বিজ্ঞাপন
default-image

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পাকিস্তানের এমন পারফরম্যান্সকে লজ্জাজনক বলেছিলেন ইতিহাসের অন্যতম দ্রুতগতির বোলার শোয়েব। পাকিস্তানের ক্রিকেট বোর্ডকেও (পিসিবি) দুষেছিলেন তিনি, ‘এটা লজ্জাজনক। আমাদের বোর্ড কোনোরকমে টেনেটুনে চলে। এখানে গড়পড়তা সব মানুষ, এদের পারফরম্যান্সও তা-ই। ফলে দলটার মানও তেমন। এমন লোকদের কাছ থেকে অসাধারণ কিছু আশা করা ঠিক নয়। আসলে আশা করাটা ভুল।’

default-image

পাকিস্তান দলে এখন তারকার অভাব বলেও মনে করেন শোয়েব, ‘লোকে তো ম্যাচ দেখতে ঠিকই আসছে। কিন্তু এমন পারফরম্যান্সের পর দর্শক তো মুখ ফিরিয়ে নেবে। তরুণদের উজ্জীবিত করার মতো তেমন তারকা কই! আপনি তাহলে পরবর্তী শোয়েব আখতার, শহীদ আফ্রিদি বা ওয়াসিম আকরাম কীভাবে আনবেন? আপনার ব্র্যান্ড তৈরি করতে হবে।’

শোয়েব যে পাকিস্তান দলে তারকার অভাব বলেছেন, সেটিই সম্ভবত গায়ে লেগেছে বাবরের। আর যা-ই হোক, সময়ের ক্রিকেটের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন বলে কথা! শোয়েবের এমন মন্তব্যের পর তাই আর চুপ থাকতে পারেননি বাবর, ‘তিনি না-ই ভাবতে পারেন, তবে প্রতিটি খেলোয়াড়ই শতভাগ দেয় সবখানে। আসলে তাঁকেই জিজ্ঞাসা করা উচিত, কে তারকা আর কে নন। এ ব্যাপারে আমি মন্তব্য করতে পারব না।’

এজবাস্টনে সর্বশেষ ওয়ানডেতে রেকর্ড দ্রুততম সময়ে ১৪তম সেঞ্চুরি করেছেন বাবর, তবে বিফলে গেছে তা। ৩৩১ রান করেও হোয়াইটওয়াশ হওয়া আটকাতে পারেনি পাকিস্তান। বাজে বোলিং আর পিচ্ছিল ফিল্ডিংয়ের খেসারত দিতে হয়েছে তাদের।

এমন পারফরম্যান্সের অবশ্য ব্যাখ্যাও দেওয়ার চেষ্টা করেছেন বাবর, ‘প্রথম দুই ম্যাচে ব্যাটিং ডুবিয়েছে আমাদের। প্রথম ১০ ওভারে দ্রুত উইকেট হারিয়েছিলাম। আমরা ম্যাচের গতি হারিয়েছিলাম তাতে। আর আগেও বলেছি, শেষ ম্যাচ হেরেছি বোলিং ও ফিল্ডিংয়ের কারণে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন