পাকিস্তানি স্পিনাররা গুঁড়িয়ে দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে।
পাকিস্তানি স্পিনাররা গুঁড়িয়ে দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে।ছবি: এএফপি

করাচি টেস্টে কাল তৃতীয় দিনে শেষ বিকেলে ঘূর্ণি-ঝড় তুলেছিলেন ইয়াসির শাহ ও নোমান আলী। তখনই আন্দাজ করা গিয়েছিল, আজ চতুর্থ দিনের খেলায় কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। সেই পরীক্ষায় পাশ করতে পারেনি সফরকারী দল। ৪ উইকেটে ১৮৭ রানে তৃতীয় দিন শেষ করা দক্ষিণ আফ্রিকা আজ ৫৮ রান তুলতে হারিয়েছে বাকি ৬ উইকেট। নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে আজ ২৪৫ রানে অলআউট হয়ে গেছে প্রোটিয়ারা। এতে জয়ের জন্য মাত্র ৮৮ রানের লক্ষ্য পেল পাকিস্তান।

দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক কুইন্টন ডি কক ও কেশব মহারাজ কাল অপরাজিত থেকে দিনের খেলা শেষ করেছিলেন। আজ মাত্র ২৫.৩ ওভার টিকেছে তাদের ইনিংস। চতুর্থ দিনের প্রথম বলেই স্পিনার কেশবকে তুলে নিয়ে পাকিস্তানকে দুর্দান্ত শুরু এনে দেন পেসার হাসান আলী। পরের গল্পটা স্পিনারদের। বাকি ৫ উইকেট নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নেন ইয়াসির ও নোমান। আজ চতুর্থ দিনেই ৪ উইকেট নেন বাঁ হাতি স্পিনার নোমান। প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় ইনিংসে এ দুই স্পিনার মিলে নিয়েছেন ৯ উইকেট।

৩৪ বছর ১১১ দিনে এই টেস্টে অভিষিক্ত নোমান ৩৫ রানে নেন ৫ উইকেট। টেস্ট অভিষেকে চতুর্থ সর্বোচ্চ বয়স্ক স্পিনার হিসেবে ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার নজির গড়লেন নোমান। পেসার ও স্পিনার মিলিয়ে এ তালিকায় তিনি সপ্তম। ১২তম পাকিস্তানি বোলার হিসেবে টেস্ট অভিষেকে ৫ উইকেট নিলেন তিনি। লেগ স্পিনার ইয়াসির ৭৯ রানে নেন ৪ উইকেট। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত টেস্টের চতুর্থ ও নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে পাকিস্তান। বিনা উইকেটে ৫ রান তুলেছে তারা।

default-image

কাল শেষ বিকেলের মতো আজও পাকিস্তানের দুই স্পিনারের সামনে দাঁড়াতে পারেননি দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা। সিলি পয়েন্ট ও শর্ট লেগে ফিল্ডার রেখে বল করেছেন দুই স্পিনার। অধিনায়ক ডি কককে (২) শর্ট লেগে আবিদ আলীর ক্যাচে পরিণত করেন ইয়াসির। টেম্বা বাভুমা (৪০) ছাড়া আর কেউ প্রোটিয়াদের হয়ে সেভাবে দাঁড়াতে পারেননি। জর্জ লিন্ডের সঙ্গে সপ্তম উইকেটে ৪২ রানের জুটি গড়ে লড়াই গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিলেন বাভুমা। কিন্তু অন্য পাশ থেকে ফেরার মিছিল শুরু হওয়ায় বৃথ যায় বাভুমার লড়াই। শেষ উইকেট হিসেবে নোমানের ঘূর্ণিতে এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়ে আউট হন বাভুমা।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন