বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মুমিনুল আজ ম্যাচ শেষে যা বললেন, তার অর্থ প্রথম টেস্টে জয় দলের ওপর তাহলে বাড়তি চাপই তৈরি করে দিয়েছিল, ‘প্রথম টেস্ট জয়ের পর দ্বিতীয় টেস্টটা আমাদের জন্য ছিল খুব চ্যালেঞ্জিং। বিদেশের মাটিতে খেলা পুরোপুরি নির্ভর করে মানসিকতা, ভাবনা—এগুলোর ওপর।’

মুমিনুলের এ কথার মানে বিশ্লেষণ করলে ওই পুরোনো ব্যাপারেই ফিরতে হয়—ক্রাইস্টচার্চে দলের ভাবনাটা ঠিক ছিল না। এই টেস্টে নিউজিল্যান্ড যে বাংলাদেশের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়বে, সেটি জানা থাকার পরও সে অনুযায়ী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারেনি বাংলাদেশ। সবুজ উইকেটের চ্যালেঞ্জটাও নিতে পারেননি দলের ব্যাটসম্যানরা। মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টে যে ঠিক জায়গায় বোলিং করতে পারার সাফল্যটা গায়ে মেখেছিলেন পেসাররা, ক্রাইস্টচার্চে আরও সহায়ক উইকেট পেয়ে, তাঁরাই-বা কী করলেন! প্রথম দিনই বাংলাদেশের ওপর চড়ে বসল নিউজিল্যান্ড। বিশাল রানের পাহাড়ে চাপা দিল। আর বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা তাতেই কাত। একটু লড়াইও করতে পারলেন না তাঁরা।

default-image

বাংলাদেশ অধিনায়কের কথায় সেই মানসিকতা ঠিক রাখতে না পারার আক্ষেপ থাকলেও নিউজিল্যান্ডের মাটি থেকে এই প্রথম সিরিজ না হেরে ফিরছে বাংলাদেশ, এটাই–বা কম কী! মুমিনুল সে কারণেই দলের ওপর নিজের সন্তুষ্টির কথাও জানালেন, ‘আমি আসলে খুবই গর্বিত। বিশেষ করে বিদেশে খেলাটা খুব গর্বের। প্রথম টেস্ট জয়ের পর আমি প্রচণ্ড আনন্দিত ও গর্বিত। এই সিরিজে আমাদের অনেক ভালো ও ইতিবাচক দিক আছে।’

লিটন দাসের প্রশংসা না করে কীভাবে থাকেন একজন অধিনায়ক। বিশেষ করে দলের বাজে অবস্থার মধ্যেই তাঁর ব্যাট যেভাবে কথা বলল, সেটি অনন্যই। মুমিনুল সোজা করলেন লিটনের প্রশংসা, ‘ও যেভাবে খেলল, তাতে মনেই হয়নি খুব কঠিন উইকেটে খেলা হচ্ছে। চমৎকার খেলেছে লিটন।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন