default-image

তামিম ইকবাল যখন ৮২ রানে দিনেশ চান্ডিমালকে ক্যাচ দিয়ে ফিরছেন। তখন টেলিভিশন ক্যামেরা ধরল কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহেকে। খুবই বিরক্ত তিনি। এমন দুর্দান্ত এক ইনিংসের এমন সমাপ্তি! হাথুরু হয়তো ভাবছিলেন সেঞ্চুরিটি অন্তত করে আসতে পারত তাঁর শিষ্য। তামিমের ইনিংসটি সেঞ্চুরি ছাড়ালেই তো ম্যাচটা অনেক সহজ হয়ে যায়। শততম টেস্ট শেষ পর্যন্ত স্নায়ুর যে পরীক্ষা নিল, তামিমের ইনিংসটি বড় হলেই তো সেটি আর হয় না।
শেষ পর্যন্ত তামিমের ইনিংসটিই কলম্বো টেস্টের ভাগ্য গড়ে দিল। দুর্দান্ত ইনিংসে ম্যাচ সেরার পুরস্কারটাও উঠল তাঁর হাতে। অনন্য-অসাধারণ এই জয়ের পর তামিম নিজেই জানিয়েছেন গল টেস্টের অপ্রত্যাশিত ব্যর্থতাই বদলে দিয়েছে গোটা দলকে। তাঁর মতে, দুর্দান্ত এই জয়ের গল্পটার শুরু সমুদ্র পাড়ের শহর গল থেকেই।
গল টেস্টটা ড্র করার ভালো সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। কিন্তু সেই সুযোগ কাজে লাগানো যায়নি শেষ দিনে অভাবনীয় ব্যাটিং-ব্যর্থতায়। প্রথম সেশনেই হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ে দলের ব্যাটিং লাইনআপ। সেই হারের দিনই কলম্বোয় ঘুরে দাঁড়ানোর মন্ত্রটা জেনে নিয়েছিল গোটা দল, ‘আমার মনে হয় এই দুর্দান্ত এই জয়ের শুরুটা হয়েছিল গলেই। ম্যাচ হারার পর আমরা সবাই এক সঙ্গে বসে আলোচনা করেছিলাম, আমাদের কী করা উচিত। কোচের সঙ্গেও আমাদের দীর্ঘক্ষণ কথা হয়েছিল। আমার মনে হয় ওটার পরেই দলের মানসিকতায় ব্যাপক পরিবর্তন। এই ম্যাচের আগেও আমরা সবাই মিলে বসেছিলাম। এসবই আমাদের বদলে দিয়েছে।’
একই সঙ্গে তামিম কৃতিত্ব দিচ্ছেন দলের সব খেলোয়াড়কেই, ‘ম্যাচে দুর্দান্ত করেছে বোলাররা। এটা ম্যাচ বদলে দিয়েছে। ফিল্ডাররা বোলারদের অনুপ্রাণিত করেছে। তারা যেভাবে ফিল্ডিং করেছে, বোলারদের তারা যেভাবে অনুপ্রাণিত করেছে—সবই ম্যাচ বদলে দিয়েছে।’
১৯১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দাঁড়িয়ে টুক টুক করার কোনো কারণ দেখেননি তামিম, ‘এ ধরনের লক্ষ্য ছুঁতে একটু আক্রমণাত্মক হতেই হয়। যেখানে বোলাররা সুবিধা পাচ্ছে, সেখানে আপনি কেবল দাঁড়িয়ে ঠেকিয়ে যেতে পারবেন না। উইকেটে আমি আর সাব্বির কথা বলেছি। ইতিবাচক ব্যাটিং করার কথাই ভেবেছি। তবে সিদ্ধান্ত ছিল প্রথমে কিছু দ্রুত রান করা, তারপর পরিস্থিতি বুঝে পরের পদক্ষেপ নেওয়া।’
কোচ হাথুরুর প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা তাঁর। নিজের ইনিংসের সময় ড্রেসিং রুম থেকে কোচের দিক নির্দেশনাগুলো প্রেরণা হয়েই ছিল তাঁর জন্য, ‘কোচ সব সময়ই আমাদের উৎসাহিত করে যান। তিনি আমাদের সব সময় ইতিবাচক হতে বলেন।’
ইতিবাচক হয়েই তো বাংলাদেশ পেল ঐতিহাসিক এই জয়। সূত্র: টেন ক্রিকেট।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন