কোনো ম্যাচ না খেলে ফিরতে হতে পারে পাকিস্তানকে।
কোনো ম্যাচ না খেলে ফিরতে হতে পারে পাকিস্তানকে। ছবি: টুইটার

কঠোর নিয়ম মেনে তবেই দেশে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে এনেছে নিউজিল্যান্ড। নিরাপদ বোধ করার পরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরিয়েছে তারা। প্রথমেই ডেকে পাঠিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। আজ উইন্ডিজদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়ে অবশেষে নতুন মৌসুম শুরু করছেন কিউইরা। তিন টি–টোয়েন্টির সিরিজের প্রথম ম্যাচে সফরকারীদের ৫ উইকেটে হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টির পর টেস্ট সিরিজও খেলবে নিউজিল্যান্ড। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষেও তিন টি-টোয়েন্টি ও দুই টেস্টের সিরিজ খেলার কথা। কিন্তু এমনও হতে পারে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের আগেই পাকিস্তান দলকে নিউজিল্যান্ড থেকে চলে যেতে হবে। নিউজিল্যান্ডে গিয়ে কোয়ারেন্টিনের নিয়ম ভেঙেছে পাকিস্তান দল। তাতে ক্ষেপে উঠেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এতটাই ক্ষুব্ধ হয়েছে যে সরাসরি জানিয়ে দিয়েছে, আর একবার ভুল হলেই আতিথেয়তা ভুলে পাকিস্তানকে বের করে দেওয়া হবে নিউজিল্যান্ড থেকে।

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খানের এক হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় এ কথা জানা গেছে। খেলোয়াড়দের আচরণে ক্ষুব্ধ হয়ে সতর্ক করে একটা বার্তা পাঠিয়েছেন তিনি। অডিও সে বার্তা চলে এসেছে ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোর কাছে। বার্তায় ওয়াসিম খান জানিয়েছেন, ‘ছেলেরা, আমি নিউজিল্যান্ড সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছে তিন-চারবার নিয়ম ভাঙা হয়েছে। তারা এসব ব্যাপারে কোনো অনিয়ম মানে না এবং আমাদের বলেছে, শেষবারের মতো সতর্ক করেছে তারা। আমরা জানি এটা খুব কঠিন সময়, ইংল্যান্ডেও এভাবে থাকতে হয়েছিল। এটা সহজ নয়। কিন্তু এটা জাতির মান–সম্মানের ব্যাপার। এ ১৪ দিন নিয়ম মেনে চলো। এরপর রেস্তোরাঁয় যাও বা স্বাধীনভাবে ঘুরো। ওরা পরিষ্কার বলে দিয়েছে, আর একবার নিয়ম ভাঙলেই ওরা আমাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেবে।’

আগামী ১৮ ডিসেম্বর টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে। এর আগে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পর্ব পার করতে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকেও এর মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছিল। একবার নিয়ম ভাঙায় অনুশীলন সুবিধা কিছুদিনের জন্য বন্ধ করা হয়েছিল তাদের। পাকিস্তানের ক্ষেত্রে অবস্থা আরও গুরুতর। পাকিস্তান থেকে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে আসা ছয় খেলোয়াড় নিউজিল্যান্ডে নেমেই পজিটিভ হয়েছেন।
এর মধ্যেই নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট এক বিবৃতি দিয়ে পাকিস্তানকে সতর্ক করেছে। চূড়ান্ত সতর্কতা জানিয়ে বলে দিয়েছে কোয়ারেন্টিনের নিয়ম না মানলে দেশে ফিরে যেতে হবে। নিউজিল্যান্ড স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক ডক্টর অ্যাশলি ব্লুমফিল্ড রাগান্বিত হয়ে বলেছেন, ‘নিউজিল্যান্ডে এসে খেলতে পারা অনেক বড় একটা সুযোগ। কিন্তু এর বদলে করোনামুক্ত থাকার জন্য আমরা যে নিয়ম করেছি, সেটা মানতে হবে দলগুলোকে।’

default-image

ওয়াসিম খান বারবার মনে করিয়ে দিয়েছেন, নিয়ম ভাঙার জন্য দেশে ফেরত পাঠালে পাকিস্তানের জন্য সেটা কতটা অপমানজনক। নিউজিল্যান্ডে ১০০ দিন কোনো করোনা রোগী পাওয়া যায়নি। এখনও সংক্রমণের হার নগণ্য। তাই কোয়ারেন্টিন পর্ব শেষ হলেই অবাধ স্বাধীনতা পাচ্ছেন সফরকারী দলগুলো। এ অবস্থায় মাত্র ১৪ দিন ধৈর্য ধরে থাকার জন্য খেলোয়াড়দের অনুরোধ করেছেন ওয়াসিম, ‘এটা জাতির গর্বের প্রশ্ন। খুবই লজ্জার ব্যাপার হবে যদি দল ফেরত পাঠানো হয়। আমি জানি কাজটা খুব কঠিন, তবু তারা যে নিয়ম দিয়েছে সেটা মেনে চলো। নিউজিল্যান্ড সরকারের কাছে কোনো ভুল করা যাবে না। এটাই শেষ সতর্কতা। তারা স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে রাজি নয়। দেশের জন্য সঠিক কাজটা করো।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন