এবারের বিশ্বকাপে আমাদের ভালো করার বড় সুযোগ। অস্ট্রেলিয়ার পিচ ব্যাটিংয়ের জন্য খুবই ভালো। পাকিস্তানের ভালো ব্যাটসম্যানও আছে। ওরা ওই কন্ডিশনে ভালো করবে।
ওয়াকার ইউনিস
default-image

অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপ—এ কারণে নয়, খেলোয়াড়দের ফর্ম ও সামর্থ্য বিবেচনা করেই ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার সম্ভাবনা দেখছেন পাকিস্তানের। ওয়াকারকে আশাবাদী করছে পাকিস্তানের সাম্প্রতিক ফর্ম ও র‌্যাঙ্কিংও। এই মুহূর্তে টি–টোয়েন্টি দলীয় র‌্যাঙ্কিংয়ে তৃতীয় স্থানে আছে দলটি। র‌্যাঙ্কিংয়ে ভারত ও ইংল্যান্ডের পেছেন আছে পাকিস্তান। টি–টোয়েন্টি ব্যাটসম্যানদের র‌্যাঙ্কিংয়ে তো দলটির বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান আছেন শীর্ষ দুইয়ে।

সবকিছু বিবেচনা নিয়েই ওয়াকার আইসিসি ডিজিটালে পাকিস্তানের সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন, ‘এবারের বিশ্বকাপে আমাদের ভালো করার বড় সুযোগ। অস্ট্রেলিয়ার পিচ ব্যাটিংয়ের জন্য খুবই ভালো। পাকিস্তানের ভালো ব্যাটসম্যানও আছে। ওরা ওই কন্ডিশনে ভালো করবে।’

ওয়াকারের চোখে ব্যাটিংয়ে বাবর–রিজওয়ানই পাকিস্তানের মূল অস্ত্র, ‘টপ অর্ডারে বাবরই হবে আমাদের মূল ব্যাটসম্যান। আমি মনে করি, সে বরাবরের মতোই নিজের ছাপ রাখবে। আর রিজওয়ানও তো খুব ভালো খেলছে। আমাদের বোলিংটা তো অন্যতম সেরা।’

default-image

পাকিস্তানের বোলিংয়ে নেতৃত্বটা এখন পেসার শাহিন আফ্রিদির কাঁধেই। তবে ওয়াকার মনে করেন, অন্য বোলাররাও দলকে সাফল্য এনে দেবেন, ‘আমরা গত এক বছরে ছয়–সাতজন ফাস্ট বোলারকে খেলিয়েছি। সবাই ভালো করেছে। আমার মনে হচ্ছে, হারিস রউফ ও শাহিন আফ্রিদিই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তবে হাসান আলীকেও ভুললে চলবে না, সে–ও খুব ভালো বোলার।’

পাকিস্তানের স্পিনারদের নিয়েও আশাবাদী ওয়াকার, ‘পাকিস্তানের ফাস্ট বোলিং তো খুবই ভালো। এখন শাদাব ও নেওয়াজের মতো দুই ভালো স্পিনারকে সঙ্গী করে ওদের ভালো করতে হবে।’

২০০৯ সালে টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতা পাকিস্তান ২০২২ বিশ্বকাপে সরাসরি সুপার টুয়েলভে খেলবে। দুই নম্বর গ্রুপে দলটির সঙ্গী বাংলাদেশ, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথম রাউন্ড পেরিয়ে আসা দুটি দলও যোগ হবে গ্রুপে। আগামী ২৩ অক্টোবর মেলবোর্নে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে পাকিস্তান।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন