বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বিসিবির প্রধানের দায়িত্ব যে ব্যক্তিগত জীবনে এতটা প্রভাব ফেলবে, তা নাজমুল হাসানেরও জানা ছিল না। তিনি বলছিলেন, ‘আমার একটা খারাপ দিক হলো বাংলাদেশ হারলে আমি মেনে নিতে পারি না। বাংলাদেশ হারলে অনেক মেজাজ খারাপ হয়। আমার বউ-বাচ্চা কেউ আমার সামনে আসে না। এতটা খারাপ লাগে...। এটা আসলে অনেক বেশি সময় নিয়ে নিচ্ছে, যা নিয়ে আমার আগে ধারণা ছিল না।’

মাঝের এক বছর নাজমুল হাসান মাঠের ক্রিকেটীয় সিদ্ধান্তের সঙ্গে একটু কমই সম্পৃক্ত ছিলেন। সম্প্রতি আবার সেটা বাড়িয়েছেন। আর তাতেই নাকি চাপ বাড়ছে নিজের ওপর, ‘ক্রিকেটটা অনেক বেশি সময় নিয়ে নিচ্ছে। জালাল (বিসিবি পরিচালক জালাল ইউনুস) ভাই গিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড, (বিসিবি পরিচালক আহমেদ সাজ্জাদুল আলম) ববি ভাই গেলেন জিম্বাবুয়ে; ওনারা জানেন। সব সময় খেলা তো দেখেছিই, এর বাইরেও সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নিয়েছি। সবার খোঁজ নেওয়া, দল নিয়ে কথা বলা—আসলে এসব অনেক সময় নিয়ে নিচ্ছে আমার।’

default-image

২০১৭ সালে দ্বিতীয় দফায় বিসিবির সভাপতি নির্বাচিত হন নাজমুল হাসান, যার মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে আগামী মাসেই। এর আগে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে হওয়ার কথা বোর্ড সভা, যেখানে নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা। বাতাসে যদিও গুঞ্জন আছে, নাজমুল হাসান আরও এক মেয়াদে বোর্ড সভাপতি হিসেবে থেকে যাবেন, কিন্তু আজ তাঁর কথায় পাওয়া গেল অন্য সুর, ‘সামনের বোর্ড সভার পর আপনারা একটু ভিন্নতা পাবেন। অন্যান্যবারের মতো নয়। আমি এটাই প্রস্তাব করব (তিনি বোর্ড সভাপতি থাকতে চান না)। তবে জানি না, এটা গ্রহণযোগ্য হবে কি না।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন