default-image

দিন শেষে সুনীল গাভাস্কারকে প্রশ্ন করেছিলেন সঞ্জয় মাঞ্জরেকার—টেস্টটা কোন দিকে হেলে আছে? গাভাস্কার এগিয়ে রাখলেন অস্ট্রেলিয়াকে। একই কথা বললেন সৌরভ গাঙ্গুলীও। তবে তাঁর ধারণা, লক্ষ্য যত বড়ই হোক ভারত তাড়া করবে। সৌরভের যুক্তি, সিরিজে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে আছে ভারত। ড্র করা মানেও সিডনিতে যাওয়ার আগেই স্টিভেন স্মিথকে বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফি দিয়ে দেওয়া। একমাত্র ভারতের জয়ই পারে সিরিজটা বাঁচিয়ে রাখতে। মহেন্দ্র সিং ধোনির দল শেষ চেষ্টা অবশ্যই করবে।
একই আভাস অবশ্য আগের দিনের শেষে সৌরভের সঙ্গে কথা বলার সময় বিরাট কোহলিও দিয়েছেন। তবে আপাতত সেটা একটু কঠিনই মনে হচ্ছে। প্রথম ইনিংসে ভারত ৪৬৫ রানে অলআউট হয়ে যাওয়ার পর মেলবোর্নে চতুর্থ দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার রান ৭ উইকেটে ২৬১। হাতে ৩ উইকেট নিয়ে ৩২৬ রানের লিড। আজ সকালে আরও কিছুক্ষণ ব্যাট করতে পারে অস্ট্রেলিয়া। তাতে শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যটা যা-ই হোক ভারতের সামনে, সেটা তাড়া করা সহজ হবে না মোটেও। গাভাস্কার তো বলেই দিয়েছেন, শেষ দিনে অসাধারণ কিছু করতে হবে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের। যেটা কোহলি-রাহানে করেছিলেন প্রথম ইনিংসে। ওদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে, বৃষ্টি কিছুটা বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে আজও। কোহলি-জনসনের আগের দিনের বাগ্যুদ্ধের রেশ কালও দেখা গেছে মাঠে, দেখা যেতে পারে আজও। মেলবোর্ন তাই শেষ দিনের জন্য জমিয়ে রেখেছে অনেক নাটকীয়তাই।
আগের দিনের ৪৬২ রানের সঙ্গে আর মাত্র ৩ রান যোগ করেই কাল সকালে অলআউট হয়ে গেছে ভারত। শেষ দুটি উইকেটই নিয়েছেন মিচেল জনসন। ব্যাট করতে নেমে ডেভিড ওয়ার্নার আর ক্রিস রজার্সের ওপেনিং জুটি তোলে ৫৭ রান। এ বছর এই নিয়ে ষষ্ঠবারের মতো পঞ্চাশ ছাড়ানো জুটি গড়লেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনাররা। এ বছর তাদের চেয়ে বেশি পঞ্চাশ ছাড়ানো জুটি গড়েছেন শুধু ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপেনাররা, ৮ বার।
তখন অবশ্য অস্ট্রেলিয়ার চোখে অনেক বড় লিডেরই স্বপ্ন ছিল। কিন্তু শেন ওয়াটসন ব্যর্থ হলেন আরও একবার। সিরিজে নিজের সর্বনিম্ন ইনিংসটা খেললেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা স্টিভেন স্মিথ। লেগ স্লিপে তাঁর দারুণ ক্যাচটা নিয়েছেন অজিঙ্কা রাহানে। অভিষিক্ত জো বার্নস ফিরে যান দুই অঙ্কে পৌঁছানোর আগেই। মিডল অর্ডারের এই ধাক্কাটা শন মার্শ সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন ব্র্যাড হাডিন আর জনসনকে নিয়ে। কিন্তু দুজনের কেউই বেশিক্ষণ তাঁকে সঙ্গ দিতে পারেননি। মোহাম্মদ সামির বাউন্সারে রাহানের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরার পথে কোহলির বাক্যবাণও হজম করতে হয়েছে জনসনকে। নিয়মিত উইকেট পড়ায় কমে যায় অস্ট্রেলিয়ার রান তোলার গতিও। দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার রানরেট মাত্র ৩.৪৮। অথচ এই সিরিজে আগের পাঁচ ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার রান রেট ছিল ৪.৩, ৪.২, ৪.৬, ৫.৬ ও ৩.৭। তবে দিন শেষে ৬২ রানে অপরাজিত মার্শ আশা যোগাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়াকে। আজ সকালে ভারতের বড় দুশ্চিন্তাও হতে পারেন তিনিই। স্টার স্পোর্টস, ক্রিকইনফো।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন