পাল্লেকেলের উইকেট টেস্টে পুরো পাঁচদিনই ব্যাটসম্যানদের পক্ষে ছিল।
পাল্লেকেলের উইকেট টেস্টে পুরো পাঁচদিনই ব্যাটসম্যানদের পক্ষে ছিল।ছবি: এএফপি

উপমহাদেশে টেস্ট ক্রিকেটের উইকেট কেমন হয়? সহজ কথায়, প্রথম দুটো দিন অন্তত উইকেট জমাট থাকে। ফাটল ধরে না। তাতে ব্যাটিংটা খুব কঠিন হয়ে ওঠে না।

উইকেটে ঘাস থাকলে কিংবা একটু আর্দ্রতা থাকলে পেসাররা ভালো সহায়তা পান। মোট কথা, দুপক্ষেরই ভালো সুযোগ থাকে। পরের তিন দিনে খুব স্বাভাবিকভাবেই উইকেটে ধীরে ধীরে ফাটলের সৃষ্টি হয়। স্পিনাররা সহায়তা পান। তখন আবার ব্যাটসম্যানদের পায়ের কাজের পরীক্ষা দিতে হয়।

উইকেট শক্ত থাকলে চতুর্থ কিংবা পঞ্চম দিনে পেসাররাও সুবিধা পান। প্রশ্ন হলো, পাল্লেকেলেতে শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ প্রথম টেস্টের পাঁচ দিনে এমন কোনো নজির দেখা গেছে?

বিজ্ঞাপন

সোজা কথায়, না। পাঁচ দিন খেলা মাঠে গড়িয়েছে। এই পাঁচ দিনেই পুরো সুবিধা পেয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। এমনকি চতুর্থ কিংবা পঞ্চম দিনে গিয়েও প্রত্যাশিত বাঁক পাননি স্পিনাররা। ঘাস থাকায় শেষ দুই দিনেও ভাঙেনি উইকেট।

তাই অমসৃণ জায়গায় বল ফেলার সুবিধাটুকুও পাননি বোলাররা। পাল্লেকেলের এই উইকেটের সমালোচনা হয়েছে ম্যাচের শুরু থেকেই। দুই দলের অধিনায়কও ম্যাচ শেষে সাফ জানিয়ে দেন, এমন উইকেট তাঁরা চাননি।

default-image

এবার আইসিসিও জানিয়ে দিল, পাল্লেকেলেতে প্রথম টেস্টের উইকেট ছিল ‘গড়পড়তা মানের নিচে’। আজ প্রেস রিলিজে আইসিসি তা নিশ্চিত করেছে। একটি ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়েছে পাল্লেকেলে স্টেডিয়ামের খতিয়ানে।

আইসিসির অভিজ্ঞ ম্যাচ রেফারি রঞ্জন মাদুগালে ছিলেন সিরিজের এই প্রথম টেস্টের ম্যাচ রেফারি। উইকেট নিয়ে তাঁর পর্যবেক্ষণ, ‘পাঁচ দিনে উইকেটের চরিত্র খুব একটা পাল্টায়নি। খেলা এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে ব্যাটে-বলের ভারসাম্যে কোনো পরিবর্তন আসেনি। গোটা সময়ই ব্যাটিংবান্ধব ছিল উইকেট। মাত্র ১৭ উইকেট হারানোর বিনিময়ে ১২৮৯ রান উঠেছে, যেখানে উইকেটপ্রতি গড় রান ৭৫.৮২। এটা খুব বেশি। আইসিসির বিধি অনুযায়ী, ‘এই উইকেট আমার কাছে গড়পড়তা মানেরও নিচে।’

কোনো মাঠের উইকেট গড়পড়তা মানের নিচে হলে একটি ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়। নিম্নমানের হলে তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট এবং অনুপযুক্ত হলে পাঁচটি ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়।

তবে মাঠের আউটফিল্ডের ক্ষেত্রে ভিন্ন হিসাব। গড়পড়তা মানের নিচে আউটফিল্ড হলে কোনো ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয় না। তবে নিম্নমানের আউটফিল্ড হলে দুটি ডিমেরিট পয়েন্ট এবং অনুপযুক্ত হলে পাঁচটি ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়।

default-image

এই ডিমেরিট পয়েন্ট পাঁচ বছর পর্যন্ত কার্যকর থাকে। কোনো ভেন্যু ৫টি ডিমেরিট পয়েন্ট পেলে ১২ মাসের জন্য আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন থেকে নিষিদ্ধ হয়। ১০ ডিমেরিট পয়েন্ট পেলে ২৪ মাস নিষিদ্ধ হয়।

কাল থেকে পাল্লেকেলেতে শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় টেস্টে। এ ম্যাচে অবশ্য ভিন্ন উইকেটের ইঙ্গিত দিয়েছেন শ্রীলঙ্কা অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন