যাক সে কথা, ‘ আমি তাঁকে ভারতীয় দলের নেট সেশনে পেয়ে ফিটনেস সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেছিলাম। তিনি আমাকে বললেন, তুমি কত দিন খেলবে বলে ঠিক করেছ? বললাম, এই ধরুন আর দশ বছর তো খেলবই। এরপর তিনি আমাকে অবাক করে দিয়ে বললেন, যদি তুমি আরও দশ বছর খেলতে চাও। তাহলে তোমার জীবনের সবকিছু এই দশ বছরকে দিয়ে দাও। দশ বছর পর তুমি তোমার প্রিয় খাবারগুলো খেয়ো। দশ বছর যা যা করতে পারোনি, সেগুলো তখন করো। তুমি তো দশ বছর পর আর ক্রিকেট খেলবে না। তাহলে তুমি এই দশ বছর ক্রিকেটের জন্য জীবনের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য গুলো ত্যাগ করতে পারবে না?’

কোহলির এই কথাই বদলে দিয়েছে সঞ্জুকে আপাদমস্তক, ‘কোহলি ভাইয়ের এ কথাই ক্রিকেটের প্রতি আমার আত্মনিবেদন বদলে দিয়েছে। ঠিকই তো, আমি তো সারা জীবন ক্রিকেট খেলব না। যত দিন খেলব, এই সময়টা না হয় নিজের সবকিছু খেলাটাকে দিই। ফিটনেস ঠিক রাখার স্বার্থে যদি আমাকে আমার প্রিয় জিনিসগুলো বিসর্জনও দিতে হয়, তা-ই সই।’

এবারের আইপিএলে রাজস্থানের দুটি জয়েই সঞ্জুর বড় অবদান। চেন্নাই সুপারকিংসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই ৭৪ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলেছেন। পরের ম্যাচেই কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে ৮৫। তাঁর মেরে খেলার প্রবণতা তো অনেককেই মহেন্দ্র সিং ধোনির ফর্মের তুঙ্গে থাকার সময়গুলোকে মনে করিয়ে দিয়েছে। উইকেটরক্ষক হিসেবেও তিনি খারাপ করছেন না। চেন্নাইয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই ২ স্টাম্পিং আর ২ ক্যাচের নির্ভরতা দিয়েছেন তাঁর দলকে।

২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো ভারতীয় দলে সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। সেটি হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচে ১৯ রান করেছিলেন। নির্বাচকদের মন ভরাতে পারেননি। বাদ পড়ে যান দল থেকে। ২০২০ সালে আবার জাতীয় দলে ফিরে শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলেছেন আরও ৩ ম্যাচ। লঙ্কানদের বিপক্ষে ঘরের মাঠে আর নিউজিল্যান্ড সফরে তাঁর পারফরম্যান্স ছিল খুবই বাজে। তিন ম্যাচে তাঁর সংগ্রহ ১৬ রান। আইপিএলে অবশ্য সঞ্জুর পারফরম্যান্স বেশ ভালো। ৯৬ ম্যাচে ২ হাজার ৩৭৬ রান তাঁর। গড় ২৮.৬৩। ১৩৩.৫৬ স্ট্রাইকরেটে ২টি সেঞ্চুরি আর ১২টি ফিফটির মালিক তিনি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন