ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে কথা বলেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।
ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে কথা বলেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।প্রথম আলো ফাইল ছবি

অবশেষে মুখ খুললেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ঘরের মাঠে গত জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে কথা বললেন এই প্রথম। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর টিভিকে দেওয়া পাঁচ পর্বের এক সাক্ষাৎকারের প্রথম পর্বে আজ মাশরাফি বলেছেন, তিনি এখনো অপেক্ষায় আছেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সঙ্গে কফি খেতে বসার।

কফির দাওয়াতটা মাশরাফিকে নাকি ডমিঙ্গোই দিয়ে রেখেছেন। সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেন, ‘রাসেল আমাকে এক কাপ কফির দাওয়াত দিয়েছিলেন। তিনি আমাকে প্রস্তাবটা দিয়েছিলেন পাকিস্তান সিরিজের আগে। তখন বোর্ডে ডেকেছিলেন আমাকে। আমি তাঁকে বলেছি, তোমার যে পরিকল্পনা, আমাকে বাদ দিলেও জানিও। না বাদ দিলেও জানিও। যেন আমি মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে পারি।’

পরিসংখ্যান বের করে দেখুন আমার কোনো ফিটনেস পরীক্ষায় ফেল আছে কি না। ২০০১ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত কোনো ফিটনেস পরীক্ষায় আমি ফেল করিনি।’
মাশরাফি বিন মুর্তজা
বিজ্ঞাপন
default-image

মাশরাফিকে দল থেকে বাদ দেওয়ার প্রধান কারণ হিসেবে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান ফিটনেসের কথাই বলেছিলেন তখন। সাক্ষাৎকারে সেই ফিটনেস প্রসঙ্গেও মাশরাফি দিলেন কড়া জবাব, ‘পরিসংখ্যান বের করে দেখুন আমার কোনো ফিটনেস পরীক্ষায় ফেল আছে কি না। ২০০১ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত কোনো ফিটনেস পরীক্ষায় আমি ফেল করিনি।’

মাশরাফির অভিযোগ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের দল থেকে বাদ দেওয়ার ব্যাপারে তাঁর সঙ্গে নাকি বিসিবি কোনো আলোচনাই করেনি। মাশরাফি প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের ফোন পেয়েছেন ঠিকই, কিন্তু দলে থাকা বা না থাকা নিয়ে কোনো কথা বলেননি, ‘এ বিষয়ে আমাদের আলোচনা হয়নি। নান্নু (মিনহাজুল আবেদীন) ভাই আমাকে ফোন দিয়েছিলেন। কিন্তু এই বিষয়ে কথা হয়নি। আমি অন্তত কিছুটা সত্য কথা আশা করেছিলাম।’

মাশরাফির এই সাক্ষাৎকার একাত্তর টিভি দেখাবে চার পর্বে। জানা গেছে, পরের তিন পর্বেও থাকতে পারে বাংলাদেশের ক্রিকেট এবং ক্রিকেট বোর্ড নিয়ে আরও বোমা ফাটানো কথা।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন