সময়ের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার যশপ্রীত বুমরা।
সময়ের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার যশপ্রীত বুমরা। ছবি: বিসিসিআই

সময়ের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার ভারতের যশপ্রীত বুমরা। তাঁর মতো একজন বোলার পেয়ে ভারতের বোলিং আক্রমণ যে কতটা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে, সেটা সবারই জানা। বুমরা, মোহাম্মদ শামি, উমেশ যাদব, ইশান্ত শর্মা—এই পেস আক্রমণের হাত ধরে দেশের বাইরেও ভারত এখন টেস্ট, ওয়ানডে সিরিজ জিততে শিখে গেছে। এই পেস আক্রমণের পুরোধা যে বুমরা, সেটা কারও অস্বীকার করার উপায় নেই।

ভারত এবার দক্ষতায় বুমরার চেয়েও ভালো পেসার নাকি পেতে চলেছে! ভারতের সাবেক পেসার আশিস নেহরার ক্রিকেট বিশ্লেষণকে ভালোই বলতে হবে। সেই বিশ্লেষণ মানলে এটা বিশ্বাস করতে হবে যে বুমরার চেয়ে ভালো পেসার পেয়ে গেছে দেশটি।

দক্ষতা, পেস, সুইং, ইয়র্কার—সবকিছু মিলিয়ে পরিপূর্ণ এবং নিখুঁত একজন ফাস্ট বোলারই বলা চলে বুমরাকে। ভারতের পেসারদের মধ্যে দ্রুততম ৫০ উইকেটের মালিকও তিনিই। হরভজন সিং ও ইরফান পাঠানের পর তৃতীয় ভারতীয় বোলার হিসেবে টেস্ট হ্যাটট্রিক আছে তাঁর। নতুন ও পুরোনো বলে সমানতালে বোলিং করতে পারেন বুমরা। রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে তিনি পাওয়ার প্লে আর ডেথ ওভারে একই রকম কার্যকর। সব সংস্করণের ক্রিকেটে সমানতালে বোলিং করতে পারা বোলার বুমরার চেয়ে খুব বেশি নেই বিশ্বে।

বিজ্ঞাপন
default-image

বুমরার সঙ্গে এ মুহূর্তে পাল্লা দেওয়ার মতো পেসার খুব বেশি নেই ক্রিকেট বিশ্বে। দক্ষিণ আফ্রিকার কাগিসো রাবাদা বা অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্সের নাম হয়তো আসতে পারে বুমরার সঙ্গে। এমন একজন বোলারের চেয়ে দক্ষতায় আরও ভালো পেসার কে আছেন এখন ভারতের ক্রিকেটে? ভারতের সাবেক পেসার নেহরাকে বিশ্বাস করলে বুমরার চেয়েও দক্ষতায় ভালো একজন পেসার এখন ভারতের ক্রিকেট একজন সত্যিই আছেন।

সেই পেসার আর কেউ নন, মোহাম্মদ সিরাজ। অভিষেকের পর থেকেই তিনি নাকি নেহরাকে বিস্ময় উপহার দিয়ে যাচ্ছেন। এবারের আইপিএলেও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর হয়ে সবাইকে মুগ্ধ করে যাচ্ছেন সিরাজ। এখন পর্যন্ত খেলা ৪ ম্যাচে ১৮.২০ গড়ে মাত্র ৫টি উইকেট নিলেও নেহরা সিরাজের দক্ষতায় মুগ্ধ। চার-ছয়ের আইপিএল ক্রিকেটেও তাঁর ইকোনমি খুব একটা বেশি নয়—৬.০৬! এটাই হয়তো মুগ্ধ করেছেন নেহরাকে।

default-image

ক্রিকেটবিষয়ক খবরের ওয়েবসাইট ক্রিকবাজে এক ভিডিওতে নেহরা বলেছেন, ‘আপনি যখন দক্ষতার কথা বলবেন, তিন-চার বছর ধরে আমি ভাবছি সিরাজকে নিয়ে। বোলারদের কথা উঠলেই সবাই জসপ্রীত বুমরার কথা বলে। কিন্তু দক্ষতার দিক থেকে আমি মনে করি না সিরাজ বুমরার চেয়ে পিছিয়ে আছে। আর এটা সব সংস্করণেই।’

ভারতের ‘এ’ দল থেকে এরই মধ্যে জাতীয় দলে জায়গা করে নিয়েছেন সিরাজ। ভারতের হয়ে তিন সংস্করণেই অভিষেক হয়ে গেছে ২৭ বছর বয়সী পেসারের। ৫টি টেস্ট খেলে নিয়েছেন ১৬ উইকেট। একটি ওয়ানডে খেলে কোনো উইকেট নেই। আর তিনটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তাঁর উইকেট ৩টি। সিরাজের খুব দ্রুত উন্নতি করা নিয়ে নেহরা বলেছেন, ‘বছর দুয়েক আগে এমন কথা শোনা গিয়েছিল যে ভারত “এ” দলের হয়ে সে প্রতি ম্যাচে লাল বলে ৫-৬টি করে উইকেট নিচ্ছে। আমি তখন এটাই মনে করেছিলাম যে সে লাল বলের ভালো বোলার। হয়তো টেস্টে সে ভালো বোলিং করবে। এখন দেখছি ওর সাদা বলেও ভালো করা খুব সম্ভাবনা আছে।’

বিজ্ঞাপন
default-image

সিরাজকে সব সংস্করণের কার্যকর এক বোলার মনে করেন নেহরা। এখন শুধু তরুণ এই ফাস্ট বোলারকে তাঁর ফিটনেস ধরে রেখে উন্নতি করে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন ভারতের সাবেক পেস বোলার, ‘এমন কিছু বোলার থাকে, যাদের আপনি শুধু টি-টোয়েন্টিতেই নিতে পারবেন। সেদিক থেকে সিরাজ সব সংস্করণের জন্যই খুব ভালো একজন বোলার। দক্ষতার কমতি নেই ওর মধ্যে। ওর মধ্যে সব ধরনের বৈচিত্র্য আছে। আমি তো বলব দক্ষতার দিক থেকে এমনকি ও বুমরার থেকে এগিয়ে। বিশেষ করে বৈচিত্র্যের কথা বললে।’

সিরাজের বোলিংয়ে বৈচিত্র্যগুলো কী, সেটাও বলে দিয়েছেন নেহরা, ‘ওর ভিন্ন রকম একটা স্লোয়ার বল আছে। এ ছাড়া গতিতেও কমতি নেই ওর। নতুন বলে সুইং করাতে পারে। আমি শুধু ওকে বলব ফিটনেস ধরে রাখতে আর চিন্তার জায়গাটা আরও শাণিত করতে। এ দুটি বিষয় যদি ও ঠিকভাবে করতে পারে, তাহলে আকাশই ওর সীমানা!’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন