বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

দুটি টেস্টেই শ্রীলঙ্কা দলে ছিলেন দলটির বর্তমান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই করুনারত্নের ভবিষ্যদ্বাণী—এবারও সাগরিকা স্টেডিয়াম ভাসবে রানের বন্যায়। স্বাভাবিকভাবেই দুই দলের বোলারদের জন্য চট্টগ্রাম কঠিন পরীক্ষাই নেবে।

আজ চট্টগ্রাম টেস্ট-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বলছিলেন, ‘এই কন্ডিশন বোলারদের জন্য সহজ নয়। বোলারদের এখানে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এখানকার উইকেট বোলারদের কিছুই দেবে না। কিন্তু যদি মাথা খাটিয়ে বোলিং করা যায়। সে ক্ষেত্রে উইকেট মিলতে পারে।’

default-image

তবে সেটা ২০ উইকেট নেওয়ার জন্য যথেষ্ট হবে কি না, সেটি জোর গলায় বলতে পারলেন না দিমুথ নিজেও, ‘আজ দেখে মনে হয়েছে উইকেট খুবই ফ্ল্যাট। বোলারদের জন্য তেমন কিছুই নেই। যেটা বললাম, আমাদের ২০ উইকেট নিতে হবে মাথা খাটিয়ে বোলিং করতে হবে। ব্যতিক্রম কিছু ভাবতে হবে। আমাদের পরিকল্পনাটাও সে রকমই।’

শ্রীলঙ্কা দলের পরিকল্পনার বড় অংশ জুড়ে থাকবেন দলটির নবনিযুক্ত সহকারী কোচ নাভিদ নেওয়াজ। তিনি ২০২০ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের শিরোপাজয়ী দলের প্রধান কোচ ছিলেন। বাংলাদেশের প্রতিটি টেস্ট ভেন্যুর খুঁটিনাটি তত্ত্ব নেওয়াজের জানা। আর কৌশলগত দিক থেকে নেওয়াজের মস্তিষ্ক বরাবরই তুখোড়।

এবার নেওয়াজের ক্রিকেট জ্ঞান কাজে লাগিয়ে ভালো করার আশা দলটির অধিনায়কের। তিনি বলছিলেন, ‘তাঁর থাকাটা আমাদের জন্য বিরাট সুবিধার ব্যাপার। নেওয়াজের এখানে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে। কন্ডিশনটা তাঁর খুবই ভালো চেনা। আমরা তাঁর কাছ থেকে অনেক কিছু জানতে পারছি। তবে এটাই সব নয়। আমাদের মাঠে ভালো খেলতে হবে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন