default-image

বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে তাদের ‘জয়’ যেন মরীচিকা; হার শেষে নির্ঘুম রাতই যেন পাকিস্তানের ভবিতব্য! এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে ভারতকে হারাতে না পারা পাকিস্তান এবার নিশ্চয়ই পাশার দান উল্টে দিতে চাইবে। অথচ ১৫ ফেব্রুয়ারি ভারত-পাকিস্তান মহারণের আগে পাকিস্তান দল কিনা ভীষণ নার্ভাস! দুই দেশের সাবেক-বর্তমান ক্রিকেটাররা কিংবা কোনো ক্রিকেট-বিশেষজ্ঞের মন্তব্য না হলেও ‘নার্ভাসনেস’-এর প্রমাণ যখন আপনার চোখের সামনে, তখন কি আর তা বলার অপেক্ষা রাখে!

‘নার্ভাসনেস’-এর উদাহরণ তো চোখের সামনে। এমনিতে পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা মিডিয়াবৎসল, সাংবাদিকদের সঙ্গে কথোপকথনে নিজেদের মনের দুয়ার খুলে দিতে তাঁদের জুড়ি নেই! কিন্তু এবারের বিশ্বকাপ সামনে রেখে পাকিস্তান দল একপ্রকার গৃহবন্দীই যেন। একমাত্র অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক ছাড়া আর সবাই যেন মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছেন!
দলের অন্দরমহলে বিবাদ কিংবা শৃঙ্খলা ভঙ্গের ঘটনা তো পাকিস্তান দলের ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে! এবারের বিশ্বকাপও তার ব্যতিক্রম নয়। অস্ট্রেলিয়া আসার কিছুদিন বাদেই নাকি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে হোটেলে ফেরার নির্দেশ অগ্রাহ্য করে ৪৫ মিনিট দে​রিতে ফেরেন কয়েকজন ক্রিকেটার। তাঁদের প্রত্যেককে জরিমানা করা হয়েছে ৩০০ অস্ট্রেলীয় ডলার। আরও বেশ কিছু নিয়মবিধি-ভঙ্গের কারণে সেই ‘কয়েকজন’ ক্রিকেটারকে নাকি ইতিমধ্যে শেষ সতর্কসংকেতও দেখিয়ে ফেলেছে টিম ম্যানেজমেন্ট!
১৯৯২ বিশ্বকাপে রবিন লিগ পদ্ধতিতে, ১৯৯৬-এর কোয়ার্টার ফাইনালে, ১৯৯৯ ও ২০০৩ বিশ্বকাপের সুপার সিক্সে এবং ২০১১ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে—পাকিস্তানের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রতিটি ম্যাচেই জয়ী ভারত। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে জয়ের দেখা মেলেনি—এই একটি তথ্যই তো পাকিস্তানিদের কাছে পর্বতসমান চাপ! তার ওপর এবারই প্রথমবারের মতো গ্রুপপর্বের প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি ভারত-পাকিস্তান। একে তো নিজেদের প্রথম ম্যাচ, তাও কিনা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষেই! নার্ভাসনেসের সংজ্ঞা বোধ হয় পাকিস্তানের ক্রিকেটাররাই সবচেয়ে ভালো দিতে পারবেন!
১৫ ফেব্রুয়ারি সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। যে ঐতিহাসিক ম্যাচের সাক্ষী হতে মাত্র কয়েক মিনিটেই ম্যাচের সব টিকেট শেষ! টিভি দর্শকদের জন্য আবারও নতুন রেকর্ড তৈরির মঞ্চ প্রস্তুত। ভারতীয় গণমাধ্যমজুড়ে পাকিস্তানকে নিয়ে প্রবল কটাক্ষ। এর সঙ্গে যোগ করুন পাকিস্তানের ভঙ্গুর টপঅর্ডার ও আজমলবিহীন ক্ষয়িষ্ণু বোলিং লাইনআপ। পাকিস্তান দলে স্নায়ুচাপ জেঁকে বসার নানা যুক্তি হাতের কাছে। এত চাপ সামলে মিসবাহর দল এবার উতরে যেতে পারবে কি না—সেটিই দেখার। তথ্যসূত্র: ক্রিকইনফো।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন