বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে এমসিসি বলেছে, এরই মাঝে ক্রিকেটের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ‘ব্যাটার’-এর ব্যবহারের প্রতিফলন এই আইনের পরিবর্তন। ক্রিকেটের আইনে ‘বোলার’ ও ‘ফিল্ডার’ শব্দের সঙ্গে ‘ব্যাটার’ ব্যবহার করাটা একটা স্বাভাবিক উন্নতির ফল, বিবৃতিতে এমন উল্লেখ করেছে এমসিসি।

লিঙ্গনিরপেক্ষ এ শব্দের ব্যবহার ক্রিকেটের সর্বজনীন সত্তা ফিরিয়ে দিতে সহায়তা করবে বলেও মনে করে এমসিসি, এই খেলার প্রতি এমসিসির যে বৈশ্বিক দায়িত্ব, এই আইন সংশোধনী সেটারই গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এরই মাঝে এ ক্ষেত্রে যেসব কাজ করা হয়েছে, সেটারই পরের ধাপ এটা।

এর আগে ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো ঘোষণা দিয়েছিল, ‘ব্যাটসম্যান’-এর পরিবর্তে ‘ব্যাটার’ শব্দ ব্যবহার করবে তারা। এমসিসি এগিয়ে আসতে বলেছে অন্যদেরও, ‘বেশ কয়েকটা বোর্ড এবং সংবাদ সংস্থা এরই মাঝে তাদের প্লেয়িং কন্ডিশন ও প্রতিবেদনে “ব্যাটার” ব্যবহার করছে। আজ আইনের এ সংশোধনীর পর আমরা অন্যদেরও এ পরিভাষা ব্যবহার করতে অনুরোধ করছি।’

বিবৃতিতে সম্প্রতি মেয়েদের ক্রিকেটের উন্নতির কথাও উল্লেখ করেছে এমসিসি, ‘২০১৭ সালে লর্ডসে গ্যালারিভর্তি দর্শকের সামনে ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ফাইনালে জিতেছিল ইংল্যান্ড।

default-image

তিন বছর পর মেলবোর্নে ভারতের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার জেতা টি-টোয়েন্টি ফাইনালে দেখা গিয়েছিল রেকর্ডসংখ্যক দর্শক। এ বছর মেয়েদের ঘরোয়া ম্যাচে দর্শকের সংখ্যার রেকর্ড ভেঙেছে। লর্ডসে সাউদার্ন ব্রেভের বিপক্ষে ওভাল ইনভিনসিবলসের ম্যাচে ছিলেন ১৭১১৬ জন দর্শক।’

এমসিসির সহকারী সচিব জেমি কক্স বলেছেন, ‘সবার জন্য খেলা—এমসিসি এ নীতিতে বিশ্বাস করে। আধুনিক সময় পরিবর্তনকেও স্বাগত জানায়। ক্রিকেটীয় পরিভাষায় “ব্যাটার” শব্দের ব্যবহার স্বাভাবিক প্রক্রিয়ারই অংশ। এটাকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়ার উপযুক্ত সময় এখনই। ক্রিকেট আইনের অভিভাবক হিসেবে আজ এ পরিবর্তনের ঘোষণা দিতে পেরে খুশি আমরা।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন