বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এক সময় দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলেছেন। খেলেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলেও। ১৯৮৫ সালে তিনি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি ম্যাচ খেলেছিলেন। ১৯৮৪-৮৫ মৌসুমে জাতীয় ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপে করেছিলেন ট্রিপল সেঞ্চুরি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে ছিল ৩০৮ রানের সেই ইনিংস। খেলাটি হয়েছিল ধানমন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। সেটি বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরি।

ইগলেটসের হয়ে ক্লাব ক্রিকেটে খেলা শুরু করেছিলেন ১৯৭৬-৭৭ মৌসুমে। এরপর আবাহনী, মোহামেডান, বিমান ও জিমসিসির হয়ে খেলেছেন ১৯৯০-৯১ মৌসুম পর্যন্ত। তাঁর বড় ভাই আসাদুজ্জামান মিশাও জাতীয় পর্যায়ের ক্রিকেটার ছিলেন। ছিলেন জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচকও।

খেলা ছাড়ার পর তিনি দেশের বিভিন্ন বড় বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদে কাজ করেছেন। সংগঠক হিসেবেও ক্রিকেটের সঙ্গে জড়িয়ে রেখেছিলেন নিজেকে। ২০১১ বিশ্বকাপে তিনি স্থানীয় সাংগঠনিক কমিটির সদস্য ছিলেন। এ ছাড়াও বিসিবির লজিস্টিক ও প্রটোকল কমিটির সদস্যসচিব হিসেবেও কাজ করেছেন।

তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড(বিসিবি)।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন