বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসেই পন্ত স্বীকার করে নিয়েছেন ভুলটা, ‘সকালের উইকেট কিছুটা নরম ছিল। কিন্তু টস নিয়ে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, সেটি সবার। আমরা অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছি। টসের পর যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, সেটি ভুল হোক আর ঠিক হোক, অধিনায়কের সঙ্গেই থাকতে হবে সবাইকে। আমরা যা করেছি, তার চেয়ে অনেক ভালো কিছু করতে পারতাম। তাই বলে টসের সিদ্ধান্তটা ঠিক ছিল কি না, এ নিয়ে তো পড়ে থাকা যায় না।’

ইংল্যান্ডের বোলিংয়ের প্রশংসা না করে আসলে কোনো উপায়ই নেই পন্তের, ‘ইংলিশ বোলাররা ঠিক জায়গায় বল করে সাফল্য পেয়েছে।’

default-image

কাল আট ম্যাচ পর টসে জিতেছিলেন কোহলি। টসে জিতেই একটা তৃপ্তির আভা খেলে গিয়েছিল তাঁর চোখমুখে। উইকেটে ছোট করে কাটা ঘাস তাঁর টস জিতে ব্যাটিং নেওয়ার সিদ্ধান্তে বড় ভূমিকা রেখেছে। কিন্তু জিমি অ্যান্ডারসন যে বোলিং করলেন, তাতে ভারতীয় সমর্থকেরা তো বটেই, কোহলি নিজেও বোধ হয় নিজের সিদ্ধান্তকে শাপশাপান্ত করেছেন। সিদ্ধান্তটা যে ভুল ছিল, অ্যান্ডারসন চোখে আঙুল দিয়ে সেটি বুঝিয়ে দিয়েছেন। ভারতও শেষ পর্যন্ত অল্প রানে গুটিয়ে যাওয়ায় হাহাকারের মাত্রাটা আরও বেড়েছে কোহলির। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের কোনো ইনিংসে এটি ভারতের তৃতীয় সর্বনিম্ন সংগ্রহ।

ভারতের ধসে পড়া ব্যাটিং নিয়ে পন্ত সেই ‘ভুল থেকে শেখা’র পথেই হেঁটেছেন, ‘এটা খেলারই অংশ। প্রত্যেক ব্যাটসম্যানই তাদের শতভাগ দিতে চেয়েছে। কিন্তু হয়তো কোনো কারণে ফল আসেনি। সকালে ইংলিশ বোলাররা ঠিক জায়গায় বল ফেলে সাফল্য পেয়েছে। আমরা যা করেছি, তার চেয়ে অনেক ভালো করার সামর্থ্য আমাদের ছিল। এখন কী আর করা, ভুল থেকে শিখতে হবে। লড়াইটা করে যেতে হবে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন