বিশ্বকাপ আর বৃষ্টি—এই দুটি শব্দ পাশাপাশি মানেই দক্ষিণ আফ্রিকার বেদনার গল্প। দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ খেলতে গেছে, সঙ্গী হয়েছে বৃষ্টিও। তবে এবার যন্ত্রণার গল্প নয়। যদিও প্রস্তুতি ম্যাচ, তার পরও জয় সব সময়ই স্বস্তির। ক্রাইস্টচার্চে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা হারিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। নিউজিল্যান্ডের আরেক ভেন্যু লিঙ্কনে বৃষ্টি তো শেষ হতে দিল না একটি ইনিংসই। তবে যতটুকু খেলা হয়েছে, এবারের অন্যতম ফেবারিট নিউজিল্যান্ডকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। আরেক ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৯ উইকেটে উড়িয়ে দিয়ে ইংল্যান্ড বিতর্কজর্জর ক্যারিবিয়ানদের সম্ভাব্য পরিণতির ইঙ্গিতই হয়তো দিল!
সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড এমনিতে ব্যাটিং-স্বর্গ, সঙ্গে স্পিন ধরে খানিকটা। তবে কাল ক্যারিবিয়ানদের গুঁড়িয়ে দিয়েছে ইংলিশ পেসাররা। সেটিও তাদের সবচেয়ে ভয়ংকর দুটি অস্ত্র ছাড়াই। অ্যান্ডারসন-ব্রডকে খেলানো হয়নি, ক্রিস ওকসই ছিলেন যথেষ্ট। ১৯ রানে নিয়েছেন ৫ উইকেট, সঙ্গে স্টিভেন ফিন ২টি, ক্রিস জর্ডান ও রবি বোপারা একটি করে। ক্রিস গেইল ও ড্যারেন ব্রাভো ‘গোল্ডেন ডাক’, কুড়ি ছুঁতে পেরেছেন মাত্র দুজন—লেন্ডল সিমন্স (৪৫) ও ডোয়াইন স্মিথ (২১)। ২৯.৩ ওভারে ১২২ রানে অলআউট লয়েড-রিচার্ডসের উত্তরসূরিরা। ইংল্যান্ড জিতে গেছে শুধু মঈন আলীকে (৪৬) হারিয়েই। ৩৫ রানে অপরাজিত ছিলেন ইয়ান বেল, ২৫ রানে টেলর।
লিঙ্কনে বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত ম্যাচে নিউজিল্যান্ড ৩০.১ ওভারে ১৫৭ ছিল ৭ উইকেটে। এর এক শই একজনের ব্যাটের দান! ৮৬ বলে ১০০ করেছেন মার্টিন গাপটিল। দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন আর শুধু রস টেলর (১১)। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন তিনাশে পানিয়াঙ্গারা ও এলটন চিগুম্বুরা। বিশ্বকাপের ঠিক আগে এটি কিউদের জন্য হতে পারে সতর্কবার্তা।
গাপটিল রানখরা থেকে রানে ফিরছেন। আর তিলকরত্নে দিলশান ভাসছেন রানের স্রোতেই। ক্রাইস্টচার্চে কাল লঙ্কান ওপেনার করেছেন ৮৩ বলে ১০০। অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ৫৮, মিডল অর্ডারে নেমে দিমুথ করুণারত্নে ৪৬। শ্রীলঙ্কার রান যখন ৪৪.৪ ওভারে ৭ উইকেটে ২৭৯, বৃষ্টির বাধা আসে। লঙ্কানরা আর ব্যাটিংয়েই নামতে পারেনি, দক্ষিণ আফ্রিকার লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৫ ওভারে ১৮৮। তিন শর আশপাশে স্কোরের চেয়ে সমীকরণে যেটি খানিকটা হলেও সহজ। হাশিম আমলা ও কুইন্টন ডি ককের ১৫ ওভারে ১১৬ রানের উদ্বোধনী জুটিতেই জয় অনেকটা নিশ্চিত করে ফেলে দক্ষিণ আফ্রিকা। চোট কাটিয়ে ফেরা ডি কক দলকে স্বস্তি দিয়ে ফিরেছেন রানেও, ৫৫ বলে ৬৬। ‘রানমেশিন’ আমলা করেছেন ৪০ বলে ৪৬। দ্রুত রান তাড়ায় পরে ৫ উইকেট হারালেও জয় তাদের ৩ বল আগেই। ক্রিকইনফো।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন