লড়াইয়ের উপলক্ষ পেলেই যেন জ্বলে ওঠেন কোহলি।
লড়াইয়ের উপলক্ষ পেলেই যেন জ্বলে ওঠেন কোহলি। ফাইল ছবি: রয়টার্স

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলার জন্য ভারত এরই মধ্যে চলে গেছে সিডনিতে। সিরিজ শুরু হতে এখনো দুই সপ্তাহ বাকি। আর টেস্ট সিরিজ শুরু হতে ডিসেম্বরের শেষ ভাগ চলে আসবে। তাতে কী? সিরিজটা যখন ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে, তখন কথার লড়াই শুরু হতে এত দিন ক্ষণ মানতে হয় না। আগামী ১৭ ডিসেম্বর ভারতের বিপক্ষে অ্যাডিলেডে টেস্ট খেলতে নামবে স্বাগতিক দল। তার এক মাস আগেই সাদা পোশাকের অধিনায়ক টিম পেইন প্রতিপক্ষের সবচেয়ে বড় অস্ত্র নিয়ে নিজেদের মনোভাবটা জানিয়ে দিলেন।

কোহলি সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়া কী ধারণা পোষণ করে, সেটা অবশ্য গোপন কিছু নয়। বরাবরই শক্তের ভক্ত অস্ট্রেলিয়ানরা। তাদের মাঠে গিয়ে চোখে চোখ রেখে লড়তে জানাদের বরাবরই সম্মান দিয়ে এসেছে তারা। আর বিশ্ব ক্রিকেটে বর্তমানে এমন আচরণের দিক থেকে কোহলিকে টেক্কা দেওয়া খুব কঠিন। লড়াকু আচরণে অস্ট্রেলিয়ানদের টেক্কা দিতে পারেন বলে ঘৃণামিশ্রিত সম্মান আদায় করে নেন ভারত অধিনায়ক। কোহলি প্রসঙ্গে তাই এককথায় কিছু বলতে পারেননি পেইন।

বিজ্ঞাপন
default-image

২০১৮-১৯ মৌসুমেও ভারতকে আতিথ্য দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতে সেবার ইতিহাসে নাম লিখিয়েছেন কোহলি। এমন তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রসঙ্গে পেইনের সোজাসাপটা মন্তব্য, ‘বিরাটের ব্যাপারে, ব্যাপারটা একটু মজার। আমরা সবাই ওকে ঘৃণা করতে ভালোবাসি কিন্তু ক্রিকেটভক্ত হিসেবে ওর ব্যাটিং দেখতে ভালোবাসি। এমন সব ক্ষেত্রে সে আসলেই অভিনব এক অবস্থার জন্ম দেয়। ওকে ব্যাট করতে দেখতে পছন্দ করি আমরা কিন্তু ও খুব বেশি রান করুক, এটা পছন্দ না আমাদের।’

গত সিরিজে স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার ছিলেন না অস্ট্রেলিয়া দলে। সেবার কোহলির বিপক্ষে নেমে মাঠের লড়াইয়ে পারেননি পেইন। কিন্তু কথার লড়াইয়ে একবিন্দু ছাড় দেননি। বেশ কয়েকবার দুজনের মধ্যে লেগে গিয়েছিল। পার্থে দ্বিতীয় টেস্টে পেইনের ব্যাটিংয়ের সময় দুজনের লড়াইটা ছিল দেখার মতো। অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়কের চোখে লড়াইটা ভারতের সঙ্গে বলে এত ঝাঁজ থাকে, ‘অস্ট্রেলিয়া ও ভারত, এটা খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক সিরিজ। সে খুবই লড়াকু একজন মানুষ, আমিও তাই। হ্যাঁ, তাই এমন অনেকবারই হয়েছে যখন আমাদের মধ্যে তর্ক হয়েছে, তবে এর পেছনে আমরা দুজন যে অধিনায়ক—এ পরিচয় কোনো প্রভাব ফেলেনি। সেটা যে কারও সঙ্গে লাগতে পারত আমার। সাধারণত প্রতিপক্ষের সেরা খেলোয়াড়ের বিপক্ষেই এমনটা করতে চাইবেন। আর বিশ্বের সেরারা যখন খেলতে নামে তখন তীব্রতা বাড়বেই।’

default-image

এবার অবশ্য কোহলির সঙ্গে খুব বেশি লড়াই করতে পারবেন না পেইন। সিরিজের প্রথম ম্যাচেই শুধু পাবেন তাঁকে। দিবারাত্রির সে টেস্ট শেষেই দেশে ফিরবেন ভারত অধিনায়ক। সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য পিতৃত্বকালীন ছুটি চেয়ে নিয়েছেন বোর্ডের কাছ থেকে। সিরিজ নিয়ে পেইনের আগ্রহে সেটা একবিন্দু ছাপ ফেলছে না, ‘সত্যি বলছি, আমি সবকিছুর অপেক্ষাতেই আছি (কথার লড়াইয়েরও)। এটা অনেক বিশাল এক সিরিজ। হ্যাঁ ভিন্ন দল ছিল, তবু ওরা আমাদের গতবার হারিয়েছে। একজন খেলোয়াড় ও দল হিসেবে আপনি সব সময় সেরাদের বিপক্ষেই নিজেকে পরখ করতে চাইবেন।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0