জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে গত এক সপ্তাহ অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ দল।
জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে গত এক সপ্তাহ অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ দল। ছবি: প্রথম আলো

জৈব সুরক্ষা বলয়ে যারা ঢুকবেন, সিরিজ বা টুর্নামেন্ট শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা বের হতে পারবেন না—গত চার মাসে এটিই দেখা গেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অবশ্য এ নিয়মে একটু পরিবর্তন আনছে। হোটেল সোনারগাঁয়ে জৈব সুরক্ষা বলয় গড়েও তিন দিনের জন্য সেটিতে বিরতি দেওয়া হচ্ছে। এই বিরতিতে খেলোয়াড়েরা চলে যাচ্ছেন যার যার বাসায়। ৩০ সেপ্টেম্বর আবার তাঁরা ঢুকবেন সুরক্ষা বলয়ে।

default-image
বিজ্ঞাপন

সুরক্ষা বলয়ের বন্দিজীবনে টানা ছয় দিন থেকে বেশ হাঁপিয়ে উঠেছিলেন মুশফিক-তামিমেরা। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) এখনো নতুন স্বাস্থ্য নির্দেশিকা না পাঠানোয় ২৭ সেপ্টেম্বর অর্থাৎ, আগামীকালের শ্রীলঙ্কাযাত্রার পরিকল্পনা বাতিল করে ক্রিকেটারদের তিন দিনের ছুটি দিয়েছে বিসিবি। তাদের আশা, আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে নতুন স্বাস্থ্য নির্দেশিকা পাঠাবে এসএলসি। এই নির্দেশিকায় যদি নিজেদের চাওয়াগুলো পূরণ হয়, সে ক্ষেত্রে বিসিবির পরিকল্পনা ৭-১০ অক্টোবরের মধ্যে শ্রীলঙ্কায় যাওয়া। সে ক্ষেত্রে ২৯ সেপ্টেম্বর আবারও কোভিড পরীক্ষা করিয়ে ৩০ অক্টোবরে সুরক্ষা বলয়ে ঢুকবেন নেগেটিভ হওয়া ক্রিকেটারেরা।

default-image
বিজ্ঞাপন

খেলোয়াড়দের মানসিক স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করেই জৈব সুরক্ষা বলয়ে বিরতি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিসিবির সিনিয়র চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী, ‘ক্রিকেটারদের মানসিক স্বাস্থ্যর কথা চিন্তা করে তিন দিনের ছুটি দেওয়া হচ্ছে। ওদের আমরা কিছু নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছি। ফের বলয় তৈরি করতে হলে আবার করোনা পরীক্ষা করিয়ে ক্রিকেটারদের হোটেলে তোলা হবে।’

default-image
বিজ্ঞাপন

গত এক সপ্তাহে বিচ্ছিন্ন থেকে যেভাবে প্রস্তুতি নিয়েছে বাংলাদেশ দল, সেটিতে অনেক ইতিবাচক দিক খুঁজে পেয়েছেন তরুণ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী, ‘বায়ো বাবলের মধ্যে আমরা অনুশীলন করছি, একটা নতুন অভিজ্ঞতা। অভিজ্ঞতাটা খারাপ হয়নি। আমরা সত্যিকার অর্থেই আতঙ্কিত ছিলাম যে বাইরে গেলে কী হবে, আক্রান্ত হয়ে যাব কি না। এই ভয়টা এখন মন থেকে দূর হয়েছে। এটির মধ্যে ঢুকলে আমরা নিরাপদ থাকব, এই চিন্তা মাথায় রেখে সবাই সুন্দরভাবে অনুশীলন করেছি।’

default-image
মন্তব্য পড়ুন 0