রুতুরাজে মুগ্ধ ফাফ ডু প্লেসি।
রুতুরাজে মুগ্ধ ফাফ ডু প্লেসি।ছবি: আইপিএল

ভারতীয় ‘এ’ দলে নিয়মিত। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট ও লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে রেকর্ড খারাপ নয়। কিন্তু আইপিএলে পারবেন তো?

২৩ বছর বয়সী মহারাষ্ট্র ব্যাটসম্যান রুতুরাজ গায়কোয়াড়কে নিয়ে এমন শঙ্কা ছিল খোদ চেন্নাই সুপার কিংসের কোচ স্টিভেন ফ্লেমিং আর অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিরই। ব্যাটিং–সামর্থ্য যে আছে, সেটা অনুশীলনেই বোঝা গিয়েছিল। কিন্তু আইপিএলে চাপের মুখে অনেক তরুণই সামর্থ্য ভুলে খেই হারায়। রুতুরাজ কোন ধাতুতে গড়া, সেটা দেখতেই শেন ওয়াটসনকে বিশ্রাম দিয়ে শেষ চার ম্যাচে চেন্নাই টানা সুযোগ দেয় এই তরুণকে। এখন কি চেন্নাইয়ের মনে হচ্ছে যে আরও আগেই সুযোগ দেওয়া উচিত ছিল রুতুরাজকে?

টানা খেলার সুযোগটা রুতুরাজ যখন পেয়েছেন, তত দিনে এবারের আইপিএলের গ্রুপ পর্বে চেন্নাইয়ের বিদায় অনেকটা নিশ্চিত। কিন্তু দলের এই সঙিন অবস্থাতেও বেশ ঔজ্জ্বল্য ছড়ালেন রুতুরাজ। দুই হাতে লুফে নিয়ে টানা তিন ম্যাচে ফিফটি করে বসেন। বুড়োদের দল চেন্নাই যখন আগামী মৌসুম থেকে তরুণদের নিয়ে নতুন করে দল গড়ার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে, তখনই ঋতুরাজ দাঁড়ালেন হাত তুলে। বুঝিয়ে দিলেন, চেন্নাইয়ের ব্যাটিংয়ের ভবিষ্যৎ হতে তিনি প্রস্তুত! এতটাই ভালো খেলেছেন যে তাঁকে কোহলির সঙ্গে তুলনা করেছেন ফাফ ডু প্লেসি।

বিজ্ঞাপন

লিগ পর্বে কাল নিজেদের শেষ ম্যাচে পাঞ্জাবের বিপক্ষে ঋতুরাজের অপরাজিত ৬২ রানের ইনিংসটি চেন্নাইকে মাথা উঁচু করে টুর্নামেন্ট শেষ করতে সাহায্য করেছে। তাঁর সঙ্গে ফাফ ডু প্লেসির দারুণ ইনিংস (৩৪ বলে ৪৮ রান) মিলিয়ে পাঞ্জাবের ১৫৩ রান ৯ উইকেট হাতে রেখেই পেরিয়ে যায় চেন্নাই। এর আগের দুই ম্যাচেও ফিফটি দেখেছিল রুতুরাজের ব্যাট। কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে করেছিলেন ৫৩ বলে ৭২ রান, আর কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে ৫১ বলে ৬৫। তিনটি ম্যাচই জিতেছে চেন্নাই!

এবারের আইপিএলে চেন্নাইয়ের বড় প্রাপ্তি বলতে গেলে রুতুরাজের নামই আসবে সবার আগে। চেন্নাইয়ের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান ফাফ ডু প্লেসিও তরুণ ব্যাটসম্যানের প্রশংসার পঞ্চমুখ। এত দিন ভারতে নতুন কোনো ভালো ব্যাটসম্যান এলে তাঁকে ‘নতুন টেন্ডুলকার’ নাম দেওয়া হতো। কিন্তু রুতুরাজকে নিয়ে ডু প্লেসির ভাবনাটা ভিন্ন। রুতুরাজ নাকি তরুণ বয়সের কোহলির কথা মনে করিয়ে দেন দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যানকে, ‘ওকে তরুণ কোহলির মতো লাগে, তাই না? সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে চাপের মুখে ওর খেলা। তরুণ ক্রিকেটারদের মধ্যে এই গুণটাই আপনি দেখতে চাইবেন। এটাই ওদের পরের ধাপে নিয়ে যাবে।’

শেষটা এত দারুণ হলেও এবারের আইপিএলের শুরুটা ভালো ছিল না রুতুরাজের। আইপিএলের শুরুতেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন তিনি। সুস্থ হতে বেশ সময় লাগে তাঁর। সুস্থ হওয়ার পর নিজের প্রথম দুই ম্যাচে রানের দেখা পাননি। রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে আউট হন ০ রানে, দিল্লি ক্যাপিট্যালসের বিপক্ষে করেন ৫ রান। ফল? দল থেকে আবার বাদ দেওয়া হয় এই তরুণকে। কাল দলের কোচ স্টিভেন ফ্লেমিংও স্বীকার করলেন, ‘ওকে অত দ্রুত খেলানো ঠিক হয়নি। আমরা হয়তো একটু তাড়াহুড়ো করে ফেলেছিলাম।’
কিন্তু রুতুরাজকে বাদ দিয়েও লাভ হয়নি। একে তো দলের পারফরম্যান্স ছিল ছন্নছাড়া, তার ওপর ওপেনিং ডু প্লেসির সঙ্গী অভিজ্ঞ শেন ওয়াটসন দু-এক ম্যাচে আলো ছড়ালেও টুর্নামেন্টের বাকিটা জুড়ে ব্যর্থ। তাই আবার রুতুরাজের ডাক পড়ে দলে। দ্বিতীয় দফায় তাঁর পারফরম্যান্সে তৃপ্ত ফ্লেমিং, ‘পরে ও দেখিয়ে দিয়েছে নিজের সামর্থ্য। খুশি হচ্ছে ওকে ভালো করতে দেখে। ওকে নেটে দেখে আমরা যা ভেবেছিলাম, সেটাই প্রমাণিত হলো।’

বিজ্ঞাপন
default-image

দলের অধিনায়ক এমএস ধোনিও রুতুরাজের প্রশংসা করেছেন, ‘নেটে যখনই ও ব্যাটিং করেছে, সব সময়ই ভালো করেছে। কিন্তু আমরা ওকে খেলাতে পারছিলাম না। এরপর ওর করোনা হলো। ২০ দিন পরও সুস্থ হয়নি। আমাদের সঙ্গে মেশার সময়ই পায়নি। এই জন্যই আমরা শুরুতে ফাফ ও ওয়াটসনকে খেলিয়েছি। কিন্তু এটা কাজে দেয়নি।’
রুতুরাজকে নিয়ে শেষ দিকে জিতলেও আনন্দের চেয়ে এবার আফসোসই বেশি হচ্ছে চেন্নাইয়ের। দল যে বাদ পড়ল গ্রুপ পর্বে! তবে আগামীর স্বপ্ন ঠিকই সাজানো হয়ে গেছে এবার। যে স্বপ্ন দানা বাঁধে রুতুরাজের ব্যাট ঘিরে।

মন্তব্য পড়ুন 0