কোহলির মতোই পারফরম্যান্স ছিল তাঁর দলের।
কোহলির মতোই পারফরম্যান্স ছিল তাঁর দলের।ছবি: আইপিএল

ম্যাচের শেষ দিকে বারবার টেলিভিশন পর্দায় ভেসে উঠছিল বিরাট কোহলির বিষণ্ন চেহারা। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আজ বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর মুখোমুখি হয়েছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস। যে ম্যাচকে অনেকে আইপিএলের স্বপ্নের ম্যাচও বলছিলেন।

ভারতের বিশ্বজয়ের মাঠেই মুখোমুখি হয় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা বেঙ্গালুরু ও দুইয়ে থাকা চেন্নাই। উপভোগ্য এক ম্যাচের আশায় ছিলেন দর্শকেরা। কিন্তু কে জানত, ম্যাচটা হবে এমন একপেশে! সহজেই বেঙ্গালুরুকে ৬৯ রানে হারিয়েছে চেন্নাই।

দুটো দলই যেন এবারের আইপিএলে নিজেদের নতুন করে চেনাচ্ছে। এর আগে কোনো আইপিএলেই বেঙ্গালুরু টানা তিন ম্যাচ জেতেনি। অথচ এই হারের আগপর্যন্ত টানা চার জয় নিয়ে বেঙ্গালুরু ছিল পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। ওদিকে গত আইপিএলে বাজে ফর্মের ধোনির চেন্নাইও এবার নতুন চেহারায় দেখা দিচ্ছে। বেঙ্গালুরুকে হারিয়ে আজ উঠে এল পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। ৫ ম্যাচে দুই দলেরই চার জয়, এক হার। ৮ পয়েন্ট নিয়ে যুগ্মভাবে শীর্ষে দুই দল।

বিজ্ঞাপন
default-image

আজ টসজয়ী চেন্নাই প্রথমে ব্যাট করে ৪ উইকেটে তোলে ১৯১ রান। সে রান টপকানো দূরের কথা, রীতিমতো ধুঁকেছে বেঙ্গালুরু। ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে বেঙ্গালুরু তুলতে পারে ১২২ রান।

চেন্নাইয়ের এমন লড়াকু রানের পুঁজির পেছনে মূল অবদান রবীন্দ্র জাদেজার। ১৯ ওভার পর্যন্তও মনে হয়নি চেন্নাইয়ের রান এত বেশি হতে পারে। ১৯তম ওভার শেষে চেন্নাইয়ের রান ছিল ৪ উইকেটে ১৫৪। শেষ ওভারে জাদেজা হয়ে ওঠেন ভয়ংকর।

এক ওভারেই চেন্নাইয়ের রান ওঠে ৩৭! হর্ষল প্যাটেলের করা ওই ওভারে ৫টি ছক্কা মেরেছেন জাদেজা। ওভারের প্রথম চার বলে চার ছক্কা, পরের বলে নেন দুই রান। পঞ্চম বলে আবারও ছক্কা মারেন, শেষ বলে নেন চার। এর মাঝে তৃতীয় বলটি ছিল নো বল। সব মিলিয়ে ৩৭ রান ওঠে ওই ওভারে। ২৮ বলে ৬২ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে অলরাউন্ডার জাদেজা ছিলেন অপরাজিত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫০ রান ফাফ ডু প্লেসির।

default-image

জবাবে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি বেঙ্গালুরুর ব্যাটসম্যানরা। অধিনায়ক বিরাট কোহলি করেছেন ৭ বলে ৮ রান। স্যাম কারেনের বলে ধোনির হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ভারত অধিনায়ক। দেবদূত পাড়িক্কাল কিছুটা চেষ্টা করেছেন। কিন্তু ১৫ বলে ৩৪ রানে সুরেশ রায়নার হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ার পর শেষ বেঙ্গালুরুর জয়ের স্বপ্ন। এরপর নিয়মিত যাওয়া–আসার মিছিলে ছিলেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, এবি ডি ভিলিয়ার্স, ড্যানিয়েল ক্রিস্টিয়ানরা। ম্যাক্সওয়েল করেন ২২ রান, ডি ভিলিয়ার্স আউট হন মাত্র ৪ রানে!

ব্যাট হাতে বিধ্বংসী জাদেজা বল হাতেও ছিলেন দুর্দান্ত। ৪ ওভারে ১ মেডেনে ১৩ রানের বিনিময়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচসেরার পুরস্কার উঠেছে এই অলরাউন্ডারের হাতে। ইমরান তাহির ২টি, শার্দুল ঠাকুর ও স্যাম কারেন নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন