default-image

এমসিজিতে টসে নেমেই ভাগ্যের পরীক্ষায় জয়ী মহেন্দ্র সিং ধোনি। টসে জিতে ব্যাটিং নেওয়ার সিদ্ধান্তটা যে ভুল ছিল না, শিখর ধাওয়ান, অজিঙ্কা রাহানেরা তা প্রমাণ করে দিলেন বেশ ভালোভাবেই। ধাওয়ানের ক্যারিয়ার-সেরা ১৩৭, রাহানের ৭৯ আর কোহলির ৪৬ রানের ইনিংসের ওপর ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৫০ ওভারে স্কোরবোর্ডে ৩০৭ রান তুলেছে ভারত।
ব্যাট করতে নেমে অবশ্য প্রথমেই হোঁচট খায় ভারতীয়রা। স্কোর কার্ডে মাত্র নয় রান যোগ করেই রান আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন রোহিত শর্মা। অন্যপ্রান্তে শিখর ধাওয়ান ছিলেন দারুণ প্রত্যয়ী। বিরাট কোহলিকে সঙ্গে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে গড়ে তোলেন ১২৭ রানের দারুণ এক জুটি। ব্যক্তিগত ৪৬ রানে কোহলি ডু প্লেসিসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে গেলেও থামেননি ধাওয়ান। তৃতীয় উইকেটে আরও একটি বড় রানের জুটি গড়েন ধাওয়ান এবং অজিঙ্কা রাহানে। ১৩৭ রান করে পার্নেলের বলে হাশিম আমলার তালুবন্দী হন শিখর ধাওয়ান। এটি বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। রাহানে ৬০ বল খেলে করেন ৭৯ রান।
ধাওয়ান-রাহানে ফিরে যাওয়ার পর ভারতের উইকেট পড়েছে অবশ্য নিয়মিত বিরতিতেই। শেষের দিকে ধোনির ১৮ ছাড়া দশের ঘর পার হতে পারেননি আর কেউই। তবে ধাওয়ান, রাহানে আর কোহলির গড়ে যাওয়া ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে দলীয় রানটাকে তিনশ পার করতেও কোনো সমস্যা হয়নি ভারতের।
ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের দাপটের দিনে আজ বেশ নিষ্প্রভই ছিল প্রোটিয়াদের বোলিং আক্রমণ। ডেল স্টেইন, জেপি ডুমিনি, মরনে মরকেল - জ্বলে উঠতে পারেননি কেউই। মরকেল নিয়েছেন ২টি উইকেট। স্টেইন , ইমরান তাহির এবং ওয়েইন পারনেল প্রত্যেকে নিয়েছেন একটি করে উইকেট। দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে খরচে বোলার ছিলেন আজ পারনেল। ৯ ওভার বল করে ৮৫ রান দিয়েছেন এই বাঁ হাতি মিডিয়াম ফাস্ট বোলার।
এদিকে ৩০৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে স্কোরবোর্ডে ১২ রান তুলতেই কুইন্টন ডি কককে হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৭ রান করে মোহাম্মদ শামির বলে বিরাট কোহলির হাতে ধরা পড়েছেন তিনি। সূত্র: স্টারস্পোর্টস-১

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন