বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শতকের দিকে ছুটছেন মুমিনুল, অপরাজিত আছেন ৮৮ রানে। অন্য প্রান্তে লিটন ব্যাট করছেন ৭৬ রানে। পঞ্চম উইকেটে দুজনের জুটি হয়ে গেছে ১৫৭ রানের। ১৩৭ ওভারে রবীন্দ্রর বলে মুমিনুলের চারে জুটিতে দেড় শ রান এসেছে।

চা বিরতির আগে শেষদিকে বেশ হিসেবী ব্যাটিং করেছিলেন লিটন ও মুমিনুল। দ্বিতীয় সেশনের শেষদিকে ওই সময়টুকুতে সেশনের শেষ ১১ ওভারে কোনো বাউন্ডারি নেয়নি বাংলাদেশ, ওই ১১ ওভারে রানও এসেছে ১৯।

কাগজে-কলমে বাংলাদেশের বড় জুটির শেষ ভরসা এ দুজনই, সেটি বুঝতে পেরেই হয়তো সেশনের শেষ দিকে উইকেট হারানোর ঝুঁকি নেননি লিটন-মুমিনুল।

১০৮তম ওভারে বাউন্ডারি মেরে মুমিনুল অর্ধশতকে পৌঁছানোর পরই আর বাউন্ডারি মারার চেষ্টা দেখা যায়নি দুজনের ব্যাটে।

কিন্তু চা বিরতির পর তৃতীয় সেশনে শুরু থেকেই উল্টো চিত্র! যেন নতুন শুরু! সেশনের প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই সাউদিকে চার মেরে শুরু মুমিনুলের, পরের ওভারে রবীন্দ্রকে দারুণ লেট কাটে চার মারেন লিটন। জুটিতে দেড় শ রান এনে দেওয়া মুমিনুলের বাউন্ডারির আগে দুজন আরও দুটি করে চার মেরেছেন।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন