ডানেডিনের বাজে পারফরম্যান্সের দুঃস্বপ্ন ক্রাইস্টচার্চে ভুলতে চায় বাংলাদেশ।
ডানেডিনের বাজে পারফরম্যান্সের দুঃস্বপ্ন ক্রাইস্টচার্চে ভুলতে চায় বাংলাদেশ।ছবি: এএফপি

নির্মম একটা দিনই কাল কাটিয়েছে বাংলাদেশ। ডানেডিনে প্রথম ওয়ানডেতে কিছুই পক্ষে যায়নি। ব্যাটিং ছিল ছন্নছাড়া—১৩২ রানে অলআউট হয়ে তো আর লড়াইয়ের আশা করা যায় না। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে তাই আরও একটি ‘ভুলে যাওয়া’র স্মৃতিই যুক্ত হলো বাংলাদেশের ক্রিকেটে। আজ ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছে সবকিছু নতুন করে শুরু করার আকুতিই থাকল সবার মধ্যে। দলের প্রতিনিধি হয়ে সেটি জানিয়েছেন শেখ মেহেদী হাসান। তিনি মনে করেন ডানেডিনে যে বাংলাদেশকে সবাই দেখেছে, দলটা আসলে তেমন নয়।

ক্রাইস্টচার্চ থেকে বিসিবির পাঠানো এক অডিও বার্তায় তিনি বলেছেন, ‘আসলে আমাদের দলটা এমন নয়। ওটা একটা বাজে দিন ছিল। আমরা কেউই ভালো করতে পারিনি। সুতরাং এটা আমরা ভুলে যেতে চাই।’

বিজ্ঞাপন

ডানেডিনের স্মৃতি ভুলে সামনে তাকানোর কথাই বলেছেন দেশের হয়ে ১টি ওয়ানডে আর ৪টি টি–টোয়েন্টি খেলা এই স্পিনিং অলরাউন্ডার, ‘আমাদের পরের ম্যাচের দিকে মনোযোগ দিচ্ছি। ইনশা আল্লাহ আগের চেয়ে অনেক ভালো হবে। দলের সবাই ভালো আছে। সবাই মিলে পারফর্ম করলে নিশ্চয়ই আমরা ভালো করব।’

ডানেডিনের ইউনিভার্সিটি ওভালে ৪১.৫ ওভার পর্যন্ত কোনোমতে টিকেছে বাংলাদেশের ইনিংস। অধিনায়ক তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা ব্যর্থ দলকে বড় সংগ্রহ এনে দিতে পারেননি। উইকেটে বাউন্স পড়তেও ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ট্রেন্ট বোল্টের গতির কোনো উত্তর জানা ছিল না ব্যাটসম্যানদের। অথচ সেই উইকেটই নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের সময় হয়ে গেল পুরোপুরি ব্যাটিংবান্ধব উইকেট। নিউজিল্যান্ডের আরেকটি সফরের প্রথম ম্যাচ উপহার দিয়েছে আরও একটি বড় দীর্ঘশ্বাস।

গতকালকের ম্যাচটা যে নির্মম সত্য হয়ে এসেছে। পেসবান্ধব উইকেটে ফুটে উঠেছে ক্রিকেটারদের সামর্থ্যহীনতা। সেটিই ক্রাইস্টচার্চে বদলে দিতে চান ক্রিকেটাররা। মেহেদী সেটিই সবাইকে জানালেন।

default-image

ক্রাইস্টচার্চ ২০১৯ সালে দুঃস্বপ্ন হিসেবে এসেছিল। মসজিদে বন্দুকধারীর সেই হামলা থেকে কোনোমতে বেঁচে ফিরেছিলেন ক্রিকেটাররা। ২৩ মার্চ দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সেই ক্রাইস্টচার্চকেই ঘুরে দাঁড়ানোর মঞ্চ বানান ক্রিকেটাররা। সবার প্রত্যাশা তেমনই।

বাংলাদেশ দলের ব্যাটিংয়ের সময় উইকেট বোলিংবান্ধব। প্রতিপক্ষের ব্যাটিংয়ের সময় সে উইকেট-ই কিনা ব্যাটিংবান্ধব! এ পুরোনো রসিকতা।

কিন্তু বাংলাদেশ দল খেলতে নামলে এই পুরোনো কথাই রসিকতার নির্মম চাবুক হয়ে কশাঘাত করে। আজও সেটিই হলো ডানেডিনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে।

ইউনিভার্সিটি ওভালে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪১.৫ ওভার পর্যন্ত টিকেছে বাংলাদেশের ইনিংস। স্কোরবোর্ডে রান উঠেছে ১৩১। এই রান তাড়া করতে নেমে প্রথম পাঁচ ওভার শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৫২।

পার্থক্য আর কিছুই না, পেসবান্ধব উইকেটে খেলায় দুই দলের ব্যাটসম্যানদের সামর্থ্যের ফারাক। ২১.২ ওভারেই নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটের জয় তুলে নেওয়ার পর এই নির্মম সত্যটা আরও বেশি করে ফুটে উঠেছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন