এগিয়ে থেকেই দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ।
এগিয়ে থেকেই দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ।ছবি: প্রথম আলো

ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাফেট দিনের শেষে দাঁড়িয়ে রইলেন বাংলাদেশের সামনে দেয়াল হয়ে। ৮১ বলে ৪৯ রান করে অপরাজিত ব্রাফেটের সঙ্গে রইলেন এনক্রুমা বোনার। এই দুই ক্যারিবীয় মিলে ৫১ রানের জুটি গড়ে দলকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করলেন। বাংলাদেশের ৪৩০ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ২৪ রানে ২ উইকেট হারানো ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেই জুটিতেই দিনের বাকি অংশ কাটিয়ে দিয়েছে নিরাপদেই। ৭৫ রানে দিন শেষ করেছে সফরকারীরা। ৩৫৫ রানে পিছিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বাংলাদেশের পক্ষে আঘাত হেনেছেন মোস্তাফিজুর রহমানই। চার স্পিনার নিয়ে সাজানো একাদশ বাংলাদেশের। কিন্তু আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ইনিংসের শুরুতে ক্যারিবীয় ব্যাটিং লাইনআপকে কাঁপালেন একমাত্র পেসার মোস্তাফিজই।

বিজ্ঞাপন
default-image

দলীয় ১১ রানের মাথায় মোস্তাফিজের বলে এলবিডব্লু হয়ে ফেরেন ওপেনার জন ক্যাম্পবেল। যদিও আম্পায়ার শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদ আঙুল তোলেননি। তবে রিভিউ নিয়ে বাংলাদেশ সফল হয়। মোস্তাফিজের বলটি ছিল লেংথ বল। অফ স্টাম্পের বাইরের বলটি ভেতরে ঢুকছিল। ক্যাম্পবেল ফ্লিক করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেটি গিয়ে আঘাত করে তাঁর প্যাডে। রিভিউয়ে দেখা গেছে, বলটি মিডল আর লেগ স্টাম্পেই আঘাত করত।

পরের বলেই তিনে নামা শেন মোজলিকে তুলে নিতে পারতেন মোস্তাফিজ। তাঁর এলবিডব্লুর আবেদনে মাঠের আম্পায়ার সাড়াও দিয়েছিলেন। কিন্তু রিভিউ নিয়ে সে যাত্রায় বেঁচে যান মোজলি। পরে আর বাঁচতে পারেননি। তাঁর বলে সেই এলবিডব্লুর শিকারই হতে হয় মোজলিকে। রিভিউ নিয়ে এবার আর পার পাননি মোজলি। উল্টো একটি রিভিউ নষ্ট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের। এর আগের বলেই আরেক এলবিডব্লুর আবেদনে রিভিউ নষ্ট হয়েছে বাংলাদেশের।

default-image

২৪ রানে ২ উইকেট হারানোর পর মনে হচ্ছিল, দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে আরও দু–একটি উইকেট বাংলাদেশ তুলে নিতে পারবে। উইকেট পাওয়ার পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু অধিনায়ক ব্রাফেট আর বোনার মিলে বাকি সময়টা পার করে দেন। ব্রাফেটের ৪৯ রানে বাউন্ডারি ছিল ৭টি। বোনার ৫৮ বলে ২টি বাউন্ডারিতে করেন ১৭ রান।

এক প্রান্ত থেকে মোস্তাফিজ ও অন্য প্রান্ত থেকে সাকিব আল হাসানকে দিয়ে বোলিং শুরু করিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। দশম ওভারে বোলিংয়ে আসেন মিরাজ। সাকিবের জায়গায় তাঁকে বোলিংয়ে আনা হয়। মোস্তাফিজ ৮ ওভার বল করে ২ মেডেনে ১৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। সাকিব ৬ ওভারে দিয়েছেন ১৬। মিরাজ, তাইজুল আর নাঈম হাত ঘুরিয়ে দেখে নিয়েছেন উইকেটের অবস্থা।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন