দারুণ জুটিতে বাংলাদেশকে স্মরণীয় এক জয় এনে দেন আফিফ ও মিরাজ
সম্প্রচার শেষ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২

প্রথম ওয়ানডে

৪ উইকেটে জিতে গেল বাংলাদেশ

১০: ৪১, ফেব্রুয়ারি ২৩

টস জিতল আফগানিস্তান

default-image

প্রথম ওয়ানডেতে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আফগান অধিনায়ক হাশমতউল্লাহ শহীদি।

১০: ৪৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

ওয়ানডে অভিষেক হচ্ছে ইয়াসির আলির

মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলি বাংলাদেশের জার্সি গায়ে প্রথম ওয়ানডে খেলতে নামছেন আজ

default-image
১০: ৪৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

দেখে নিন দুই দলের একাদশ

বাংলাদেশ একাদশ : তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, ইয়াসির আলি, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান

আফগানিস্তান একাদশ : রহমতউল্লাহ গুরবাজ, ইব্রাহিম জাদরান, রহমত শাহ, হাশমতউল্লাহ শহীদি (অধিনায়ক), নজিবউল্লাহ জাদরান, গুলবদিন নইব, মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান, মুজিব উর রেহমান, ইয়ামিন আহমদজাই, ফজলহক ফারুকি

১১: ০৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

দ্বিতীয় বলেই চার

ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই চার মেরেছেন রহমতউল্লাহ্‌ গুরবাজ। বোলার মোস্তাফিজ।

১১: ১১, ফেব্রুয়ারি ২৩

ওয়াইডে শুরু তাসকিনের  

মোস্তাফিজের প্রথম ওভারে এসেছে ৭ রান। দ্বিতীয় ওভারে বোলিং করতে এসেই ওয়াইড দিলেন তাসকিন আহমেদ। এক বল পর আবার দিয়েছেন ওয়াইড।

ওভারে শেষ পর্যন্ত এসেছে ৩ রান। ২ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ১০/০।

১১: ১৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

গুরবাজকে ফেরালেন মোস্তাফিজ 

এগিয়ে এসে মারতে চেয়েছিলেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ, কিন্তু বলে ব্যাটে ঠিকমতো হলো না। অনেক উঁচুতে ওঠা ক্যাচ মিড অনে ধরেছেন তামিম।

১১ রানে ভাঙল আফগানিস্তানের উদ্বোধনী জুটি। ক্রিজে ইব্রাহিম জাদরানের সঙ্গী নতুন ব্যাটসম্যান রহমত শাহ।

ওভারে মাত্র ২ রান দিয়েছেন মোস্তাফিজ। ৩ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ১ উইকেটে ১২।

১১: ২৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪ ওভার শেষে আফগানিস্তান ১৪/১  

প্রথম ওভারে ৩ রান দেওয়ার পর দ্বিতীয় ওভারে তাসকিন দিয়েছেন ২ রান।

১১: ৩১, ফেব্রুয়ারি ২৩

মোস্তাফিজেরও ‘কিপ্টেমি’ চলছেই

আগের ওভারে উইকেট নেওয়া মোস্তাফিজ এই ওভারে দিয়েছেন ১ রান। চতুর্থ বলে আফগান দুই ব্যাটসম্যানের মুহূর্তের ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউটের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল, তবে শেষ পর্যন্ত আফগানদের বিপদ আর বাড়েনি। ৫ ওভার শেষে আফগানিস্তান ১৫/১।

১১: ৩৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

ক্যাচ হাতছাড়া মাহমুদউল্লাহর

ওয়াইডে শুরু করা ওভারে তৃতীয় ও চতুর্থ বলে ইব্রাহিমকে দারুণভাবে পরাস্ত করেছেন তাসকিন। মাঝে আরেকটা ওয়াইডের পর বৈধ পঞ্চম ডেলিভারিটা তাসকিন করলেন শর্ট বল, ডিপ স্কয়ার লেগে উড়িয়ে মেরেছিলেন ইব্রাহিম। কিন্তু বলের দিকে না গিয়ে ক্যাচ নিজের কাছে আসার জন্য অপেক্ষা করতে গিয়েই গড়বড় পাকিয়ে ফেললেন সেখানে ফিল্ডিং করতে থাকা মাহমুদউল্লাহ। বল যতক্ষণে তাঁর কাছে গেছে, ততক্ষণে ক্যাচটা অনেকটাই নিচু হয়ে যায়। সেটি আর ধরা হলো না মাহমুদউল্লাহর!

ওভারে ৫ রান নিয়ে ৬ ওভারে আফগানিস্তানের রান ১ উইকেটে ২০।

১১: ৩৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

৩৭ বল পর সেই মোস্তাফিজকেই চার

ইনিংসের দ্বিতীয় বলে মোস্তাফিজকে চার মেরেছিলেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ। সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে সেই মোস্তাফিজের বলেই আফগান ইনিংসের দ্বিতীয় চারটি মেরেছেন রহমত শাহ। মোস্তাফিজের শর্ট বলে স্কয়ার লেগে পুল করেন রহমত, সেখানে কোনো ফিল্ডারই ছিলেন না।

মোস্তাফিজ ভালো বোলিং করলেও মাঝেমধ্যে এক-দুটি ডেলিভারিতে লেংথ ঠিক থাকছে না।

ওভারের শেষ বলে অবশ্য রানআউটের সম্ভাবনা জেগেছিল। কিন্তু মিড অফ থেকে ফিল্ডারের থ্রো নন-স্ট্রাইক প্রান্তে স্টাম্পেই লাগেনি। ৭ ওভারে আফগানিস্তানের রান ২৬/১।

১১: ৪৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

তাসকিনের পরপর দুই বলে ছক্কা-চার

তৃতীয় ওভারে ১১ রানে প্রথম উইকেট হারানো আফগানিস্তানের হয়ে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে প্রথমে ধাক্কা সামলেছেন রহমত ও ইব্রাহিম। আস্তে আস্তে এখন হাত খুলতে শুরু করেছেন তাঁরা। প্রথম ধাক্কাটা এই ওভারে গেল তাসকিনের ওপর দিয়েই।

এই ওভারেও দুটি ওয়াইড দিয়েছেন তাসকিন। এরপর চতুর্থ বলে ডিপ স্কয়ার লেগে ৭১ মিটার লম্বা ছক্কা মেরেছেন ইব্রাহিম। সেখানেই শেষ নয়, পরের বলটাকেও ফাইন লেগে দিয়ে বাউন্ডারির বাইরে পাঠিয়েছেন ইব্রাহিম—চার! শেষ বলে ২ রান নিয়ে ওভারে এসেছে ১৫ রান।

৮ ওভারে ১ উইকেটে ৪০ রান আফগানিস্তানের।

১১: ৪৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

এসেই মেডেন সাকিবের

বোলিংয়ে বদল এনেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল। মোস্তাফিজের বদলে এসেছেন সাকিব আল হাসান। আফগানিস্তানের দুই ব্যাটসম্যান আস্তে আস্তে রানের গতি বাড়াচ্ছেন, সেটি থামাতেই হয়তো সাকিবকে আনা। প্রথম ওভারে সেই কাজটি দারুণভাবেই করেছেন সাকিব। কোনো রান দেননি ওভারে।

১১: ৫২, ফেব্রুয়ারি ২৩

বোলিং-বদল আরেক প্রান্তেও

আগের ওভারে মোস্তাফিজের বদলে এসেছিলেন সাকিব আল হাসান, এই ওভারে তাসকিনের জায়গায় আনা হয়েছে শরীফুল ইসলামকে। সাকিব প্রথম ওভারে মেডেন নিলেও, শরীফুল দিয়েছেন এক রান। ১০ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে আফগানদের রান ৪১

১১: ৫৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের ওভারে ৪ রান

শেষ তিন বলে তিন সিঙ্গেল নিয়ে সাকিবের ওভারে এসেছে ৪ রান। ১১ ওভারে আফগানিস্তানের রান ১ উইকেটে ৪৫ রান।

১২: ০০, ফেব্রুয়ারি ২৩

অল্পের জন্য ক্যাচ হাতছাড়া

শরীফুলের ওভারের তৃতীয় বলে পুল করেছিলেন রহমত শাহ। ক্যাচ উঠেছিল ডিপ মিড উইকেটে, কিন্তু সীমানার কাছে থাকা ফিল্ডারের দু-এক গজ সামনেই পড়েছে বল। হাতছাড়া হলো সুযোগ।

ওভারে এসেছে ১ রান। ১২ ওভারে আফগানিস্তান ৪৬/১।

১২: ০৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের ওভারে দুই চার

তৃতীয় বলে মিডউইকেটে উড়িয়ে মেরেছেন রহমত, একবার বাউন্স করে বল সীমানার বাইরে। তাতে আফগানিস্তান ইনিংসে ৫০ রানও হয়ে গেল। এর এক বল পর আবার ‘কপি-পেস্ট।’ আবারও সাকিবের ফুল লেংথ বল, আবার ডিপ মিডউইকেটে চার চার রহমতের।

সাকিবের ওভারে ৯ রান নিয়ে ১৩ ওভারে আফগানিস্তানের রান ১ উইকেটে ৫৫।

১২: ০৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

ইব্রাহিমকে ফেরালেন শরীফুল

গুড লেংথের বলটা ডানহাতি ইব্রাহিমের উইকেট থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিল, কাভার ড্রাইভ করতে গিয়েছিলেন ইব্রাহিম। কিন্তু ব্যাটের কানায় লেগে স্লিপে ইয়াসিরের হাতে ধরা পড়লেন ইব্রাহিম।

১১ রানে প্রথম উইকেট হারানো আফগানিস্তানের হয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৪৪ রানের জুটিতে ধীরে ধীরে আগ্রাসী হয়ে উঠছিলেন ইব্রাহিম ও রহমত। জুটিটা ভাঙলেন শরীফুল।

২৩ বলে ১৯ রান করে আউট হয়েছেন ইব্রাহিম। ক্রিজে রহমতের (৪৩ বলে ২৩ রান) সঙ্গী নতুন ব্যাটসম্যান আফগান অধিনায়ক হাশমতউল্লাহ শহীদি। তাতে ক্রিজে ডানহাতি-বাঁহাতি সমন্বয় পেল আফগানিস্তান।

ওভারে এসেছে ১ রান। ১৪ ওভারে আফগানিস্তানের রান ১ উইকেটে ৫৬।

১২: ০৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের বদলে এসেই মিরাজের মেডেন 

সাকিব নিজের সর্বশেষ ওভারে ৯ রান দিয়েছেন, এদিকে ক্রিজে এসেছেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশ একজন অফ স্পিনারকে বোলিংয়ে আনবে, সেটাই অনুমিত। এলেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

প্রথম ওভারে ভালো বোলিংই করেছেন মিরাজ। কোনো রান দেননি। ১৫ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ২ উইকেটে ৫৬।

১২: ১৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের পর শরীফুলেরও মেডেন

পানি পানের বিরতির আগের ওভারে মিরাজ কোনো রান দেননি। বিরতির পর অন্য প্রান্ত থেকে এসে শরীফুলও দেননি কোনো রান। টানা দুই ওভার মেডেনের পর ১৬ ওভারে আফগানিস্তানের রান ২ উইকেটে ৫৬।

১২: ২১, ফেব্রুয়ারি ২৩

১৭ ওভার শেষে আফগানিস্তান ৫৯/২

দ্বিতীয় বলে স্কুপ করে ২ রান নেন রহমত, চতুর্থ বলে মিড উইকেটে ঠেলে এক রান। এরপর স্ট্রাইকে আসা শহীদি পরের দুই বলেই খুব একটা স্বস্তিতে ছিলেন না। এখন পর্যন্ত ইনিংসে ১২ বল খেলেও কোনো রান নিতে পারেননি আফগান অধিনায়ক।

১২: ২৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

ভাগ্যে পাওয়া চারে শুরু শহীদির

ইনিংসে এখন পর্যন্ত দারুণ লাইন-লেংথ ধরে রেখে বোলিং করে যাচ্ছেন শরীফুল। তবে ১৮তম ওভারের চতুর্থ বলে চারের মার খেতে হলো তাঁকে। যদিও চারটা ভাগ্যপ্রসূত। তাঁর অফ স্টাম্পের বাইরের বলে এলোপাতাড়ি ব্যাট চালিয়েছেন শহীদি, স্লিপের মাথার ওপর দিয়ে বল সীমানার বাইরে। ওভারে ৭ রান এসেছে, ১৮ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ২ উইকেটে ৬৬।

১২: ৩৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের ওভারেও এল ৭ রান

পঞ্চম বলে দারুণ কাট করে মিরাজকে চার মেরেছেন শহীদি। ওভারে ৭ রান নিয়ে আফগানিস্তানের রান ১৯ ওভারে ২ উইকেটে ৭৩।

১২: ৩৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

বোলিংয়ে আবার বদল, এলেন তাসকিন

২০তম ওভারে বোলিংয়ে এসেছেন তাসকিন আহমেদ, আগের ৪ ওভারে ২৬ রান দেওয়া তাসকিন এই স্পেলে প্রথম ওভারে দিলেন ১ রান।

২০ ওভারে আফগানিস্তান ৭৪/২।

১২: ৩৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের ওভারে শুধু একটি লেগ বাই

আগের ওভারে ৭ রান দেওয়া মিরাজের করা ২১তম ওভারে শুধু একটি রানই পেয়েছে আফগানিস্তান, সেটিও লেগ বাই। ২১ ওভারে ২ উইকেটে ৭৫ রান আফগানদের।

১২: ৪০, ফেব্রুয়ারি ২৩

রহমতকে ফেরালেন তাসকিন

আগের পাঁচ বলের চারটিতেই সিঙ্গেল এসেছে। বোলিংটা ভালোই হচ্ছিল তাসকিনের। ইনিংসে নিজের দ্বিতীয় স্পেলের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে এসে অবশেষে উইকেটের দেখা পেলেন বাংলাদেশের পেসার।

তাঁর বাড়তি বাউন্স পাওয়া বলে খেই হারিয়ে ফেললেন রহমত, বল আফগান ব্যাটসম্যানের ব্যাটের কানায় লেগে গেল উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে।

৬৯ বলে ৩৪ রান করে আউট হয়েছেন রহমত। ২৩ রানের পর ভাঙল আফগানিস্তানের তৃতীয় উইকেট জুটি। ওভারে ৪ রান নিয়ে আফগানিস্তানের রান ২২ ওভারে ৩ উইকেটে ৭৯। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান নজিবুল্লাহ জাদরান।

১২: ৪৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের ওভারে এল ২ রান

শুরু থেকেই রান দেওয়ায় কিপ্টেমি করে যাওয়া মিরাজ এই ওভারেও করেছেন দারুণ বোলিং। শুধু দুটি সিঙ্গেল এসেছে তাঁর বলে। ২৩ ওভার শেষে আফগানিস্তান ৮১/৩।

১২: ৪৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

স্লিপে ফিল্ডার না থাকায় চার

আগের ওভারে তাসকিন উইকেট পেয়েছেন, ক্রিজে সেট ব্যাটসম্যান হাশমতউল্লাহ শহীদিও মাঝেমধ্যেই এলোপাতাড়ি ব্যাট চালাচ্ছেন। এই ওভারের দ্বিতীয় বলেও অফ স্টাম্পের বাইরের বলে সপাটে ব্যাট চালিয়ে পরাস্ত হয়েছেন। তবু স্লিপে কোনো ফিল্ডার রাখল না বাংলাদেশ! সেটিরই মূল্য দিতে হলো ওভারের তৃতীয় বলে। তাসকিনের বল শহীদির ব্যাটের কানায় লেগে প্রথম স্লিপ দিয়ে চার!

ওভারে এসেছে ৫ রান। আফগানিস্তান ২৪ ওভারে ৩ উইকেটে ৮৬।

১২: ৫১, ফেব্রুয়ারি ২৩

৬ ওভারে ৩ মেডেন মিরাজের

দারুণ আঁটসাট বোলিং করে যাওয়া মিরাজ ষষ্ঠ ওভারেও মেডেন নিয়েছেন। চতুর্থ বলে তাঁকে রিভার্স সুইপ করতে চেয়েছিলেন শহীদি, কিন্তু বলে ব্যাটে হয়নি। বল গ্লাভসে লাগায় এলবিডব্লুরও সুযোগ ছিল না। ষষ্ঠ বলে কাভারে দারুণ ফিল্ডিংয়ে রান বাঁচিয়েছেন তামিম।

২৫ ওভারে আফগানিস্তানের রান ৩ উইকেটে ৮৬। মিরাজ ৬ ওভারে ৩ মেডেন নিয়ে দিয়েছেন ১২ রান। উইকেট না পেলেও এক প্রান্ত থেকে রানের বানে বাধ দিয়ে যাচ্ছে তাঁর অফ স্পিন।

১২: ৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

১৫০ বলে ১০৫ ডট 

ইনিংসের অর্ধেক শেষে তৃপ্ত বোধ করতে পারে বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের রান এখনো ১০০ পার হয়নি, উইকেট পড়েছে তিনটি। বাংলাদেশের বোলিংও ভালোই হচ্ছে। তাসকিন আর সাকিবের একটি করে ওভার ছাড়া সেভাবে খরুচে ওভার আর ছিল না বললেই চলে।

এখন পর্যন্ত ইনিংসে ১৫০ বলের মধ্যে ১০৫টিতেই বাংলাদেশ কোনো রান দেয়নি।

১২: ৫৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

তাসকিনের ওভারে ৪ রান

প্রথম বলে ২, পরের পাঁচ বলে দুটি সিঙ্গেল। ওভারে চার রান দিয়েছেন তাসকিন। ২৬ ওভারে আফগানিস্তানের রান ৯০/৩।

১২: ৫৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজকে শহীদির ছক্কা

আগের ছয় ওভারে দিয়েছেন ১২ রান, এই ওভারে প্রথম তিন বলেই মিরাজ দিয়েছেন ৮ রান! ইনিংসের দ্বিতীয় বলে তাঁকে ছক্কা মেরেছেন শহীদি। মিডল-লেগ স্টাম্পে বলটা ফেলেছিলেন মিরাজ, হাঁটু গেড়ে স্লগে মিডউইকেট বাউন্ডারির বাইরে সেটিকে আছড়ে ফেলেন শহীদি।

ওভারে পরের তিন বলে আর রান আসেনি। ২৭ ওভারে আফগানিস্তানের রান ৩ উইকেটে ৯৮।

১৩: ০৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

১০০ পার হতেই আউট শহীদি

শহীদি আগ্রাসী হয়ে উঠছেন, ক্রিজে সেটও হয়ে গেছেন। তাঁকে ঠেকাতে তাই দুই প্রান্ত থেকেই অফ স্পিন এনেছে বাংলাদেশ। তাসকিনের বদলে বোলিংয়ে আনা হলো মাহমুদউল্লাহকে। বদলটা কী দারুণভাবে কাজে লেগে গেল! ওভারে শেষ বলেই মাহমুদউল্লাহর বলে কাট করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ধরা পড়লেন শহীদি। ৪৩ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৮ রান করে ফিরেছেন আফগান অধিনায়ক।

ওভারে এসেছে ৪ রান। প্রথম দুই বলে সিঙ্গেল নিয়েই ১০০ পার হয়ে গিয়েছিল আফগানিস্তানের। ইনিংসে ৫০ পেরোতে আফগানদের লেগেছিল ৭৫ বল, দ্বিতীয় ৫০-এ লাগল ৮৯ বল।

২৮ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৪ উইকেটে ১০২। ক্রিজে নজিবুল্লাহ জাদরানের (১৯ বলে ৬) সঙ্গী নতুন ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ নবী।

১৩: ০৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের ওভারে এল ৪ রান

ক্রিজে বাঁহাতি নজিবুল্লাহর সঙ্গে ডানহাতি নবী। পঞ্চম বলে দ্রুত দৌড়ে দুই রান নিয়েছেন দুজন, তবে আফিফের থ্রো-টা নন-স্ট্রাইক প্রান্তে স্টাম্পে বা এর কাছে থাকলে রানআউটের সম্ভাবনা তৈরি হতে পারত।

২৯ ওভারে ৪ উইকেটে ১০৬ রান আফগানিস্তানের।

১৩: ০৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিব ফিরলেন, ওভারের শেষ বলে চার

‘গোল্ডেন আর্ম’ মাহমুদউল্লাহ উইকেট এনে দিলেন, তাঁকে এক ওভার পরই বোলিং থেকে সরিয়ে ফেরানো হলো সাকিবকে। কিন্তু ফিরে ওভারে ৭ রান দিয়েছেন সাকিব। ওভারের শেষ বলে তাঁকে রিভার্স সুইপে চার মেরেছেন নজিবুল্লাহ।

৩০ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৪ উইকেটে ১১৩।

১৩: ১২, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের ওভারে ২ রান

আফগানিস্তান ৩১ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ১১৫।

১৩: ১৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

এবার সাকিবকে ছক্কা জাদরানের

আগের ওভারে সাকিবকে রিভার্স সুইপে চার মেরেছিলেন, এই ওভারের দ্বিতীয় বলে অফ স্টাম্পের বাইরের বলকে নজিবুল্লাহ জাদরান পাঠিয়েছেন লং অফের সীমানার ওপারে। সাকিব আজ এখন পর্যন্ত বল হাতে সেভাবে ভয় ধরাতে পারেননি আফগানদের মনে।

ওভারে এসেছে ৯ রান, আফগানিস্তান ৪ উইকেটে ১২৪।

১৩: ১৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

‘কিপ্টেমি’তেই শেষ মিরাজের

নিজের শেষ ওভারেও মাত্র দুই রান দিয়েছেন মিরাজ। দশ ওভার শেষ হয়ে গেছে তাঁর, কোনো উইকেট না পেলেও আজ দারুণ ‘কিপ্টেমি’তে রান আটকেছে তাঁর অফ স্পিন। ১০ ওভারে ৩ মেডেন নিয়ে দিয়েছেন মাত্র ২৮ রান।

এই ওভারে ২ রান নিয়ে ৩৩ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৪ উইকেটে ১২৬।

১৩: ২২, ফেব্রুয়ারি ২৩

দ্বিতীয় স্পেলে ফিরলেন মোস্তাফিজ

আগের স্পেলে ৪ ওভারে ১৪ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছিলেন, এই ওভারে দ্বিতীয়বারের মতো বোলিংয়ে ফিরলেন মোস্তাফিজুর রহমান। ওভারের তৃতীয় বলেই তাঁকে ফ্লিক করে চার মেরেছেন জাদরান।

ওভারে ৫ রান নিয়ে আফগানিস্তানের রান ৩৪ ওভারে ৪ উইকেটে ১৩১।

১৩: ২৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের ওভারে আবার চার জাদরানের

বলটা স্টাম্পের ওপরে ছিল, একটু জায়গা করে নিয়ে মিড অফে মেরেছেন জাদরান। ডাইভ দিয়েও বলের নাগাল পেলেন না মিড অফে দাঁড়ানো ফিল্ডার। সাকিবের আগের দুই ওভারের মতো এই ওভারেও একটি বাউন্ডারি তুলে নিলেন জাদরান।

ওভারে দুটি ওয়াইডও দিয়েছেন সাকিব। ৯ রান এসেছে ওভারে। ৩৫ ওভারে আফগানিস্তান ১৪০/৪। সাকিব ৬ ওভারে ১ মেডেন নিলেও দিয়েছেন ৩৮ রান। দ্বিতীয় স্পেলে ৩ ওভারে দিয়েছেন ২৫ রান।

১৩: ২৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

শেষ ১৫ ওভারে কত রান নিতে পারবে আফগানিস্তান?

মোস্তাফিজের পাঁচ ওভার বাকি। তাসকিনের দুটি। সাকিব আজ খরুচে বোলিং করলেও এখনো তাঁর ৪ ওভার বাকি। এখন পর্যন্ত ওভারপ্রতি গড়ে ২ রান দেওয়া শরীফুলেরও ওভার বাকি আছে পাঁচটি।

প্রসঙ্গত, এই মাঠে সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচে আগে ব্যাটিং করা দল গড়ে ২৬৩ রান তুলেছে। আফগানিস্তানের রান এই মুহূর্তে ১৪০, হাতে আছে ৬ উইকেট। ভয়ংকর হয়ে ওঠা নজিবুল্লাহ জাদরান ৪৮ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ৩৩ রানে অপরাজিত, ১৪ বলে ৯ রানে অপরাজিত মোহাম্মদ নবী।

১৩: ৩২, ফেব্রুয়ারি ২৩

ফিরেই ওভারে ৬ রান দিলেন শরীফুল

বিরতির পর শরীফুলকে দিয়েই শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রথম তিন বলে রান আসেনি, পরের দুই বলে এসেছে দুটি সিঙ্গেল। কিন্তু শেষ বলটাতে পুল করে শরীফুলকে স্কয়ার লেগে বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন নবী।

৩৬ ওভারে ৪ উইকেটে ১৪৬ রান আফগানিস্তানের।

১৩: ৩৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

১৫০ পেরিয়ে গেল আফগানিস্তান

ওভারে দুটি ওয়াইড দিয়েছেন মোস্তাফিজ, এর বাইরে তিনটি সিঙ্গেল হয়েছে। পঞ্চম বলে সিঙ্গেল নিয়ে ইনিংসে ১৫০ পার করেছে আফগানিস্তান।

৩৭ ওভারে ৪ উইকেটে ১৫১ রান আফগানদের। নজিবুল্লাহ জাদরান অপরাজিত ৩৬ রানে, নবী ১৫ রানে। দুজনের জুটিতে অর্ধশতকের বাকি আর ১ রান।

১৩: ৪৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

শরীফুলের খরুচে ওভার

দ্বিতীয় বলে ব্যাটসম্যানের প্যাডে লেগে বল উইকেটের পেছন দিয়ে সীমানার বাইরে চলে গেল, তাতে জুটিতে পঞ্চাশ পেরিয়ে গেল। চতুর্থ বলে নয়নজুড়ানো শটে চার জাদরানের। স্টাম্পের ওপর ফুল লেংথ বল করেছিলেন শরীফুল, ৩০ গজের মধ্যে থাকা ফিল্ডারের মাথার ওপর দিয়ে দারুণ ভাসানো শট জাদরানের। একবার মাটিতে পড়ে বল সীমানার বাইরে।

ওভারে এসেছে ৯ রান। ৩৮ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৪ উইকেটে ১৬১।

১৩: ৪৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

নবীকে ফেরালেন তাসকিন

আগের দুই স্পেলে ৮ ওভারে ৪০ রান দিয়েছেন, এবার তৃতীয় স্পেলে ফেরার পর প্রথম বলেই চার তাসকিনের বলে। দারুণ কাভার ড্রাইভে বল সীমানাছাড়া করলেন নবী। দুই বল পর সেই নবীকেই আউট করলেন তাসকিন। চতুর্থ স্টাম্পে বলটা করেছিলেন তাসকিন, বল নবীর ব্যাটের কানায় লেগে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ।

নবী ফিরলেন ২৪ বলে ২ চারে ২০ রান করে। ভাঙল বাংলাদেশের মাথাব্যথা হয়ে ওঠা নবী-জাদরানের ৬৩ রানের জুটি। জাদরান অবশ্য এখনো মাথাব্যথা হয়ে অপরাজিত ৪১ রানে।

নতুন ব্যাটসম্যান গুলবদীন নাইব। ওভারে ৫ রান নিয়ে ৩৯ ওভারে আফগানিস্তানের রান ৫ উইকেটে ১৬৬।

১৩: ৫৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

মোস্তাফিজের ওভারে এল ২ রান

৪০ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৫ উইকেটে ১৬৮। শেষ দশ ওভারে কত রান নিতে পারবে আফগানরা? ৬০ বলে ৪২ রানে অপরাজিত জাদরানের এখনো জবাব খুঁজে পায়নি বাংলাদেশ, আফগানিস্তানকে ভরসা দিতে পারে সেটিই।

১৪: ০১, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের ওভারে ৫ রান

৪১ ওভারে আফগানিস্তান ১৭৩/৫

১৪: ০২, ফেব্রুয়ারি ২৩

তাসকিনের বলে গুলবদীনের ছক্কা

ওভারের প্রথম বলেই তাসকিনকে লং অনে স্লগ করে ছক্কা মেরেছেন গুলবদীন। ওভারে এসেছে ১০ রান। ৪২ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ৫ উইকেটে ১৮৩।

১৪: ০৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

জাদরানের অর্ধশতক

সাকিবের ওভারে প্রথম বলে হলো দুই রান, পরের পাঁচ বলে চারটি সিঙ্গেল। এর মধ্যে পঞ্চম বলে সিঙ্গেল নিয়ে অর্ধশতকে পৌঁছে গেলেন নজিবুল্লাহ জাদরান। ৭০ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় তাঁর ১৩তম ওয়ানডে ফিফটিই আফগানিস্তানকে আরও বড় স্কোরের আশা দেখাচ্ছে।

৪৩ ওভারে ৫ উইকেটে ১৮৯ রান আফগানিস্তানের।

১৪: ১৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

রিভিউ হারাল বাংলাদেশ

কী ভেবে রিভিউটা নিয়েছে বাংলাদেশ, সেটিই বরং বড় আলোচনার বিষয় হতে পারে। শরীফুলের বলটা যখন জাদরানের প্যাডে লেগেছে, তখন লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরেই ছিল জাদরানের পা। তবু রিভিউ নিয়েছে বাংলাদেশ, তাতে ব্যর্থও হয়েছে।

ওভারে ৪ রান দিয়েছেন শরীফুল। ৪৪ ওভারে ৫ উইকেটে ১৯৩ রান আফগানিস্তানের।

১৪: ১৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

গুলবদীনের পর রশিদকে ফেরালেন সাকিব 

আগের ওভারে রিভিউ নিয়ে ব্যর্থ বাংলাদেশ, এই ওভারে আফগানিস্তান। সাকিবের ওভারের তৃতীয় বলটা গুলবদীনের প্যাডে লাগে, এলবিডব্লুর আবেদনে আম্পায়ার আঙুলও তোলেন। কিন্তু প্যাডে লাগার আগে বল ব্যাটে লেগেছে কি না, এ সংশয় থেকে রিভিউ নেন গুলবদীন। বাঁচতে পারেননি। ২১ বলে ১৭ রান করে ফিরলেন গুলবদীন।

ওভারের শেষ বলে রশিদ খানকেও বোল্ড করেছেন সাকিব। কোনো রান না করেই ফিরেছেন রশিদ।

ওভারে ১ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। ৪৫ ওভার শেষে ৭ উইকেটে ১৯৪ রান আফগানিস্তানের। তবে গুলবদীন-রশিদ ফিরলেও এখনো অপরাজিত জাদরান, ৭৩ বলে ৫২ রান নিয়ে ব্যাট করছেন তিনি।

১৪: ২০, ফেব্রুয়ারি ২৩

আর ৫ ওভার বাকি। এখনো ২০০ পেরোতে না পারা আফগানিস্তান কত রান করতে পারবে?  

১৪: ২২, ফেব্রুয়ারি ২৩

মোস্তাফিজ ফেরালেন মুজিবকে 

লেগ সাইডে খেলতে চেয়েছিলেন মুজিব, কিন্তু ব্যাটের ওপরের কানায় লেগে ক্যাচ গেল কাভারে থাকা নাজমুল হোসেনের কাছে। সর্বশেষ ৯ বলে ৩ উইকেট হারিয়েছে আফগানিস্তান। পঞ্চম বলে উইকেট নেওয়া মোস্তাফিজ ওভারে রান দিয়েছেন মাত্র ১!

৪৬ ওভারে ৮ উইকেটে ১৯৫ রান আফগানিস্তানের।

১৪: ৩০, ফেব্রুয়ারি ২৩

৩৫ বলে বাউন্ডারি পায়নি আফগানিস্তান

একটি ওয়াইড, চারটি সিঙ্গেল, একটি ডাবল। শরীফুলের ওভারে এসেছে ৭ রান। পঞ্চম বলে ইয়ামিনের সিঙ্গেলে আফগানিস্তানের ইনিংসে ২০০ রান হয়ে গেছে।

৪৭ ওভার শেষে ৮ উইকেটে ২০২ রান আফগানদের। তবে ৪২তম ওভারের প্রথম বলের পর থেকে আর বাউন্ডারি পায়নি আফগানিস্তান, বাংলাদেশকে স্বস্তি দেবে সেটি।

১৪: ৩৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

সেই জাদরানই ঘোচালেন বাউন্ডারি-খরা

৩৭ বল পর বাউণ্ডারি পেয়েছে আফগানিস্তান। মোস্তাফিজের ওভারের দ্বিতীয় বলে মিডউইকেটে বিশাল ছক্কা মেরে বাউন্ডারি-খরা ঘুচিয়েছেন ইনিংসে অর্ধশতক পাওয়া জাদরানই।

ওভারে এসেছে ৮ রান। ৪৮ ওভারে ৮ উইকেটে ২১০ রান আফগানিস্তানের।

১৪: ৩৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

অবশেষে জাদরান আউট 

শরীফুলের ওভারের প্রথম বলেই মিডউইকেটে ঠেলে ২ রানের জন্য দৌড়েছিলেন জাদরান। ঝুঁকিপূর্ণ ছিল, মুশফিকুর উইকেট ভেঙে দিয়ে রানআউটের আবেদনও করেন। কিন্তু রিপ্লে দেখায়, মুশফিক উইকেট ভাঙার ঠিক আগে ক্রিজে পৌঁছে গেছেন জাদরান।

তবে তিন বল পরই শরীফুলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহর হাতে ধরা পড়েন জাদরান। ৮৪ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৬৭ রান করেছেন জাদরান।

ওভারে ৫ রান নিয়ে ৪৯ ওভারে ৯ উইকেটে ২১৫ রান আফগানিস্তানের।

১৪: ৪৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

২১৫ রানে গুটিয়ে গেল আফগানিস্তান 

শেষ ওভার করতে এসেছেন মোস্তাফিজ। ওভারের প্রথম বলেই মোস্তাফিজকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহর হাতে ক্যাচ আউট হলেন ইয়ামিন আহমাদজাই। ৪৯.১ ওভারে ২১৫ রানে অলআউট হলো আফগানিস্তান।

১৪: ৪৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

বোলিংয়ে দারুণ দেখিয়েছেন মোস্তাফিজ-শরীফুল-মিরাজরা 

বল হাতে অর্ধেক কাজ এগিয়ে রাখল বাংলাদেশ। দারুণ বোলিং করেছেন বোলাররা। মোস্তাফিজ সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন, সাকিব-তাসকিন-শরীফুল দুটি করে, মাঝে জুটি ভাঙার কাজে এসে ১ ওভারেই ১ উইকেট মাহমুদউল্লাহর। উইকেট না পেলেও মিরাজ অসাধারণ বোলিং করেছেন, ১০ ওভারে ৩ মেডেন নিয়ে দিয়েছেন ২৮ রান।

সাকিব ও তাসকিন তুলনামূলক খরুচে ছিলেন, ওভারপ্রতি গড়ে সাড়ে ৫-এর ওপর রান দিয়েছেন। তবে উইকেট নেওয়া ও রান না দেওয়া—দুই বিচারেই দারুণ বোলিং করেছেন দুই বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজ ও শরীফুল। দুজনই ওভারপ্রতি গড়ে ৪-এর কম রান দিয়েছেন।

আফগানিস্তানের ব্যাটিং অর্ডারের দুই থেকে সাত—এই ছয় ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কে গেছেন, তবে সেভাবে রান পেয়েছেন শুধু নজিবুল্লাহ জাদরান ও রহমত শাহ। জাদরান ওয়ানডেতে ১৩তম অর্ধশতক তুলে নিয়েছেন, শেষ পর্যন্ত আউট হয়েছেন ৮৪ বলে ৬৭ রান করে। রহমত করেছেন ৩৪ রান। ২০-এর ঘরে গেছেন আরও দুই ব্যাটসম্যান—অধিনায়ক শহীদি ও ছয়ে নামা মোহাম্মদ নবী।

আফগানিস্তানের পঞ্চাশ ছাড়ানো জুটি একটিই—পঞ্চম উইকেটে নবী ও জাদরানের ৬৩ বলে ৬৩ রানের জুটি। দ্বিতীয় উইকেটে ৬৫ বলে ৪৫ রানের জুটি গড়েছেন রহমত ও ইব্রাহিম।

১৫: ২৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

দলীয় ১৩ রানের মাথায় ফিরলেন লিটন দাস

ফজল হক ফারুকির বলে উইকেটের পেছনে রহমানউল্লাহ গুরবাজকে ক্যাচ দিয়েছেন লিটন। আম্পায়ার প্রথমে দেননি, আফগানিস্তান রিভিউ নিয়ে সফল

১৫: ২৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

তামিমও ফিরে গেলেন

শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। দলীয় ১৩ রানে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন লিটন। এর পরপরই আউট অধিনায়ক তামিম ইকবাল। সেই ফজল হক ফারুকির বলেই। এবারও আম্পায়ার ‘না’ বলেছিলেন। পরে রিভিউতে দেখা গেল বল তামিমের পেছনে স্টাম্পে আঘাত করত। বাংলাদেশের সংগ্রহ ২.৫ ওভারে ২ উইকেটে ১৫। তামিম–লিটন ফেরার পর উইকেটে আছেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম

১৫: ৩৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

মুশফিকও এলেন আর গেলেন

চতুর্থ ওভারটা কোনোরকমে ঠেকিয়েছেন সাকিব-মুশফিক, পঞ্চম ওভারের প্রথম বলেই আবার বাংলাদেশের উইকেটের পতন। এবার আউট মুশফিক। সেই ফজলহক ফারুকিই শিকারি! নিজের আগের ওভারে তিন বলের ব্যবধানে লিটন ও তামিমকে ফেরানো ফজল এবার এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেললেন মুশফিককে।

মুশফিক রিভিউ নিয়েছিলেন, কিন্তু রিপ্লে দেখাল বল ব্যাটে লাগার আগেই প্যাডে লেগেছে। ১৮ রানে ৩ উইকেট হাওয়া বাংলাদেশের!

১৫: ৪২, ফেব্রুয়ারি ২৩

ফজলহক ফারুকি নাকি চামিন্দা ভাস!

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা তো পড়তেই পারছেন না বাঁহাতি আফগান পেসারকে! তামিম, লিটন আর মুশফিকের পর অভিষিক্ত ইয়াসির আলীকেও ফেরালেন ফজলহক। যেকোনো বোলারের জন্য স্বপ্নের মতো উইকেট, ইয়াসিরের অফ স্টাম্প উপড়ে গেল।

১৮ রানেই দলের প্রথম তিন ব্যাটসম্যান নেই, এমন অবস্থায় ফজল হকের স্টাম্প সোজা বলটা সোজা ব্যাটে না ঠেকিয়ে কেন আড়াআড়ি খেলতে গেলেন, আড়াআড়ি খেলতে গিয়ে এত আস্তেই বা কেন ব্যাট নামল তাঁর...ইয়াসিরই ভালো জানেন। অভিষেকটা দুঃস্বপ্নের মতোই হলো তাঁর, কোনো রান না করেই ফিরেছেন।

৫ ওভারে ১৮/৪ বাংলাদেশ।

১৫: ৫০, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিবের চার

মাহমুদউল্লাহ আর সাকিব আল হাসান...দুই অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের ব্যাটে দুঃস্বপ্নের মতো শুরু কাটিয়ে ওঠার আশা বাংলাদেশের। কেমন জুটি গড়তে পারেন তাঁরা, সেটির ওপরই নির্ভর করছে ম্যাচে বাংলাদেশের ফিরে আসার ক্ষীণ সম্ভাবনা কতটা জোর পাবে।

সে ক্ষেত্রে সাকিবের চারটা আশার পালে আরেকটু হাওয়া দিতে পারে। সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে ফজলহক ফারুকিকে কাভারে চার মেরেছেন সাকিব। প্রথম ওভারের শেষ দুই বলে তামিমের দুই চারের পর এই প্রথম বাউন্ডারি দেখল বাংলাদেশ।

শটটাতে যে সাকিবের নিয়ন্ত্রণ খুব ভালো ছিল, তা নয়। বল কিছুক্ষণ বাতাসে ভেসে ছিল। কিন্তু ফাঁকা জায়গায় পড়েছে, সীমানাও পেরিয়ে গেছে...এ-ই স্বস্তি বাংলাদেশের। ৭ ওভারে বাংলাদেশের রান ২৬/৪।

১৫: ৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

সাকিব ফিরলেন মুজিবের শিকার হয়ে

আগের ওভারে চার মেরে যদি কিছুটা আশার জোগান দিয়ে থাকেন, অষ্টম ওভারের চতুর্থ ওভারে সে আশার গুড়ে বালি ঢেলে দিয়েছেন সাকিব নিজেই। মুজিবের বলে অফসাইডে ড্রাইভ করতে গিয়েছিলেন, কিন্তু বল তাঁর ব্যাটে লেগে উল্টো স্টাম্পেই আঘাত হানল!

২৮ রানেই বাংলাদেশের পাঁচ ব্যাটসম্যান আউট!

১৫: ৫৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

রেকর্ড ‘অ্যালার্ট’

২৮ রানেই পঞ্চম উইকেট হারাল বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে এর আগে কখনোই এত কম রানে ৫ উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ। এর আগে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সর্বনিম্ন ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ ২০১৮ সালে, এশিয়া কাপে, আবুধাবিতে। ২৫৫ রানতাড়ায় সে ম্যাচে বাংলাদেশ গুটিয়ে গিয়েছিল ১১৯ রানেই।

সব মিলিয়ে যে কোনো প্রতিপক্ষের সঙ্গে বাংলাদেশের সবচেয়ে কম রানে ৫ উইকেট হারানোর রেকর্ডটি ২০১২ সালের। সেবার মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১২ রান করতেই পঞ্চম উইকেটটি হারিয়েছিল তারা, ২১১ রানতাড়ায় গুটিয়ে গিয়েছিল ১৩৬ রানেই।

১৬: ১২, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদ এলেন, উইকেটও পেলেন

সিরিজের আগে থেকেই আলোচনায় ছিল আফগানিস্তানের স্পিন-আক্রমণ বাংলাদেশের জন্য কতটা ‘হুমকি’ হয়ে উঠবেন, সে ব্যাপারটি। ফজলহক ফারুকি অবশ্য বদলে দিলেন সে চিত্রটা।

এরপর এলেন রশিদ খান। উইকেট পেলেন প্রথম ওভারেই। তাঁর দ্বিতীয় বলটি ছিল ‘হাফ-ট্র্যাকার’, মাহমুদউল্লাহ জোরের ওপর খেলতে গিয়ে সেটিতেই ক্যাচ তুললেন স্লিপে। একমাত্র স্লিপে থাকা গুলবাদিন নাইব ভুল করেননি। ৪৫ রানে বাংলাদেশ হারিয়েছে ষষ্ঠ উইকেট, মাহমুদউল্লাহ ফিরেছেন ১৭ বলে ৮ রান করেই।

১৬: ১৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

রিভিউ হারাল আফগানিস্তান

রশিদ খান প্রথম ওভারে এসে মাহমুদউল্লাহকে ফিরিয়েছেন, এরপর আফগানিস্তান রিভিউও নিয়েছে একটি। আফিফ হোসেনের প্যাডে লেগে বল গিয়েছিল বাউন্ডারিতে, তবে আফগানিস্তান নিয়েছিল এলবিডব্লুর রিভিউ। বল ব্যাটে লাগেনি, তবে পড়েছিল লেগ স্টাম্পের বাইরে। বেঁচে গেছেন আফিফ, রিভিউ হারিয়েছে আফগানিস্তান।

এর আগে একটি রিভিউ হারিয়েছে বাংলাদেশও, মুশফিকুর রহিমের আউটের সময়। ইনিংসপ্রতি দুটি অসফল রিভিউ নিতে পারে দলগুলো।

১৬: ২৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

১৪ ওভার শেষে বাংলাদেশ ৫৬/৬

মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার পর ক্রিজে এসেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। এই মুহূর্তে আফিফ ১১ রানে অপরাজিত, মিরাজ ৩ রানে। ১৪ ওভারে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ৫৬।

১৬: ৩২, ফেব্রুয়ারি ২৩

সিঙ্গেল নিয়ে খেলছেন মিরাজ-আফিফ

ইয়ামিন আহমদজাইয়ের ওভারে চারটি সিঙ্গেল এসেছে। ১৫ ওভার শেষে ৬ ওভারে ৬০ রান বাংলাদেশের।

১৬: ৩৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

আফিফের চারে ঘুচল বাউন্ডারি-খরা

এ ম্যাচে বাংলাদেশ কখন বাউন্ডারি মারল-না মারল তা নিয়ে সম্ভবত এখন আর কেউ ভাবছেন না! জয়ের সম্ভাবনাই যেখানে শূন্যের কাছাকাছি, উইকেটই যেখানে আছে আর চারটি, সেখানে চার-ছক্কা নিয়ে মাথা ঘামায় কে!

তবে ১৬তম ওভারের শেষ বলে রশিদ খানকে দারুণ শটে এক্সট্রা কাভারে চার মেরেছেন আফিফ। ১১তম ওভারের প্রথম বলে মাহমুদউল্লাহর ২৯ বল পর বাউন্ডারি দেখল বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের ব্যাট।

১৬ ওভারে ৬ উইকেটে ৬৬ রান বাংলাদেশের।

১৬: ৪০, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজের দুই চারের পর আফিফের ছক্কা

আগের ওভারে আফিফের চারে খরা ঘুচেছে, আহমদজাইয়ের করা ১৭তম ওভারের তিন বলে দুই চার মেরেছেন মিরাজ। তৃতীয় বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে, এক বল পর স্কয়ারে। মিরাজকে চার হাঁকাতে দেখে আফিফও বসে থাকলেন না। ওভারের শেষ বলে ছক্কাই মেরে বসলেন!

১৭তম ওভার শেষে ৬ উইকেটে ৮১ রান বাংলাদেশের।

১৬: ৪৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদকে দেখেশুনে ৪ রান

আগের ওভারে আহমদজাইকে আক্রমণ করে ১৫ রান তুলেছিলেন, রশিদ খানের পরের ওভার দেখেশুনে পার করে দিয়েছেন মিরাজ-আফিফ। চারটি সিঙ্গেল এসেছে ওভারে। ১৮ ওভারে ৬ উইকেটে ৮৫ রান বাংলাদেশের। আফিফের রান ২৯ বলে ২৬, মিরাজের রান ২১ বলে ১৭।

১৬: ৫০, ফেব্রুয়ারি ২৩

২০ ওভারে বাংলাদেশ ৮৯/৬

আফিফ-মিরাজের জুটিতে ৪৪ রান হলো। বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই রান তুলছেন দুজন, বলের হিসাবে জুটির স্থায়ীত্ব যে ৫২ বলের।

জয়-পরাজয়ের সমীকরণটা হয়তো এ মুহূর্তে আদিখ্যেতা মনে হতে পারে, সে ক্ষেত্রে জানার জন্যই জেনে রাখতে পারেন—৩০ ওভারে বাংলাদেশের দরকার ১২৭ রান।

১৬: ৫৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজ-আফিফের জুটির অর্ধশতক

নবীর ওভারে এসেছে ৬ রান। ২১ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ৯৫। ওভারের শেষ বলে ১ রান নিয়ে সপ্তম উইকেটে মিরাজ ও আফিফের জুটিতে ৫০ রান হয়ে গেল।

১৬: ৫৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

১০০ পার বাংলাদেশের

গুলবদীনের ওভারের শেষ বলে চার মারলেন আফিফ, তাতেই বাংলাদেশের ইনিংসে ১০০ পার হয়ে গেল। ওভারে ৬ রান নিয়ে ২২ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১০১। আফিফ ৪১ বলে ৩৪ রান নিয়ে অপরাজিত, মিরাজের রান ৩৩ বলে ২৪।

১৭: ১০, ফেব্রুয়ারি ২৩

২৫ ওভার শেষে বাংলাদেশ ১০৭/৬

এখন পর্যন্ত বেশ দেখেশুনে খেলছেন মিরাজ-আফিফ। ক্রিকইনফোর পরিসংখ্যান জানাচ্ছে, দুজনেরই শটের ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রণের হার ৮০ শতাংশের বেশি। তবে হাতে মাত্র ৪ উইকেট থাকায়ই বাংলাদেশের জন্য শঙ্কা, এখান থেকে একজন আউট হলেই বাংলাদেশের ম্যাচে ফেরার আশা এক ফুৎকারে শেষ। একটা ভুল শট, একটু ভুল বোঝাবুঝি, এক মুহূর্তের দ্বিধা...এ সবকে দূরে রেখেই এগোনোর চ্যালেঞ্জ মিরাজ-আফিফের সামনে।

১৭: ১৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

গুলবদীনের ওভারে দুই চার

ওভারের প্রথম বলে আফিফ ফ্লিক করে চার মেরেছেন, শেষ বলে চার এল মিরাজের কাট শটে। ওভারে ৯ রান এসেছে। ২৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১১৬। জয় থেকে ঠিক ১০০ রান দূরে বাংলাদেশ।

আফিফ অপরাজিত ৪১ রানে, মিরাজের রান ৩২।

১৭: ২২, ফেব্রুয়ারি ২৩

আফিফের লেট কাটে কাটল চাপ

গুলবদীনের করা ২৬তম ওভারে ৯ রান এসেছিল, এরপর ২৭তম ওভারটা নবী নিলেন মেডেন। তার পরের ওভারে এসে মুজিবও প্রথম পাঁচ বলে দিয়েছেন মাত্র ১ রান। আফিফ-মিরাজের রানে বাধ দিয়ে চাপে ফেলে উইকেট নেওয়ার চেষ্টা ছিল আফগানদের? ২৮তম ওভারের শেষ বলে আফিফের লেট কাটে সে পরিকল্পনা আপাতত ধাক্কা খেয়েছে। স্লিপে ফিল্ডার ছিল, কিন্তু আফিফের দারুণ পরিমিত শট স্লিপকেও ফাঁকি দিয়ে বাউন্ডারির বাইরে।

পরের ওভারে নবীর বলে একটি ডাবল ও তিনটি সিঙ্গেলে ৫ রান তুলে নিয়েছেন আফিফ-মিরাজ। ২৯ ওভারে ৬ উইকেটে ১২৬ রান বাংলাদেশের। আফিফের রান ৪৬, মিরাজের ৩৭।

১৭: ২৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

৩০ ওভারে বাংলাদেশ ১৩০/৬

সপ্তম উইকেটে আফিফ-মিরাজের জুটিতে ১১২ বলে ৮৫ রান হয়ে গেল। অর্ধশতক পেতে আফিফের আর দরকার ১ রান, মিরাজ অপরাজিত ৩৮ রানে।

১৭: ২৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

ফ্লাডলাইটের আলো নিয়ে আম্পায়াররা সন্তুষ্ট নন বলে আপাতত খেলায় বিরতি 

বিরতিটা বাংলাদেশের দুই ব্যাটসম্যানের জন্য হয়তো খুব একটা ভালো হলো না। দারুণ ছন্দ ধরে রেখে খেলছিলেন দুজন, হিসেবী আগ্রাসন ছিল তাঁদের ব্যাটে। কিন্তু হঠাৎ পাওয়া এই অপ্রত্যাশিত বিরতি আফিফ ও মিরাজের মনোযোগ নাড়িয়ে দেয় কি না, সেটিই শঙ্কা হতে পারে বাংলাদেশের জন্য। আফিফ অর্ধশতক থেকে মাত্র ১ রান দূরে ছিলেন।

১৭: ৪২, ফেব্রুয়ারি ২৩

আফিফের অনবদ্য অর্ধশতক

বিরতি থেকে ফেরার পর দ্বিতীয় বলেই রশিদকে কাট করে ১ রান নিলেন আফিফ, হয়ে গেল তাঁর অর্ধশতক। অষ্টম ওয়ানডেতে গড়ানো ক্যারিয়ারে প্রথম অর্ধশতক তাঁর।

ওভারে তিন রান নিয়ে ৩১ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ১৩৩ রান বাংলাদেশের।

১৭: ৪৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

ভাগ্যজোরে বেঁচে গেলেন আফিফ  

বাংলাদেশের টপ অর্ডার গুড়িয়ে দেওয়া ফারুকি ফিরেছেন বোলিংয়ে এবং তিনি ফিরতেই বাংলাদেশের উইকেট যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি! যদিও এবার সম্ভাবনাটা ছিল রানআউটের। তৃতীয় বলে মিড অফে রশিদ খানের হাতে বল রেখেই সিঙ্গেল নিয়েছেন আফিফ, তবে রশিদ খানের থ্রো উইকেটে না লাগাতে বেঁচে গেছেন। বল যখন স্টাম্পকে পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছে, তখনো ক্রিজের অনেক বাইরে ছিলেন আফিফ।

ডাইভ দিতে গিয়ে কাঁধে ব্যথাও পেয়েছেন আফিফ। ফিজিও এসে শুশ্রুষা করেছেন তাঁর।

আগের পাঁচ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেওয়া ফারুকি এই স্পেলে ফিরে প্রথম ওভারে দিলেন ২ রান। বাংলাদেশের রান ৩২ ওভারে ৬ উইকেটে ১৩৫।

১৭: ৫৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

মিরাজকে নিয়ে শঙ্কা

রশিদ খানের বলে ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন মিরাজ। ব্যাটে বলে হয়নি, বল চলে যায় উইকেটকিপারের হাতে। একটা আওয়াজ হয়েছে, কিন্তু সেটা কি ব্যাটে-বলে লাগার আওয়াজ নাকি ব্যাট মাটিতে লাগায় এমন আওয়াজ হয়েছে? আফগানদের আবেদনে নিশ্চিত উইকেটের উচ্ছ্বাস ছিল, তবে আম্পায়ার সাড়া দেননি। আগেই একটি রিভিউ হারানো আফগানরা আর রিভিউ নেয়নি।

ওভারে কোনো রান দেননি রশিদ।

১৮: ০০, ফেব্রুয়ারি ২৩

ফারুকির ওভারে এল ৩ রান

তিনটি সিঙ্গেলে এসেছে ফারুকির ওভারে। তাঁকে দেখেশুনেই খেলছেন আফিফ ও মিরাজ। ৭ ওভারে ২৩ রানে ৪ উইকেট নেওয়া ফারুকির আরও তিনটি ওভার বাকি আছে। ৩৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৩৮। আফিফ অপরাজিত ৫৪ রানে, মিরাজের রান ৪০।

১৮: ০৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

ভাগ্যজোরে আউট থেকে বেঁচে চার মিরাজের 

ওভারের পঞ্চম বলে সুইপ করতে গিয়েছিলেন, কিন্তু বল তাঁর ব্যাটের নিচের অংশে লেগে স্টাম্পের পাশ দিয়ে, উইকেটকিপারের পায়ের ফাঁক গলে চলে গেল সীমানার বাইরে। ওভারে ৭ রান এসেছে, ৩৫ ওভারে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৪৫।

১৮: ০৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

১০০ হয়ে গেল আফিফ-মিরাজের জুটির

হিসেবী, নিয়ন্ত্রিত। আগ্রাসন আছে, তবে মাত্রাছাড়া নয়। আবার রানের চাপেও পড়তে দেননি দলকে। এখন পর্যন্ত দারুণ ব্যাটিং করে চলেছেন আফিফ ও মিরাজ। ৪৫ রানে ৬ উইকেট হারানো বাংলাদেশ এখন জয়ের স্বপ্ন দেখতে পারছে তাঁদের কারণেই। ৩৫তম ওভারের পঞ্চম বলে মিরাজের ভাগ্যপ্রসূত চারে এসেছে জুটিতে শতক, তাতে জয় থেকে আর ৭১ রান দূরে বাংলাদেশ।

১৮: ০৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

দারুণ দুই পুল শটে মিরাজের অর্ধশতক

তৃতীয় বলে ইয়ামিন আহমদজাইয়ের খাটো লেংথের বলে দারুণ পুল করে চার মেরেছেন। ওভারের শেষ বলে আবার একই বল, একই শট। প্রথম চারে অর্ধশতক থেকে এক রান দূরে ছিলেন মিরাজ, সে চারে আবার বাংলাদেশের ইনিংসে ১৫০ হয়ে যায়। দ্বিতীয় চারে মিরাজের নিজের অর্ধশতকই হয়ে গেল।

ওভারে ৯ রান নিয়ে বাংলাদেশের রান ৩৬ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫৪।

১৮: ১৪, ফেব্রুয়ারি ২৩

আফিফের আগ্রাসন এখন মিরাজের ব্যাটে

অর্ধশতকে পৌঁছানোর পর আফিফ একটু ধীরলয়ে খেলছেন, এ সময়ে বোলিংয়ে এসেছেন ফারুকি-রশিদরা। আর এ সময়টাতে মিরাজ দায়িত্ব নিয়েছেন আগ্রাসনের। একটা সময়ে ৫৫ বলে ৪৫ রান করা আফিফ এই মুহুর্তে ব্যাট করছেন ৮৪ বলে ৫৮ রান নিয়ে। আর এক সময়ে ৬৮ বলে ৩৯ রান করা মিরাজের রান এই মুহূর্তে ৮০ বলে ৫৪।

৩৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৫৬।

১৮: ১৬, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদ-ফারুকির ওভার বাঁচিয়ে রেখেছে আফগানিস্তান

৩৪তম ওভারের পর রশিদ ও ফারুকি দুজনকেই একসঙ্গে আবার আক্রমণ থেকে সরিয়ে নিয়েছে আফগানিস্তান। দুজনেরই এখনো তিনটি করে ওভার বাকি। এই মুহূর্তে নবীর সঙ্গে ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে মুজিব আর আহমদজাইকে বোলিং করাচ্ছেন আফগান অধিনায়ক শহীদি।

নবীর করা ৩৮তম ওভারে ৫ রান এসেছে। ৩৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৬১।

১৮: ১৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

মুজিবের ওভারে চার রান

মুজিবের করা নবম ওভারের শেষ বলে চার মেরেছেন মিরাজ। ৩৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৬৫। আর ১১ ওভারে ৫১ রান দরকার বাংলাদেশের, কিন্তু বাকি থাকা উইকেটের ঘরে ‘৪’ সংখ্যাটিই যত শঙ্কার কারণ। আফিফ-মিরাজের পর ব্যাট হাতে নামার মতো যে তিনজন, তিনজনই বোলার—শরীফুল, তাসকিন ও মোস্তাফিজ।

১৮: ২০, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪০ ওভার শেষে বাংলাদেশ ১৬৭/৬ 

ইনিংসে মোহাম্মদ নবীর নবম ওভার ছিল এটি। তাতে এসেছে ২ রান। ১০ ওভারে আর ৪৯ রান দরকার বাংলাদেশের, কিন্তু হাতে মাত্র ৪ উইকেট আছে বলে জয়ের একেবারে কাছাকাছি যাওয়ার আগ পর্যন্তও হয়তো স্বপ্ন দেখতে বাধবে বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের।

আফিফ এই মুহূর্তে অপরাজিত ৮৯ বলে ৫৯ রানে, মিরাজের রান ৯৫ বলে ৬৫।

১৮: ২৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদের ওভারে এল ৩ রান

শেষ দুই বলে দুই সিঙ্গেল নিয়ে ওভারে এসেছে ৩ রান। ৫৪ বলে ৪৬ রান দরকার বাংলাদেশের।

১৮: ২৯, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪৮ বলে দরকার ৪৪ রান

নবীর ওভারে দুটি সিঙ্গেল এসেছে। বাংলাদেশের রান ৪২ ওভারে ৬ উইকেটে ১৭২। নবীর ১০ ওভার শেষ। কোনো উইকেট পাননি তিনি, এক মেডেন নিয়ে দিয়েছেন ৩২ রান। বাকি আট ওভারের মধ্যে ফারুকির তিনটি ও রশিদ খানের দুটি ওভার বাকি। মুজিবের বাকি একটি ওভার।

১৮: ৩৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদের ওভারে এল ৬ রান

ওভারের শেষ বলে দারুণ পুল করে চার মেরেছেন আফিফ। ৩৯ বল পর ইনিংসে বাউন্ডারির দেখা পেয়েছেন তিনি। বাংলাদেশের রান ৪৩ ওভারে ৬ উইকেটে ১৭৮।

১৮: ৩৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

জুটির রেকর্ডের পর আফিফের চার

ফারুকির প্রথম তিন বলে এসেছে তিন সিঙ্গেল। তাতেই সপ্তম উইকেট জুটিতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জুটির রেকর্ড গড়ে ফেললেন আফিফ ও মিরাজ। ওভারে তৃতীয় সিঙ্গেলেই দুজনের জুটিটা হয়ে গেছে ১৩৬ রানের।

রেকর্ড হওয়ার এক বল পর রেকর্ডের উদ্‌যাপনেই কিনা, ফারুকির ফুল টসে লং অফে চার মারলেন আফিফ। ওভারে ৭ রান নিয়ে ৪৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ১৮৫।

১৮: ৪১, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪৫ ওভার শেষে বাংলাদেশ ১৮৭/৬

মুজিবের দশ ওভার শেষ হয়ে গেল। দশম ওভারে মুজিব দিয়েছেন ২ রান। ১০ ওভারে ৩২ রানে ১ উইকেট তাঁর। আর ৫ ওভারে বাংলাদেশের দরকার ২৯ রান।

১৮: ৪৮, ফেব্রুয়ারি ২৩

শেষদিকে আবার আগ্রাসনের ব্যাটন আফিফের হাতে

৪২ ওভার শেষেও মিরাজের রান ছিল ১০০ বলে ৬৭, আফিফের ৯৪ বলে ৬১। ৪৩তম ওভারের শেষ বলে রশিদকে চার মেরে আফিফের ৩৯ বলের বাউন্ডারি-খরা ঘুচেছে। এরপর থেকেই আফিফই আগ্রাসনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

ফারুকির আগের ওভারে (৪৪তম ওভারে) একটি চার মেরেছেন। এরপর ৪৬তম ওভারে আবার ফারুকি বোলিংয়ে এলেন, তাঁর প্রথম বলে চার মারার পরের বলে আফিফ নিয়েছেন ২ রান। মাঝে একটা ওয়াইড দিলেন ফারুকি, পরের বলে আবার আফিফ মেরেছেন চার।

ওভারের চতুর্থ বলে আফিফের বিরুদ্ধে ক্যাচের আবেদনে তুলে আম্পায়ারের সাড়া না পেয়ে পরে রিভিউ নেয় আফগানিস্তান, কিন্তু রিভিউতে ব্যর্থ হয়। শেষ দুই বলে এল দুটি সিঙ্গেল, তাতে বাংলাদেশের ইনিংসে ২০০ রান হয়ে গেছে! ১৩ রান এসেছে ওভারে।

আফিফ ১০৯ বলে ৮৩ রানে অপরাজিত, মিরাজের রান ১০৯ বলে ৭২।

১৮: ৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

রশিদের শেষ ওভারে ১ রান

অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা ওভারই ছিল। রশিদ খানের শেষ ওভার বলে কথা! সেটি দেখেশুনে পার করে দিলেন আফিফ-মেহেদী। ১ রান এসেছে ওভারে। ৪৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ২০১।

১৮: ৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪৮তম ওভার শেষে বাংলাদেশের দরকার আর ৪ রান 

ফারুকির প্রথম বলেই চার মারলেন মিরাজ। অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ড্রাইভে ব্যাকপয়েন্ট পয়েন্ট সীমানার বাইরে বল পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি। আর ১৫ বলে দরকার ১১ রান।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে কোনো রান আসেনি। তৃতীয় বলে দারুণ দৌড়ে তিন রান নিয়েছেন আফিফ ও মিরাজ।

পঞ্চম বলে ফাইন লেগ দিয়ে চার আফিফের! আর ১৩ বলে ৪ রান দরকার বাংলাদেশের!

অবিশ্বাস্য ব্যাটিং আফিফ-মিরাজের! অবিশ্বাস্য জয়ের খুব কাছে বাংলাদেশ।

১৮: ৫৭, ফেব্রুয়ারি ২৩

৪৯তম ওভার, গুলবদীন

স্ট্রাইকে মিরাজ।

প্রথম বলে কোনো রান হয়নি।

দ্বিতীয় বলে এক রান। আর ৩ রান দরকার বাংলাদেশের।

স্ট্রাইকে আফিফ। তৃতীয় বলে ২ রান। আর ১ রান দরকার বাংলাদেশের।

চতুর্থ বলে রান হয়নি।

পঞ্চম বল... চার মেরে দিলেন আফিফ! জিতে গেল বাংলাদেশ!

১৯: ০৫, ফেব্রুয়ারি ২৩

গল্পটা আফিফ-মিরাজের 

কী অবিশ্বাস্য এক রূপকথা লিখে ফেললেন আফিফ ও মিরাজ!

কেউ ভাবেনি বাংলাদেশ জিতবে! ১৮ রানের মধ্যে যখন লিটন-তামিমের পর মুশফিক আর সাকিবও ফিরে গেলেন, তখন বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে হাসাহাসিই হয়েছে। ৪৫ রানের মধ্যে যখন আরও দুই উইকেট গেল, তখন তো বাংলাদেশের সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ড নিয়ে ঘাঁটাঘাটি শুরু হয়েছে। ২১৬ রানের লক্ষ্য? ও নিয়ে তখন কে ভাবে!

ভাবতে বাধ্য করলেন আফিফ-মিরাজ।

দেখেশুনে খেলেছেন, কিন্তু কখনোই রানরেট নাগালের বাইরে যেতে দেননি। মিরাজ খেললেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সেরা ইনিংস, ৮ ওয়ানডের ক্যারিয়ারে প্রথম অর্ধশতককেই স্মরণীয় বানিয়ে রাখলেন আফিফ। বাংলাদেশ এক শ পেরোলো, দেড় শ, দুজনের জুটিতে এক শ হলো। দুজনের জুটি রেকর্ডই গড়ল।

শেষ পর্যন্ত অবিশ্বাস্য রূপকথায় শেষ শব্দ হয়ে এল আফিফের ব্যাটের চার। ৭ বল হাতে রেখেই জিতে গেল বাংলাদেশ।