বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইনস্টাগ্রামে দীর্ঘ এক পোস্টের শুরুতে আয়েশা লিখেছেন, ‘দ্বিতীয়বারের মতো বিচ্ছেদ ঘটার আগে জানতাম (ডিভোর্স) শব্দটা নোংরা।’

অপেশাদার বক্সার আয়েশা অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে থাকেন। শিখরের জীবনে আসার আগে সেখানে অস্ট্রেলিয়ান এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়েছিল। সেই ঘরে দুটি কন্যা সন্তানও আছে। সেখানে বিচ্ছেদের পর শিখরের সঙ্গে জীবনের জুটি বেঁধেছিলেন আয়েশা। প্রায় ৯ বছর পর এই ঘরও ভাঙল।

৪৬ বছর বয়সী আয়েশা ইনস্টাগ্রামে সেই পোস্টে আরও লিখেছেন, ‘কিছু শব্দ কত শক্তিশালী এবং প্রাসঙ্গিক হতে পারে। প্রথমবার বিচ্ছেদের সময় খুব ভীত ছিলাম। মনে হচ্ছিল আমি ব্যর্থ হয়েছি এবং ভুল কিছু করেছি সে সময়। নিজেকে স্বার্থপর মনে হচ্ছিল। এখন ভেবে দেখুন, দ্বিতীয়বার একই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হলো।

দ্বিতীয়বার বিচ্ছেদে আরও বেশি ভয় লেগেছে। প্রথমবারের সব অনুভূতি ফিরে এসেছে। ভয়, ব্যর্থতা, হতাশা এসব আর কি। তবে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেওয়া শেষে ভেবে দেখলাম আমি ঠিক আছি। নিজেকে আরও বেশি ক্ষমতাবান মনে হচ্ছে।’

default-image

২০১৪ সালে শিখর-আয়েশার ঘর আলো করে জোরাভার জন্ম নেন। আয়েশার বাবা ভারতীয় এবং মা ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত। আয়েশার জন্মের পর তাঁর পরিবার অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমায়। তখন থেকেই তিনি মেলবোর্নে বসবাস করছিলেন। বিচ্ছেদ নিয়ে ধাওয়ানের কোনো মন্তব্য পায়নি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

আইপিএল খেলতে এখন দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতে রয়েছেন বাঁ হাতি এই ওপেনার। ভারতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে ডাক পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন