বিজ্ঞাপন

আজ ম্যাচে টস করতে নেমেই একটা জয় পেয়েছে পাকিস্তান। রাওয়ালপিন্ডির এ ম্যাচ দিয়েই যে করোনাবিরতি কাটল তাদের। মাঝে ইংল্যান্ড সফর করে এসেছে তারা। কিন্তু দেশের মাটিতে এই করোনাভাইরাস মহামারির মাঝেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরিয়ে একটা বার্তা দিয়ে রাখল পিসিবি। এমন এক ম্যাচেই ঘটল হাস্যকর সে ঘটনা। পাকিস্তান ইনিংসের ২৬তম ওভারের ঘটনা। ২ উইকেটে ১১৯ রান তখন স্বাগতিকদের। একটু আগেই ফিফটি পেয়েছেন ইমাম। ৩০ রানের জুটিতে হারিসও স্বচ্ছন্দ। ইমামকে একটু খাটো লেংথে বল করেছিলেন সিকান্দার রাজা। পয়েন্টে ঠেলে দিয়েছিলেন ইমাম। জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক চামু চিবাবা ডাইভ দিয়ে বল থামানোর পর তাঁর মাথায় রানের চিন্তা ছিল না।

ওদিকে হারিস তো দ্রুত রান তোলার জন্য ছুট লাগিয়েছেন আগেই। মানা করারা আগেই ইমাম দেখলেন তাঁর পাশে সতীর্থ। চিবাবা দ্রুত থ্রো করেছিলেন উইকেটকিপারের দিকে। কিন্তু ব্রেন্ডন টেলর সে বল ধরার মুহূর্তে দেখেন তাঁর দিকে ছুটে আসছেন দুই ব্যাটসম্যানই। বল ততক্ষণে তাঁকে পেরিয়ে ফিল্ডার মাধভেরের কাছে। এমন সুযোগ হাতছাড়া করেননি ফিল্ডার। ঠান্ডা মাথায় বল দিয়েছেন সিকান্দার রাজাকে। আর সেখান থেকে স্টাম্প ভাঙার আনুষ্ঠানিকতা সেরেছেন রাজা। ৫৮ রানে ফিরে গেছেন ইমাম।

এমন ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম চুপ থাকবে, তা কি হয়! টুইটারে এক মুহূর্তে ছবি দাবানলের মতো ছড়িয়ে দেওয়ার দায়িত্ব পাকিস্তানের সমর্থকেরাই বুঝে নিয়েছেন! সবার মুখেই একই কথা। ‘আবারও হলো’, ‘আবারও করে দেখাল পাকিস্তান’, ‘পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা কখনো হতাশ করে না’, ‘কিছু জিনিস কখনোই বদলায় না।’ একজন তো অতীতের ঘটনাগুলো টেনে মজা করে লিখেছেন, ‘কে বলেছে ২০২০ সালে সব বদলে গেছে!’

পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের এভাবে একপ্রান্তে আউট হওয়া নতুন কিছু নয়। প্রায় নিয়মিতই এভাবে ভুল বোঝাবুঝির দৃশ্য সৃষ্টি করেন তারা। এমনকি দেশটির তরুণ ক্রিকেটাররাও এমন কিছু দেখিয়েছেন এবারের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে। ভারতের বিপক্ষে সেমিফাইনালে কাশিম আকরাম ও রোহাইল নাজির বোলিং প্রান্তে চলে গিয়েছিলেন। তাতে উইকেটকিপার থেকে সতীর্থের চেয়ে বেশি কাছে থাকায় আউট হয়েছেন কাশিম আকরাম। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভারতীয়রা পাকিস্তানিদের নিয়ে অনেক মজা করেছিল।

default-image

নিয়তি অবশ্য এর পাল্টা দিয়েছিল ভারতকে। ফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে এমন এক রান আউট হয়েছে ভারতের এক ব্যাটসম্যান। মজার ব্যাপার পাকিস্তানের দুই ব্যাটসম্যানকে আউট করার সঙ্গে জড়িত থাকা দুজন-অথর্ভ অঙ্কলেকার ও ধ্রুব জুরেল এমন দৃশ্যের জন্ম দিয়েছিলেন। সেদিন আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম পাকিস্তানিদের অট্টহাসি দেখেছে। আজ বড়দের ক্রিকেটে একই কাণ্ড করে অবশ্য পাকিস্তান বুঝিয়ে দিয়েছে হাস্যকর আউটের রাজত্বটা তাদেরই।

আজ এমন রান আউটের ধাক্কা অবশ্য পাকিস্তান সামলে নিয়েছে হারিস সোহেলের সুবাদেই। তাঁর ৭১ রানের সঙ্গে লেট অর্ডারের ছোট ছোট সব ইনিংসে ৮ উইকেটে ২৮১ রান তুলেছে পাকিস্তান। তাড়া করতে নেমে ব্রেন্ডন টেলরের দারুণ এক সেঞ্চুরিও (১১২) জয় এনে দিতে পারেনি জিম্বাবুয়েকে। ২৬ রানে হেরে গেছে জিম্বাবুয়ে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন