default-image

একজন বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে সমীহ-জাগানিয়া বোলার। আরেকজন সবচেয়ে বিপজ্জনক ব্যাটসম্যান। প্রথমজনকে বল হাতে ছুটে আসতে দেখলে বেড়ে যায় অনেক ব্যাটসম্যানের বুকের কাঁপুনি। পরেরজনকে ব্যাট হাতে স্ট্রাইকে দেখলে ভয়ে লাইন-লেংথ ভুলে যান অনেক বোলার। এই দুজন যদি হন পরস্পরের মুখোমুখি? এর চেয়ে রোমাঞ্চকর কিছু নিশ্চয়ই আর হয় না! কাল সেই রোমাঞ্চে স্নান করার দিন। সিডনিতে মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্যারিবিয়ানদের ইনিংস শুরু করবেন ক্রিস গেইল, প্রোটিয়াদের নতুন বল হাতে ডেল স্টেইন। মুখোমুখি দুদলের দুই মহাতারকা। সম্মুখ সমরে ব্যাটিং-বোলিংয়ের দুই নায়ক!
এখন পর্যন্ত মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে গেইল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৬ বারের সাক্ষাতে ৫ বার গেইলকে তুলে নিতে পেরেছেন স্টেইন। ওয়ানডের হিসাবটা আরও একতরফা। ৮ ম্যাচে মাত্র একবারই গেইলকে আউট করতে পেরেছেন স্টেইন। তবে ওই একমাত্র স্মৃতিটা এখনো বেশ তরতাজা। গত মাসেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম ওয়ানডেতে গেইলের কাছে দুটো চার হজম করার পর আউট করতে পেরেছিলেন স্টেইন। ওই ম্যাচে সহজেই জিতেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কালও হয়তো ম্যাচের ফলে বড় ভূমিকা রাখবে এই দুজনের মুখোমুখি লড়াইয়ের ফল!
মুখোমুখি লড়াইয়েই শুধু এগিয়ে নন, কাল আরও কিছু ব্যাপার এগিয়ে রাখবে গেইলকে। প্রথমত, উইকেট। সিডনির উইকেট এমনিতেই ব্যাটিংয়ের জন্য ভালো, এই মৌসুমে তো সেটি রীতিমতো ব্যাটিং-স্বর্গ। হ্যাঁ, অস্ট্রেলিয়ান উইকেটের সহজাত বাউন্স তো থাকবেই। তবে সমান বাউন্স বলে ব্যাটিংয়ের জন্য আরও ভালো। গেইল এগিয়ে আত্মবিশ্বাসেও। বিশ্বকাপে ডাবল সেঞ্চুরির কীর্তির সুবাস তো এখনো তরতাজা! স্টেইন সেখানে এখন পর্যন্ত ভীষণ বিবর্ণ। দুই ম্যাচে পেয়েছেন দুটি উইকেটে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৯ ওভারে রান গুনেছেন ৬৪, ভারতের বিপক্ষে ১০ ওভারে ৫৫! গেইলের গত ম্যাচটির আগে অবশ্য পাশাপাশিই ছিলেন দুজন। প্রথম দুই ম্যাচে খুঁজে পাওয়া যায়নি গেইলকেও। কিন্তু ফর্মে ফিরেছেন ইতিহাস গড়ে। সেটাই হতে পারে স্টেইনের অনুপ্রেরণা! তাঁর মানের বোলার তো আর দিনের পর দিন নিজের ছায়া হতে থাকতে পারেন না! আর মুখোমুখি লড়াইয়েও আগের ম্যাচগুলোর ইতিহাস খুব কাজে দেবে না। চার-ছয় হজম করলেও বল তো ফিরে আসবে বোলারের হাতেই। আউট করতে লাগে স্রেফ একটি বল!
স্টেইন ভালোই জানেন, ক্যারিবীয়দের হারাতে হলে উঠতে দেওয়া যাবে না গেইল-ঝড়, কিংবা থামাতে হবে দ্রুত। গেইলও জানেন, স্টেইন-গান ভোঁতা করে দিতে পারলে চোট লাগে প্রোটিয়া আত্মবিশ্বাসে।
তো? রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের মঞ্চ প্রস্তুত!

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন