বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

শ্রেণি-১ এ নির্বাচন হয়েছে রাজশাহী বিভাগে। সেখানে একটি পদের জন্য বিসিবি পরিচালক সাইফুল আলমের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ। কিন্তু প্রথম নির্বাচনের অভিজ্ঞতা সুখকর হলো না সাবেক অধিনায়কের। খালেদ মাসুদ ৭-২ ব্যবধানে হেরেছেন সাইফুলের কাছে।

নির্বাচনে হারলেও ক্রিকেটের উন্নয়নে বোর্ডের বাইরে থেকেও কাজ চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন মাসুদ, ‘কাউন্সিলররা তাকে (সাইফুল) বেশি যোগ্য মনে করেছেন। তাই তাকে ভোট দিয়েছেন। আশা করি তার মাধ্যমে রাজশাহী ও বাংলাদেশের ক্রিকেট উপকৃত হবে। আমি আমার স্বপ্ন নিয়ে এসেছিলাম। কাউন্সিলররা হয়তো তাকে বেশি বিশ্বাস করেছে, এ জন্য ভোট দিয়েছে। ক্রিকেটের সঙ্গে ছিলাম, আরও বড় পরিধিতে কাজ করব—এই চিন্তা করছিলাম। সেই সুযোগটা হয়তো হয় নাই। তবে আমি সব সময় ক্রিকেটের সঙ্গে আছি।’

default-image

একই শ্রেণির কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রতিনিধি আশফাকুল ইসলাম সরে যাওয়ায় ঢাকা বিভাগের নির্বাচন অনেকটাই এক পেশে হয়ে যায়। মানিকগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার নাঈমুর রহমান ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার তানভীর আহমেদ কোনো প্রতিযোগিতা ছাড়াই ১৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

এ ছাড়া শ্রেণি-১ থেকে ৭ জন পরিচালক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁরা হলেন—চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে আকরাম খান, আ জ ম নাসির উদ্দিন, সিলেট থেকে শফিউল আলম চৌধুরী, খুলনার শেখ সোহেল, কাজী ইনাম ও বরিশালের আলমগীর খান ও রংপুর থেকে আনোয়ারুল ইসলাম।

default-image

শ্রেণি-২ এর ক্লাব কোটা থেকে ১২ জন পরিচালকের পদে নির্বাচন করেছেন ১৫ জন প্রার্থী। সেখান থেকে নির্বাচিত হয়েছেন নাজমুল হাসান, গাজী গোলাম মুর্তজা, নজিব আহমেদ, মাহবুব আনাম, ওবেদ রশীদ নিযাম, ইসমাইল হায়দার, এনায়েত হোসেন, ফাহিম সিনহা, ইফতেখার রহমান, মনজুর কাদের, মনজুর আলম ও সালাউদ্দিন চৌধুরী। আব্দুর রহমান, সাইফুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম ভোটের লড়াইয়ে হেরে গেছেন।

এছাড়াও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি) থেকে মনোনীত হয়ে আসছেন জালাল ইউনুস ও আহমেদ সাজ্জাদুল আলম।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন