বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম ম্যাচে ব্যাটিংটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। ৭ উইকেটে ১২৭ রান তোলে। দলীয় ইনিংসে কোনো ফিফটি নেই। চারে নামা আফিফ হোসেনের ব্যাট থেকে এসেছে সর্বোচ্চ ৩৪ বলে ৩৬।

পাওয়ারপ্লের মধ্যে দ্রুত উইকেট হারানোর পাশাপাশি রানের চাকাও সচল করতে পারছে না বাংলাদেশ। কাল পাওয়ারপ্লেতে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৩ উইকেটে ২৫। এ ছাড়া বোলাররা শেষ ৩ ওভারে ৩২ রানের সমীকরণ নিয়েও লড়াই করতে পারেননি। ৪ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় পাকিস্তান।

বাংলাদেশের তিন সিনিয়র ক্রিকেটার তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম এ সিরিজে নেই। প্রায় নতুন একটি দল নিয়ে পাকিস্তানের মুখোমুখি হতে হচ্ছে বাংলাদেশকে।

মোহাম্মদ নাঈম, নাজমুল হোসেন, সাইফ হাসানদের মতো তরুণদের কাঁধে তাই অনেক দায়িত্ব। প্রথম ম্যাচে টপ অর্ডারের এ তিন ব্যাটসম্যানই বাজে শট খেলে আউট হন। এর পাশাপাশি টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত টানা ছয় ম্যাচ হারল বাংলাদেশ। কোনো ম্যাচেই টি–টোয়েন্টিসুলভ ব্যাটিং করতে পারেনি বাংলাদেশ।

পাকিস্তান অন্যদিকে রয়েছে ফুরফুরে মেজাজে। টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিয়ে বাংলাদেশ সফরে এসেছে পাকিস্তান। সেমিফাইনাল পর্যন্ত রোমাঞ্চ জাগানিয়া ক্রিকেট খেলেছে পাকিস্তান। কাল ২৪ রানে ৪ উইকেট হারানোর পরও মিডল অর্ডারের দৃঢ়তায় ম্যাচ বের করে নেয় পাকিস্তান। আজ তাঁদের থামাতে পারবে বাংলাদেশ?

ভোটে আপনার মতামত দিন।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন