বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রোববার নিজেদের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে নিউজিল্যান্ড। ৪ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট পাওয়া পাকিস্তান সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে আগেই। এই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে সেমিতে ওঠার লড়াই চলছে এখন। নিউজিল্যান্ড সে লড়াইয়ে এগিয়ে রইল বেশ খানিকটা পথ। ৪ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট পাওয়া আফগানিস্তান আছে টেবিলের তিনে।

এবারই প্রথম টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে আসা নামিবিয়ার ব্যাটিংয়ে শুরুটা ভালোই ছিল রান তাড়ায়। ৭.২ ওভারে মাইকেল ফন লিনগেন (২৫) আউট হওয়ার আগে ওপেনিং জুটিতে ওঠে ৪৭ রান। লিনগেন জিমি নিশামের বলে বোল্ড হন। পরের ওভারেই আরেক ওপেনার স্টিফেন বার্ডকে (২১) তুলে নেন স্পিনার মিচেল স্যান্টনার। নামিবিয়ার হড়কে যাওয়ার এখানেই শেষ নয়।

default-image

পরের ওভারেই (৯.২) সবচেয়ে বড় ধাক্কাটা খায় নামিবিয়া। ৩ রান করা নামিবিয়া অধিনায়ক গেরহার্ড এরাসমাসকে তুলে নেন কিউই লেগ স্পিনার ইশ সোধি। টানা তিন ওভারে তিন উইকেট হারানো (৩/৫৫) নামিবিয়া এরপর ম্যাচে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি।

জয়ের জন্য শেষ ৫ ওভারে ৭৮ রান দরকার ছিল তাদের। জেন গ্রিন তখন উইকেটে থাকলেও ডেভিড ভিসা (১৬) আগেই আউট হয়ে যাওয়ায় লড়াই চালিয়ে যেতে পারেনি নামিবিয়া। ২০ ওভার খেললেও জয়ের পথ থেকে আগেই ছিটকে পড়েছিল আফ্রিকার দলটি। ২টি করে উইকেট টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্টের।

তার আগে নিউজিল্যান্ড নিজেদের শক্তি অনুযায়ী ব্যাটিংয়ে ভালো করতে পেরেছে—তা বলা যায় না। ৪.১ ওভারে ৩০ রানে ভেঙেছে ওপেনিং জুটি। ১৮ বলে ১৭ রান করে আউট হন আগের ম্যাচের নায়ক মার্টিন গাপটিল। এক ওভার পর আরেক ওপেনার ড্যারিল মিচেলও (১৯) ফিরে যান।

default-image

দুটি জুটিতে ভালো সংগ্রহ পেয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। তৃতীয় উইকেটে ৩৫ বলে ৩৮ রানের জুটি গড়েন ডেভন কনওয়ে ও কেইন উইলিয়ামসন। পঞ্চম উইকেটে ৩৬ বলে ৭৬ রানের অবিচ্ছিন্ন ঝোড়ো জুটিতে ইনিংস শেষ করেন জিমি নিশাম ও গ্লেন ফিলিপস। ২৩ বলে ৩৫ রানে অপরাজিত ছিলেন নিশাম। ২১ বলে ৩৯ রানে অন্য প্রান্ত ধরে রাখেন ফিলিপস। নামিবিয়ার হয়ে ১৫ রানে ১ উইকেট নেন বের্নাড শুলজ।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন