বিজ্ঞাপন

সময়ের অন্যতম সেরা হলেও টি-টোয়েন্টিতে অবশ্য স্মিথের ব্যাট সেভাবে হাসে না, যেভাবে হাসে টেস্ট কিংবা ওয়ানডেতে। এই মুহূর্তে টি-টোয়েন্টিতে ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে স্মিথ ৪৮তম এবং এটাই তাঁর টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের সেরা র‍্যাঙ্কিং! অথচ টেস্টে স্মিথের র‍্যাঙ্কিং ২, ওয়ানডেতে ১৬।

default-image

এখন পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ২০৯ ম্যাচে ৩০.৬০ গড়ে ৪৪৩৮ রান তাঁর। সর্বশেষ আইপিএলেও ভালো করতে পারেননি। ১৪ ম্যাচে করেছিলেন মাত্র ৩১১ রান। তাঁর অধিনায়কত্বে গত বছরের সেই আইপিএলে লিগে রাজস্থান ছিল সবার পেছনে। সে কারণেই কি না, ৩১ বছর বয়সী অস্ট্রেলিয়ানকে এবার ছেড়ে দিয়েছে রাজস্থান।

সে সুযোগে মাত্র ২ কোটি ২০ লাখ রূপিতে স্মিথকে কিনে নিয়েছে দিল্লি। এত কম দামে স্মিথকে পাওয়ায় ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে নিজের বিস্ময়ও লুকাননি দিল্লির সহ-স্বত্ত্বাধিকারী পার্থ জিন্দাল। স্মিথও কি বিস্মিত? কে জানে! দামটা দেখে হয়তো খুশি হতে পারছেন না এই ব্যাটসম্যান।

আর এত কম দামের কারণেই স্মিথের এবারের আইপিএল খেলা নিয়ে সংশয়ে ক্লার্ক। অস্ট্রেলিয়ার বিগ স্পোর্টস ব্রেকফাস্ট পডকাস্টে ক্লার্কের বিশ্লেষণ, ‘স্টিভ স্মিথের কথা বলছেন...ও বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান না হলেও সেরার চেয়ে খুব একটা পিছিয়েও নেই। বিরাট কোহলি এক নম্বর, তবে স্মিদি-ও (স্মিথ) সেরা তিনেই থাকবে। জানি, টি-টোয়েন্টিতে ওর পারফরম্যান্স ও যতটা ভালো করতে চেয়েছিল, ততটা ভালো হয়নি। গত বছরের আইপিএলেও ও ভালো খেলতে পারেনি। ও যে দামে বিক্রি হয়েছে, সেটা দেখে আমি বেশ বিস্মিত হয়েছি। ৪ লাখ (অস্ট্রেলিয়ান) ডলারেরও নিচে বিক্রি হয়েছে ও, যদিও এই অর্থটা এখনো অনেক।’

অবশ্য এটা শুধুই ক্লার্কের ধারণা। স্মিথ ঠিক এর উল্টোটাই করতে পারেন, সেটাও মাথায় আছে ২০১৫ বিশ্বকাপজয়ী অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়কের

কিন্তু গত মৌসুম পর্যন্তও আইপিএলে প্রায় সাড়ে ১২ কোটি রূপি আয় করা স্মিথের কাছে কি এই অর্থটাকে তেমন লোভনীয় মনে হবে? ক্লার্ক সন্দিহান, ‘ও গত মৌসুমে যা পেত, পাশাপাশি রাজস্থানে ওর ভূমিকা ছিল অধিনায়কের—এসব আপনি যখন হিসাব করবেন, সে ক্ষেত্রে ভারতের প্লেনে ওঠার দিনে ওর ছোটখাটো হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কথা শুনলেও অবাক হবেন না যেন!’

আইপিএলে গেলে যা পাবেন, আর মিস করবেন, সেটারর হিসাবই স্মিথকে চোটের অজুহাত দেখিয়ে আইপিএলে খেলায় নিরুৎসাহিত করতে পারে বলে মনে হচ্ছে ক্লার্কের, ‘আট সপ্তাহের একটা টুর্নামেন্টে যেতে হবে ওকে, টুর্নামেন্টের আগে কোয়ারেন্টিনেও থাকতে হবে। সব মিলিয়ে ধরুন ১১ সপ্তাহ। আমার মনে হয় না ৩ লাখ ৮০ হাজার (অস্ট্রেলিয়ান) ডলারের জন্য ও পরিবার আর সঙ্গিনীর থেকে ১১ সপ্তাহ দূরে থাকতে চাইবে।’

অবশ্য এটা শুধুই ক্লার্কের ধারণা। স্মিথ ঠিক এর উল্টোটাই করতে পারেন, সেটাও মাথায় আছে ২০১৫ বিশ্বকাপজয়ী অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়কের, ‘ও হ্যামস্ট্রিংয়ে টান বা এ জাতীয় চোট দেখিয়ে না যায় কি না, সেটা দেখার বেশ আগ্রহ আমার। আবার উল্টোটাও হতে পারে। ও হয়তো মনে মনে ভাববে, ‘‘আমি অবশ্যই যাব। খেলব। (ভারতের মাটিতে সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া) টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বকাপেও ভালো করব, যাতে আগামী আইপিএল নিলামে আরও বেশি দামে আমাকে কিনে নিতে বাধ্য হয়। আমি সেখানে যাব। টাকার অঙ্ক নিয়ে আমি মাথা ঘামাই না, (টি-টোয়েন্টি স্মিথের সামর্থ্য নিয়ে) মানুষকে ভুল প্রমাণ করব।’’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন