বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দিনের খেলা শেষে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের টিম ম্যানেজার খালেদ মাহমুদের কণ্ঠেও শোনা গেল সেটিই, ‘আমরা টিকে থাকতে চাই, ভালো করতে চাই। জিততে যদি না–ও পারি, আমরা এই টেস্ট ড্র করতে চাই। এখনো ১৮০ ওভার বাকি আছে। এই উইকেটে তাড়াতাড়ি রান করা কঠিন হবে, যদি ভালো বল করি।’

নিউজিল্যান্ডে টেস্ট ড্র করার সুযোগ বাংলাদেশ দল এর আগেও পেয়েছিল। ২০১৬-১৭ মৌসুমের ওয়েলিংটন টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ৫৯৫ রান করে ইনিংস ঘোষণা দিয়েও ৭ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ। মুমিনুল হকের এই দলের কাছে সেই ওয়েলিংটনের ভুল দেখতে চান না মাহমুদ। সে জন্য দলটাকে বাড়তি অনুপ্রেরণাও দিচ্ছেন তিনি।

default-image

মাহমুদ বলছিলেন, ‘দলগতভাবে সবাইকে একটা কথাই বলেছিলাম—আমরা এখানে ১০টা ম্যাচ খেলেছি। একবার ৫৯৫ রান করে ইনিংস ঘোষণার পরও হেরেছিলাম। আমি বলেছিলাম বারবার তো হারতে পারি না। একটা গ্রুপকে তো ভালো করতে হবে। আমরাই যেন সেই কাজটা করতে পারি। প্রক্রিয়া যেন ঠিক থাকে, সাহস নিয়ে খেলতে পারি। এমন কোনো জুজু নেই যে পারব না। আমাদের আত্মবিশ্বাস ছিল আমরা পারব। এই অনুপ্রেরণাই দেওয়ার চেষ্টা করেছি।’

তবে তারুণ্যনির্ভর দলটাকে নিয়ে মাহমুদের ভয় ছিল ঠিকই। তারকায় ঠাসা নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে নবীন বাংলাদেশ দল কেমন করবে, এ নিয়ে মনের কোণে শঙ্কা ছিলই, ‘ভয় ছিল, সত্যি বলতে কি তরুণ একটা দল! সাদমান, জয়, শান্ত, ইয়াসির, লিটন—পাঁচজনই তেমন অভিজ্ঞ নন। তবে প্রত্যেকের ভালো খেলার সামর্থ্য আছে। ছেলেরা অনেক মনোযোগী ছিল, অনেক কষ্ট করেছে, ভালো খেলতে যা করা দরকার, সবকিছু করেছে। সবকিছু ম্যাচটাতে কাজে লেগেছে। আজকের দিনটা ছিল অন্যতম সেরা দিন। চ্যালেঞ্জিং ছিল তবে প্রক্রিয়াটা দারুণ ছিল। দারুণভাবে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছে। ছেলেরা সত্যিই দারুণ করেছে।’

ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে হলে চতুর্থ দিনের সকালের সেশনেও লড়াই চালিয়ে যেতে হবে বাংলাদেশকে। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী ও মেহেদী হাসান মিরাজের কাছে আগামীকালের প্রথম সেশন টিকে থাকার প্রত্যাশা মাহমুদের, কালকের সকালটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের হাতে ৪ উইকেট আছে। মিরাজ ও ইয়াসির আছে, ৭৩ রান লিড আছে। আরও ৭০ রান পেলে দেড়শ রানের মতো লিড হবে। তখন আমরা ভালো অবস্থানে থাকব।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন