default-image

এই তো কিছু দিন আগেই দ্বিপাক্ষিক সিরিজে মুখোমুখি হয়েছে ​এই দুই দল। দুই দলের প্রতিটি খেলোয়াড়ই যেন একে অন্যকে দারুণভাবে চেনে। তবে চেনা-জানার ব্যাপারটায় যে শ্রীলঙ্কার চেয়ে নিউজিল্যান্ড এগিয়ে সেটা বোঝা গেল বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচেই। ক্রাইস্টচার্চের কনকনে হাওয়ায় ণঙ্কান বোলারদের পরীক্ষা নিয়ে কিউইরা চড়েছে রানের পাহাড়েই। টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমেও ব্যাটসম্যানদের মুগ্ধ করা পারফরম্যান্সে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৬ উইকেটে ৩৩১ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে তুলেছে নিউজিল্যান্ড।
কিউই ব্যাটসম্যানদের ব্যাট আজ দারুণভাবেই হেসেছে। তবে কোরি অ্যান্ডারসন, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম আর কেন উইলিয়ামসনের তিনটি ইনিংসকে আলাদা করতেই হচ্ছে। অ্যান্ডারসন মাত্র ৪৫ বলে খেলেছেন ৭৫ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। ম্যাককালামের ৬৫ এসেছে মাত্র ৪৯ বলে আর উইলিয়ামসন তাঁর স্বভাবসুলভ ব্যাটিংয়ে খেলেন ৫৭ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস।
টসে জিতে নিউজিল্যান্ডকে ব্যাটিংয়ে পাঠানো শ্রীলঙ্কাকে বল হাতে অন্যরকম কিছু ঘটিয়ে ফেলার সুযোগটাই দেয়নি নিউজিল্যান্ড। ইনিংসের শুরু থেকেই লঙ্কান বোলিংয়ের ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন দুই কিউই ওপেনার। উদ্বোধনী জুটি থেকে আসে ১১১ রান। এটি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের ২০তম পঞ্চাশোর্ধ উদ্বোধনী জুটি। ইনিংসের অষ্টম ওভারে ম্যাককালালাম মালিঙ্গার এক ওভার থেকে তুলে নেন ২২ রান। ম্যাককালাম আর গাপটিলের উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর লঙ্কানরা ম্যাচে ফেরার সুযোগ তৈরি করলেও তাদের সে সুযোগ দেননি নিউজিল্যান্ডের বাকি ব্যাটসম্যানরা। তৃতীয় উইকেট জুটিতে উইলিয়ামসন ও টেলর যোগ করেন ৫৭ রান। ৫ম উইকেট জুটিতে অ্যান্ডারসন আর গ্র্যান্ট এলিয়ট ৬৫ আর ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে লুক রঙ্কিকে সঙ্গে নিয়ে অ্যান্ডারসন আরও ৭৫ রান যোগ করলে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহের দিকে এগিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড।
লঙ্কান বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল দু’জন ছিলেন সুরাঙ্গা লাকমাল ও জীবন মেন্ডিস। এরা দু’জনেরই দুটি করে উইকেট তুলে নেন। নুয়ান কুলাসেকেরা ও রঙ্গনা হেরাথ ​তুলে নিয়েছেন একটি করে উইকেট। সুত্র: স্টার স্পোর্টস-৪।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন