মাথায় বল লেগেছিল জাদেজার।
মাথায় বল লেগেছিল জাদেজার। ছবি: টুইটার

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম ম্যাচে জয়ের নায়ক যুজবেন্দ্র চাহাল। কিন্তু এই লেগ স্পিনার আজ মূল একাদশেই ছিলেন না। কনকাশন বদলি বা মাথায় আঘাতজনিত বদলির নিয়মে মাঠে নামার সুযোগ পেয়েছেন চাহাল। আর নেমেই বাজিমাত। ২৫ রান দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মূল তিন ব্যাটসম্যানকে আউট করে দিয়েছেন, হয়েছেন ম্যাচসেরাও। রবীন্দ্র জাদেজার চোটের কারণে নেমে তাঁকেই আরেকটুর জন্য আড়ালে ঠেলে দিয়েছেন চাহাল। আর এই বদলি নিয়ে প্রশ্ন জেগেছে।

আজ ২৩ বলে ৪৪ রান করেছেন জাদেজা। তাঁর এই ইনিংসেই ধুঁকতে থাকা ভারত পেয়েছে ১৬১ রানের স্কোর। শেষ ওভারে মিচেল স্টার্কের একটা বল হেলমেটে লেগেছিল জাদেজার। এ নিয়ে মাঠে খুব একটা গা করেননি ভারতীয় অলরাউন্ডার। কিন্তু ভারত ফিল্ডিংয়ে নামার পর হঠাৎ তাঁকে তুলে নিয়ে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে চাহালকে। বলা হয়েছে, মাথায় আঘাত পাওয়ায় অস্বস্তি বোধ করছেন জাদেজা। আর তাঁর বদলে নেমেছেন চাহাল। যদিও চোটের ধরন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সঙ্গে সঙ্গে। ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত ১১ রানে হেরেছে অস্ট্রেলিয়া।

বিজ্ঞাপন
default-image

অস্ট্রেলিয়ান কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার তো নিজের ক্ষোভ আড়ালই করেননি। আর বদলির ধরনটাও ছিল বেশ প্রশ্ন জাগানো। সাধারণত কনকাশন বদলিতে একই ধরনের খেলোয়াড় বদল করা যায়। অর্থাৎ ব্যাটসম্যানের জন্য ব্যাটসম্যান। বোলারের জন্য বোলার। কিন্তু জাদেজা চোট পাওয়ায় চাহালকে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাদেজা অলরাউন্ডার, তাঁরও বল করার কথা ছিল। কিন্তু আইপিএলে বাজে ফর্মে থাকা জাদেজা ও চাহালের মধ্যে অনেক পার্থক্য। টি-টোয়েন্টিতে শীর্ষ বোলারদের একজন চাহাল।

এটা ছাড়াও যেভাবে জাদেজাকে তুলে নেওয়া হয়েছে, সেটাও সন্দেহজনক। ভারতের ইনিংসের শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে স্টার্কের একটা বল মাথায় লেগেছিল তাঁর। সরাসরি বাউন্সার মাথায় লাগেনি, প্রথমে ব্যাটে লেগে তারপর সেটা হেলমেটে লেগেছে। ফলে এ নিয়ে খুব দুশ্চিন্তা করতে দেখা যায়নি ভারতকে। জাদেজা উইকেটের ওপর পড়ে গেলেও ফিজিওকে তখন পাঠানো হয়নি। জাদেজাও ব্যাট করে গেছেন। চতুর্থ ও পঞ্চম বলে দুটি চারও মেরেছেন।

অস্ট্রেলিয়া ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে হঠাৎ তুলে নেওয়া হয় জাদেজাকে। এ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার কোচ ল্যাঙ্গার ম্যাচ রেফারি ডেভিড বুনের সঙ্গে তর্ক করেছেন। ল্যাঙ্গারের অভিযোগটা অবশ্য সবার কাছেই পরিষ্কার। ব্যাটিংয়ে এর আগেই হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছেন জাদেজা। এ নিয়ে বেশ অস্বস্তিতেই ছিলেন জাদেজা। আর তাঁকে মাঠ থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে সে কারণেই। কিন্তু হ্যামস্ট্রিংয়ের বদলির ফলে নামা খেলোয়াড় বল করতে পারবেন না, কিন্তু কনকাশন বদলির ক্ষেত্রে সে সুযোগ আছে। ভারত তাই হেলমেটে ব্যাটে লেগে আসা বলের আঘাতকেই কাজে লাগিয়েছে।

default-image

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাই এ নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে। তথ্য–উপাত্তে জানা গেছে, এ ম্যাচের সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যাটসম্যান ছিলেন জাদেজা আর দ্বিতীয় সেরা প্রভাব রাখা বোলার ছিলেন চাহাল। এক ঢিলে তাই দুই পাখি মারতে পেরেছে ভারত। টুইটারে তাই ক্রিকেট–ভক্তরা বলছেন, দারুণ বুদ্ধির পরিচয় দিয়েছে ভারত দল। হেলমেটে বল লাগার পরও ফিজিও মাঠে নামেনি যে ঘটনায়, সেটাকেই কাজে লাগিয়ে খেলোয়াড় বদলে নিয়েছে ভারত।

এ নিয়ে তাই ভালোই তর্কবিতর্ক চলছে। ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে অবশ্য বলছেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে কনকাশনের প্রভাব একটু দেরিতে বোঝা যায়, কনকাশন বদলি নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আমাদের একটু সতর্ক থাকা উচিত। কারণ, দেরিতে কনকাশন হয়েছে কি না, সেটাও দেখা উচিত। ড্রেসিংরুমে যাওয়ার পর তাঁর মধ্যে কোনো লক্ষণ দেখা গেছে কি না, সেটা জানা প্রয়োজন। আমরা এখনো সেটা জানি না। তবে ওই সময়ে তাঁকে দেখে স্বাভাবিকই মনে হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন