৩১ মে, ১৯৯৯। নর্দাম্পটনে বাংলাদেশের ‘পাকিস্তান-বধ’। টাইগারদের সেবারের বিশ্বকাপ অভিযান শেষ ওখানেই। তবে পরের বছর বাংলাদেশের টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তিতে ওই জয়ের ভূমিকা ছিল অনেক। বাংলাদেশের দেখানো পথেই এবার এগোতে চায় আয়ারল্যান্ড। ক্রিকেটের বড় মাছ শিকার অবশ্য আয়ারল্যান্ডের কাছে নতুন কিছু নয়। ২০০৭ সালে পাকিস্তানকে তো বিশ্বকাপ থেকেই বিদায় করে দিয়েছিল তারা। আর গত বিশ্বকাপে কেভিন ও’ব্রায়েনের দ্রুততম সেঞ্চুরিতে করেছিল ইংল্যান্ড-বধ। এবারের বিশ্বকাপেও আইরিশদের আশা বড় কোনো অঘটনের, যাতে টেস্ট স্ট্যাটাসের দাবিটা জোরালো হয় আরও। অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড আশাবাদী দলকে নিয়ে, ‘বিশ্বকাপে আমাদের দারুণ কিছু পারফরম্যান্স আছে। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে আরও বেশি সাফল্য না চাওয়ার তো কোনো কারণ নেই।’ সাবেক ইংল্যান্ড অধিনায়ক পল কলিংউডও বলছেন, আয়ারল্যান্ড প্রতিপক্ষ দলগুলোর জন্য হুমকির কারণ হতে পারে, ‘তারা সব সময়ই একটা সুগঠিত দল। অনেক খেলোয়াড়ের কাউন্টি খেলারও অভিজ্ঞতা রয়েছে। সুতরাং, আপনি ধরে নিতেই পারেন তারা বাকি দলগুলোর জন্য অসুবিধা তৈরি করবে।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন