default-image

এঁদের মধ্যে একজন লাহিরু কুমারা ১০.৫ ওভার বল করেই মাঠ থেকে উঠে গেছেন চোটের কারণে। অন্যরা ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের পরীক্ষা নিতে পারেননি খুব একটা। ভারতের ব্যাটসম্যানরা আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছেন প্রায় পুরোটা সময়ই। প্রথম দিনে ৪৪টি বাউন্ডারি মেরেছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। স্পিনার লাসিথ এম্বুলদেনিয়া শুরুর দিকে ভালো বোলিং করলেও পন্তের সামনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিলেন।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণে গেছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। অধিনায়ক রোহিত শর্মা আর মায়াঙ্ক আগারওয়ালের উদ্বোধনী জুটিতে আসে ৫২ রান। আগে ফেরেন রোহিত, ২৯ রানে। দলীয় ৮০ রানে ফেরেন আগারওয়াল (৩৩)। শততম টেস্টে কোহলির ব্যাটিংয়ে প্রতিশ্রুতি ছিল। গ্যালারিতে মা ও আনুশকা শর্মাকে সাক্ষী রেখে দারুণ একটা গল্প লিখতে পারতেন। কিন্তু ৫০ করার আগেই ফেরেন কোহলি। ৭৬ বলে ৪৫ রান করে এম্বুলদেনিয়ার বলে বোল্ড হন। অন্য প্রান্তে হনুমা বিহারি ১২৮ বলে ৫৮ করে বিশ্ব ফার্নান্দোর বলে আউট হয়ে যান।

default-image

এরপরই মোহালি মাঠে রাজত্ব করেছেন পন্ত। উইকেটের চারদিকে মেরে খেলেছেন। টেস্টে বোলারদের মারা যে কত সহজ—পন্তের ব্যাটিং দেখলে সেটিই মনে হবে। কিন্তু এমন একটা ইনিংস খেলেও শত রানটি করতে পেলেন না তিনি। পুরো ইনিংসে ইতিবাচক খেলে দ্বিতীয় নতুন বলে সুরঙ্গা লাকমলকে একটু রক্ষণাত্মক খেলতে চেয়ে বোল্ড হয়েছেন। শ্রেয়াস আইয়ারও ২৭ রানের বেশি করতে পারেননি। তবে দিন শেষে রবীন্দ্র জাদেজা ব্যাট হাতে দারুণ। ৮২ বলে ৪৫ রান করে অপরাজিত। রবিচন্দ্রন অশ্বিন অপরাজিত ১০ রানে।

এম্বুলদেনিয়াই আজ লঙ্কানদের সেরা বোলার। তিনি ২ উইকেট নিতে অবশ্য খরচ করেছেন ১০৭ রান। একটি করে উইকেট পেয়েছেন সুরঙ্গা লাকমল, বিশ্ব ফার্নান্দো ও লাহিরু কুমারা।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন